বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
   * ঈদে ৭ দিন বন্ধ থাকবে বুড়িমারী স্থলবন্দর   * দেশে কমেছে কোটিপতির সংখ্যা   * গাবতলীতে যাত্রী বেশি হলেই ‘বাড়তি ভাড়া আদায়’   * স্থানীয় শিল্পের সুরক্ষায় গ্যাস-বিদ্যুৎ সরবরাহ বাড়ানোর দাবি   * শরিকদের কোন কোন মন্ত্রণালয় দিলো বিজেপি   * একমাত্র পশুহাট পরিচালনা করবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা নিজেই   * হজ পালনে সৌদির পথে পররাষ্ট্রমন্ত্রী   * তীব্র গরমে নাজেহাল পশ্চিমবঙ্গবাসী   * হাসপাতালে ভর্তি কিশোরীকে ধর্ষণচেষ্টা, যুবক গ্রেফতার   * ব্যাংক-জ্বালানি খাতের মতো রোগাক্রান্ত ফুসফুস মেরামতে বার্তা নেই  

   পাঁচ মিশালী -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ভুল চিকিৎসার নামে চিকিৎসকদের ওপর আক্রমণ মানা যায় না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা.সামন্ত লাল সেন বলেছেন, ভুল চিকিৎসা বলার অধিকার কারও নাই, আমারও নাই। বাংলাদেশে একমাত্র ভুল চিকিৎসা বলার অধিকার রাখে বিএমডিসি (বাংলাদেশ মেডিক্যাল ডেন্টাল কাউন্সিল)।ভুল চিকিৎসার অজুহাতে চিকিৎসকদের ওপর যে আক্রমণ হয় তা ন্যাক্কারজনক, খুবই বাজে। ভুল চিকিৎসার নাম করে চিকিৎসকদের মারধর, বিশেষ করে নারী চিকিৎসকদের ওপর আক্রমণ মেনে নেওয়া যায় না। 

 ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব নিউরো সায়েন্সে এ অনুষ্ঠিত ১২তম আন্তর্জাতিক এবং ২য় এসিএনএস-বিএসএনএস হাইব্রিড কনফারেন্স ও ক্যাডাভেরিক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন। 

বাংলাদেশের চিকিৎসকদের সক্ষমতা সম্পর্কে উল্লেখ করে ডা সামন্ত লাল সেন বলেন,আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি, আমাদের চিকিৎসকদের মেধা ও দক্ষতা বিশ্বের যেকোন দেশের চিকিৎসকদের চেয়ে কম না। আমরা যে জোড়া মাথার জমজ শিশু রোকেয়া-রাবেয়ার অপারেশন করলাম, যদিও সেখানে হাঙ্গেরির চিকিৎসকরা ছিল, কিন্তু সেই অপারেশনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছে আমাদের দেশের নিউরোসার্জনরা। প্রথম যখন ঢাকা মেডিকেল কলেজে বাচ্চা দুটির এন্ড্রোভাস্কুলার সেপারেশন হয়, সেই রাতের ৩টা-৪টা বাজে আমি নিজের চোখে দেখেছি আমাদের এনেস্থেটিক এবং নিউরোসার্জনদের ইচ্ছা, দক্ষতা ও সামর্থ্য। যা আমাকে বিস্মিত করেছে। 

তরুণ চিকিৎসকদের আহবান জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন,বাংলাদেশকে আমরা এমন এক জায়গায় নিয়ে যেতে চাই, যেখানে দেশের মানুষ চিকিৎসক সমাজকে সম্মান করে। আমরা যদি সকাল  আটটা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে সার্ভিস দিই। রোগীদের সেবা দিই। মানুষ সম্মান করবে। আমাদের তো কোন কিছুর অভাব নেই। আমাদের মেধা আছে। সেই মেধা দিয়ে তোমরা সর্বোচ্চ সেবা দাও, তোমাদের সুরক্ষা আমি দেবো। ডাক্তার হিসেবে তোমাদের প্রতি এটাই আমার প্রতিশ্রুতি। 

বাংলাদেশ সোসাইটি অব নিউরোসার্জন্স প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ডা.মোহাম্মদ হোসাইনের সভাপতিত্বে আয়োজিত এই কর্মশালায় সম্মানিত অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন এর মহাসচিব ডা. ইহতেশামুল হক চৌধুরী, নিনস্ এর যুগ্ন  পরিচালক অধ্যাপক ডা. বদরুল আলম প্রমুখ।

ভুল চিকিৎসার নামে চিকিৎসকদের ওপর আক্রমণ মানা যায় না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা.সামন্ত লাল সেন বলেছেন, ভুল চিকিৎসা বলার অধিকার কারও নাই, আমারও নাই। বাংলাদেশে একমাত্র ভুল চিকিৎসা বলার অধিকার রাখে বিএমডিসি (বাংলাদেশ মেডিক্যাল ডেন্টাল কাউন্সিল)।ভুল চিকিৎসার অজুহাতে চিকিৎসকদের ওপর যে আক্রমণ হয় তা ন্যাক্কারজনক, খুবই বাজে। ভুল চিকিৎসার নাম করে চিকিৎসকদের মারধর, বিশেষ করে নারী চিকিৎসকদের ওপর আক্রমণ মেনে নেওয়া যায় না। 

 ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব নিউরো সায়েন্সে এ অনুষ্ঠিত ১২তম আন্তর্জাতিক এবং ২য় এসিএনএস-বিএসএনএস হাইব্রিড কনফারেন্স ও ক্যাডাভেরিক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন। 

বাংলাদেশের চিকিৎসকদের সক্ষমতা সম্পর্কে উল্লেখ করে ডা সামন্ত লাল সেন বলেন,আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি, আমাদের চিকিৎসকদের মেধা ও দক্ষতা বিশ্বের যেকোন দেশের চিকিৎসকদের চেয়ে কম না। আমরা যে জোড়া মাথার জমজ শিশু রোকেয়া-রাবেয়ার অপারেশন করলাম, যদিও সেখানে হাঙ্গেরির চিকিৎসকরা ছিল, কিন্তু সেই অপারেশনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছে আমাদের দেশের নিউরোসার্জনরা। প্রথম যখন ঢাকা মেডিকেল কলেজে বাচ্চা দুটির এন্ড্রোভাস্কুলার সেপারেশন হয়, সেই রাতের ৩টা-৪টা বাজে আমি নিজের চোখে দেখেছি আমাদের এনেস্থেটিক এবং নিউরোসার্জনদের ইচ্ছা, দক্ষতা ও সামর্থ্য। যা আমাকে বিস্মিত করেছে। 

তরুণ চিকিৎসকদের আহবান জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন,বাংলাদেশকে আমরা এমন এক জায়গায় নিয়ে যেতে চাই, যেখানে দেশের মানুষ চিকিৎসক সমাজকে সম্মান করে। আমরা যদি সকাল  আটটা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত মনোযোগ দিয়ে সার্ভিস দিই। রোগীদের সেবা দিই। মানুষ সম্মান করবে। আমাদের তো কোন কিছুর অভাব নেই। আমাদের মেধা আছে। সেই মেধা দিয়ে তোমরা সর্বোচ্চ সেবা দাও, তোমাদের সুরক্ষা আমি দেবো। ডাক্তার হিসেবে তোমাদের প্রতি এটাই আমার প্রতিশ্রুতি। 

বাংলাদেশ সোসাইটি অব নিউরোসার্জন্স প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ডা.মোহাম্মদ হোসাইনের সভাপতিত্বে আয়োজিত এই কর্মশালায় সম্মানিত অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন এর মহাসচিব ডা. ইহতেশামুল হক চৌধুরী, নিনস্ এর যুগ্ন  পরিচালক অধ্যাপক ডা. বদরুল আলম প্রমুখ।

তারুণ্য ধরে রাখবে যেসব খাবার
                                  

লাইফস্টাইল ডেস্ক:

সঠিক লাইফস্টাইল ও খাদ্যাভ্যাসের মাধ্যমে তারুণ্যকে ধরে রাখা সম্ভব। কিছু খাবার রয়েছে, যা বয়সের ছাপকে দূরে রেখে তারুণ্য ও যৌবনকে ধরে রাখতে সহায়তা করে।

মেথি
মেথিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। এটি কোলেস্টেরলের মাত্রা, ডায়াবেটিস এবং ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য সহায়ক।

মেথি পুরুষের টেস্টোস্টেরন হরমোনের মাত্রা বাড়ানোর পাশাপাশি বার্ধক্যকে দূরে ঠেলে তারুণ্যকে ধরে রাখতে সহায়তা করে।

 

রঙিন ফলমূল ও শাক-সবজি
এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, মিনারেলস ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, যা ত্বককে বিভিন্ন প্রতিকূল পরিবেশ থেকে রক্ষা করে সজীব ও সতেজ রাখে। পাকা পেঁপে, কলা, গাজর, সবুজ শাক, ব্রকোলি ইত্যাদি ছাড়াও ভিটামিন-সি জাতীয় খাদ্য (লেবু, আমলকী, কমলা) শরীরকে সতেজ রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

অ্যালোভেরা
ভিটামিন, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও খনিজ উপাদান দেহের ওজন কমায়।

এ ছাড়া অ্যালোভেরার জুস টেস্টোস্টেরন হরমোন বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

 

বাদাম
বাদামে থাকা ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড ও ভিটামিন-ই ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিদিন সঠিক পরিমাণে বাদাম খেলে অতিরিক্ত বেগুনি রশ্মি থেকে রক্ষার পাশাপাশি ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে সহায়তা করে। এতে সহজে ত্বকে বলিরেখা পড়ে না।

বেদানা
বেদানায় রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও হিমোগ্লোবিন তৈরির উপাদান। বেদানায় থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ত্বকের নমনীয়তা বজায় রেখে ত্বককে টান টান রাখতে সহায়তা করে।

গ্রিন টি
এতে রয়েছে শক্তিশালী পলিফেনল, যা রোদ বা ক্ষতিকারক দূষিত বস্তুর হাত থেকে ত্বককে রক্ষা করে।

টমেটো
টমেটোতে থাকা লাইকোপেন নামের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ত্বককে সজীব ও সতেজ করে তোলে এবং অতিবেগুনি রশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা করে।

আখরোট
আখরোটে রয়েছে প্রচুর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, যা ত্বকের কোলাজেন বাড়িয়ে ত্বককে টান টান রাখতে সহায়তা করে।

এতে আরো রয়েছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড, যা ত্বককে দ্রুত বুড়িয়ে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে এবং ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়।

দুধ
দুধে রয়েছে সব ধরনের পুষ্টি উপাদান। দুধের প্রোটিন, ভিটামিন-ডি ও ক্যালসিয়াম হাড়কে মজবুত রেখে সুঠাম দেহ গঠনে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায় ও ত্বক পরিষ্কার করে।

পানি
ত্বককে সজীব, সতেজ ও টান টান রাখতে পানির গুরুত্ব অপরিসীম। ত্বককে প্রাকৃতিকভাবে উজ্জ্বল করে তোলে। পানি ত্বকের অকালবার্ধক্য ও টান পড়া রোধ করে। স্বাস্থ্যকর উজ্জ্বল ত্বকের জন্য প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করা প্রয়োজন।

আমরা খাবারের মধ্যেই দেহের প্রয়োজনীয় ও সব ধরনের পুষ্টি উপাদান পেয়ে থাকি। নিজেকে সুস্থ ও সুন্দর রেখে যৌবন ও তারুণ্য ধরে রাখতে পুষ্টিকর খাদ্যের কোনো বিকল্প নেই। সব সময় বিষণ্নতামুক্ত ও হাসিখুশি থাকুন এবং সঠিক খাদ্যাভ্যাসের মাধ্যমে তারুণ্যকে জয় করুন।

লেখক
নিউট্রিশনিস্ট অ্যান্ড ডায়েট কনসালট্যান্ট
ডলফিন ডায়াগনস্টিক সেন্টার, কুষ্টিয়া

আধা ঘণ্টায় ৭০ কোটি টাকার লেনদেন, সূচক মিশ্র
                                  

Online desk (DTV BANGLA NEWS): সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবস বুধবার (২১ জুন) লেনদেনের শুরুতে শেয়ারবাজারে মূল্য সূচকের মিশ্র প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। সেই সঙ্গে লেনদেনে ধীরগতি রয়েছে। তবে দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে বেশি প্রতিষ্ঠান। প্রথম আধা ঘণ্টার লেনদেনে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্য সূচক কিছুটা বাড়লেও কমেছে বাছাই করা ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত সূচক। আর লেনদেন হয়েছে ৭০ কোটি টাকার কিছু বেশি। অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) প্রধান মূল্য সূচক ঊর্ধ্বমুখী রয়েছে। সেই সঙ্গে দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে বেশি সংখ্যক প্রতিষ্ঠান। এ বাজারটিতেও লেনদেনে ধীরগতি দেখা যাচ্ছে। এর আগে গত সপ্তাহে শেয়ারবাজারে লেনদেন হওয়া পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে চার কার্যদিবসেই দরপতন হয়। সপ্তাহজুড়ে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমার পাশাপাশি কমে লেনদেনের গতি। দুই মাসের মধ্যে ডিএসইতে সর্বনিম্ন লেনদেনের ঘটনাও ঘটে।  তবে চলতি সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে প্রধান মূল্য সূচক সামান্য বাড়ে। আর দ্বিতীয় কার্যদিবস সোমবার সবকটি মূল্য সূচকের বড় উত্থান হয়। সেই সঙ্গে চারশো কোটি টাকার ঘরে নেমে যাওয়া লেনদেন বেড়ে পাঁচশো কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়। তবে মঙ্গলবার আবার দরপতন হয়। এ পরিস্থিতিতে বুধবার ডিএসইতে লেনদেন শুরু হয় বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম বাড়ার মাধ্যমে। ফলে লেনদেন শুরু হতেই ডিএসইর প্রধান সূচক ৪ পয়েন্ট বেড়ে যায়।লেনদেনের প্রথম আধা ঘণ্টাজুড়েই বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম বাড়ার প্রবণতা অব্যাহত রয়েছে। তবে বড় মূলধনের কিছু প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম কমে গেছে। এতে ঋণাত্মক অবস্থায় রয়েছে বাছাই করা সূচক। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ১০টা ৪৬ মিনিটে ডিএসইতে দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে ৯৪টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট। বিপরীতে দাম কমেছে ৬৪টির। আর ১০০টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।এতে ডিএসইর প্রধান সূচক বেড়েছে ৪ পয়েন্ট। তবে অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই-৩০ সূচক কমেছে দশমিক শূন্য ৪ পয়েন্ট। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক বেড়েছে ১ পয়েন্ট। এ সময় পর্যন্ত ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১০১ কোটি ৬৮ লাখ টাকা।অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৪ পয়েন্ট বেড়েছে। লেনদেন হয়েছে ২ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেওয়া ৬৭ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ৩১টির, কমেছে ১৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২১টির।

ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে ব্রাজিলে নিহত ১১, নিখোঁজ ২০
                                  

Online desk (DTV BANGLA NEWS): ব্রাজিলের দক্ষিণাঞ্চলীয় রিও গ্রান্দে দো সুল রাজ্যে ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে কমপক্ষে ১১ জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় নিখোঁজ রয়েছে আরও ২০ জন।রাজ্য কর্তৃপক্ষ নিহত হওয়ার এ সংখ্যা প্রকাশ করেছে। অতি ক্রান্তীয় এই ঘূর্ণিঝড় গত শুক্রবার ওই অঞ্চলে আঘাত হানে।স্থানীয় সরকারের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঘূর্ণিঝড়ের কারণে মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছে। নিখোঁজ ২০ জনের সন্ধান পেতে হেলিকপ্টার দিয়ে অভিযান চালানো হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হওয়া শহরগুলোর একটি ‘কারা’ শহর। সেখানে আট হাজারের বেশি মানুষের বসবাস। রিও গ্রান্দে দো সুলের গভর্নর এদুয়ার্দো লেইতে দুর্গত এলাকাটি পরিদর্শন করেছেন। তিনি বলেন, “কারা এলাকার পরিস্থিতি আমাদের অত্যন্ত ভাবাচ্ছে। আমাদের পরিকল্পিতভাবে দ্রুত ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলো চিহ্নিত করতে হবে এবং কোন মানুষদের সহযোগিতা প্রয়োজন, তা শনাক্ত করতে হবে।”ক্ষতিগ্রস্ত শহরগুলোর অনেক বাসিন্দা তাদের নিজ নিজ এলাকার ক্রীড়াকেন্দ্রগুলোয় আশ্রয় নিয়েছে। কয়েকটি এলাকায় ভূমিধস হতে পারে উল্লেখ করে কর্তৃপক্ষ সতর্কতা জারি করেছে।

৩২ বছর পর কারামুক্ত ‘জল্লাদ’ শাহজাহান
                                  

Online desk (DTV BANGLA NEWS): ৩২ বছর সাজা ভোগের পর মুক্তি পেলেন জল্লাদ শাহজাহান ভূঁইয়া। রবিবার বেলা ১১টা ৪৬ মিনিটে কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়। দেশের বিভিন্ন কারাগারে ২৬ জনের ফাঁসি কার্যকর করেছেন তিনি।কারা সূত্রে জানা গেছে, ‘জল্লাদ’ শাহজাহানের পুরো নাম শাহজাহান ভূঁইয়া। তিনি নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ইছাখালী গ্রামের মৃত হাছেন আলীর ছেলে। ৭৩ বছর বয়সী শাহজাহান ব্যক্তিগত জীবনে অবিবাহিত। তার কয়েদি নম্বর ছিল ২৫৮৯/এ। মুক্তির আগ পর্যন্ত তিনি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের প্রধান জল্লাদ ছিলেন। কারা কর্তৃপক্ষ জানায়, ১৯৯১ সালে গ্রেফতার হয়ে প্রথমে মানিকগঞ্জ জেলা কারাগারে ছিলেন। সর্বশেষ তিনি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের কয়েদি ছিলেন। শাহজাহান ভূঁইয়ার মোট সাজা হয়েছিল ৪২ বছর। তার মধ্যে তিনি ১০ বছর ৫ মাস ২৮ দিন রেয়াত পেয়েছেন। প্রায় ৩২ বছরের সাজা শেষে তিনি মুক্তি পেয়েছেন। কিন্তু কারাগারের মধ্যে ভালো কাজ ও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের ফাঁসির রায় কার্যকর করতে জল্লাদের দায়িত্ব পালনের জন্য তার সাজার মেয়াদ ১০ বছর মওকুফ (রেয়াত) করা হয়। পাশাপাশি শাহজাহানের পরিবারের আর্থিক অবস্থা ভালো না হওয়ায় আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কারা কর্তৃপক্ষ তার জরিমানার ১০ হাজার টাকা পরিশোধ করেছে। ফলে দীর্ঘ ৩১ বছর ৬ মাস ২ দিন কারাগারের চার দেয়ালের মধ্যে বন্দি জীবন কাটানোর পর এখন তিনি মুক্ত। কারা সূত্র জানায়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৬ ঘাতক, ৬ জন যুদ্ধাপরাধী, কুখ্যাত সন্ত্রাসী এরশাদ শিকদার, জঙ্গি নেতা বাংলাভাই, আতাউর রহমান সানী, শারমীন রীমা হত্যার আসামি খুকু মনির, ডেইজি হত্যা মামলার আসামি হাসানসহ বাংলাদেশের আলোচিত ২৬ জনের ফাঁসি কার্যকর করেছেন শাহজাহান।১৯৯১ সালে মানিকগঞ্জের একটি মামলায় তাকে গ্রেফতার করে মানিকগঞ্জ জেলা কারাগারে রাখা হয়। এরপর দেশের বিভিন্ন জেলে রাখা হয় তাকে।শাহজাহানের দুই মামলার তথ্য স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল ১৮/১৯৯২, মানিকগঞ্জ ০৩(১২)৯১, ধারা- অস্ত্র আইন ১৯(এ)। এই মামলায় শাহজাহানের ১২ বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানার সাজা হয়েছিল। জরিমানার অর্থ অনাদায়ে আরও ছয় মাস বিনাশ্রম কারাদণ্ডের রায় হয়েছিল সেই মামলায়। যা কার্যকর শুরু হয় ১৯৯১ সালের ১৭ ডিসেম্বর থেকে।অপর মামলাটি হলো দায়রা ৪০/৯২, মানিকগঞ্জ ২(১২)৯১, ধারা-৩৯৬ দণ্ডবিধি। এই মামলায় তার ৩০ বছরের সাজা হয়। পাশাপাশি পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে আরও ছয় মাস কারাদণ্ডের রায় হয়। দুই মামলায় তার সাজা মওকুফ (রেয়াত) হয় ১০ বছর ৫ মাস ২৮ দিন।

২৩ মণের রাজাবাবু, দাম ১০ লাখ
                                  

কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার মো. জসিম মোল্লা (৩০) জীবিকার তাগিদে থাকেন প্রবাসে। স্ত্রী হালিমা খাতুন গৃহিণী। গৃহস্থালির কাজের পাশাপাশি গৃহবধূ হালিমা খাতুন একটি ষাঁড় গরুর লালন-পালন করেছেন। ছয় বছরের সংসার জীবনে এখনো তাদের কোলজুড়ে কোনো সন্তান আসেনি। এজন্য তিনি প্রায় চার বছর ধরে সন্তানের মতোই গরুটিকে পরিচর্যা করেছেন। আদর করে গরুটির নামও রেখেছেন ‘রাজাবাবু’। এই দম্পতি উপজেলার সদকী ইউনিয়নের উত্তর মূলগ্রামের বাসিন্দা। ‘রাজাবাবু’ নামে ফ্রিজিয়ান জাতের এই গরুর উচ্চতা প্রায় পাঁচ ফিট ১০ ইঞ্চি এবং লেজ থেকে মাথার দৈর্ঘ্য প্রায় আট ফিট। যার ওজন আনুমানিক ৯৫৭ কেজি অর্থাৎ ২৩ মণের বেশি। প্রবাসীর স্ত্রী গরুটির দাম চাচ্ছেন ১০ লাখ টাকা।জানা গেছে, প্রায় ৬ বছর আগে উত্তর মূলগ্রামের মৃত সামছদ্দিন মোল্লার ছেলে জসিম মোল্লার সাথে একই এলাকার মো. চাঁদ আলীর মেয়ে হালিমা খাতুনের বিয়ে হয়। বিয়ের পরের বছর জসিম মোল্লা জীবিকার তাগিদে চলে গেছেন ইরাকে। আর স্ত্রী হালিমাকে তার শ্বশুর ফ্রিজিয়ান বাছুরসহ একটি গাভী গরু কিনে দেন। সেই বাছুর গরুটিই আজকের বিশাল ষাঁড় গরু ‘রাজাবাবু’। প্রায় চার বছর ধরে ঘাস, খড়, ছাল, ছোলা, ভুট্টাসহ বিভিন্ন খাবার দিয়ে নিজের সন্তানের মতোই গরুটিকে পালন করছেন হালিমা খাতুন। প্রতিদিন প্রায় ৬০০ থেকে ৭০০ টাকার খাবার খায় গরুটি। এটিকে ঘিরে হালিমার চোখে এখন নানান স্বপ্ন। এদিকে, কুরাবানির ঈদের সময় ঘনিয়ে আসছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত ক্রেতাদের তেমন সাড়া পাওয়া যায়নি। এনিয়ে তারা একটু দুশ্চিন্তায় আছেন। সরেজমিন দেখা গেছে, টিনশেডের পাকা ঘরের মেঝের সামনে একটি আমগাছ রয়েছে। সেখানে দড়ি দিয়ে বাঁধা রয়েছে কালো রঙের রাজাবাবু। তাকে হাতপাখা দিয়ে বাতাস করছেন প্রবাসীর স্ত্রী হালিমা খাতুন। এসময় হালিমা খাতুন বলেন, তিনি প্রায় চার বছর ধরে নিজ সন্তানের মতোই গরুটিকে লালন-পালন করছেন। দেখতে সুন্দর ও বিশাল দেহের অধিকারী হওয়ায় তিনি আদর করে নাম রেখেছেন রাজাবাবু। তার প্রতিমাসে ঘাস, খড়, ছোলা, গম, ধানের গুড়াসহ গরুর খাবাবের জন্য প্রায় ২০ থেকে ২২ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। প্রায় ২৩ মণ ওজনের গরুটিকে তিনি ১০ লাখ টাকা হলে বিক্রি করবেন বলে জানিয়েছেন।তিনি আরও বলেন, গরু বিক্রির টাকা দিয়ে তিনি প্রায় এক লাখ টাকার মধ্যে একটি গরু কিনবেন। বাকি টাকা দিয়ে তিনি জমি কিনবেন, সেখানে বাড়ি বানাবেন।প্রবাসীর শ্বশুর মো. চাঁদ আলী বলেন, চার বছর আগে তিনিই মেয়ে-জামাইকে বাছুরসহ একটি গাভী গরু কিনে দিয়েছিলেন। সেই বাছুর গরুটিই এখন হাতির মতো দেখতে লাগে। বাড়ি থেকেই তিনি গরুটিকে ১০ থেকে ১২ লাখ টাকায় বিক্রি করতে চান। তার ভাষ্য, ফ্রিজিয়ান জাতের এই গরুর উচ্চতা প্রায় পাঁচ ফিট ১০ ইঞ্চি এবং লেজ থেকে মাথার দৈর্ঘ্য প্রায় আট ফিট। যার ওজন আনুমানিক ৯৫৭ কেজি অর্থাৎ ২৩ মণের বেশি।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যোগাযোগ করা হলে প্রবাসী জসিম মোল্লা জানান, তার বাড়িতে তেমন লোকজন নেই। বড় গরু বাজারে আনা নেওয়া সমস্যা। আবার ঈদও চলে আসছে। বেচা-বিক্রি নিয়ে তিনি খুব দুশ্চিন্তায় রয়েছেন। উপজেলা প্রাণীসস্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, একটি পৌরসভা ও ১১টি ইউনিয়নে এবছর কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে ৩ হাজার ৫৯৭টি খামার ও বাসাবাড়িতে মোট প্রায় ২৩ হাজার ৫৬৬টি স্বাস্থ্যসম্মত পশু প্রস্তুত করা হয়েছে, যা উপজেলায় চাহিদার তুলনায় ১০ হাজার ৯৩৫টি পশু বেশি রয়েছে। তিনি সব সময় পশু ও মালিকদের সার্বিক খোঁজখবর রাখছেন।

নগরকান্দা কামাল হোসেন রাজিবের দোয়া ও ইফতার আয়োজন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার:

ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার ডাংগী ইউনিয়ানের, ডাংগী নগরকান্দা  কান্দা গ্রামের কামাল হোসেন রাজিবের বাড়িতে দোয়া  ও  ইফতারির আয়োজন করা হয় । শুক্রবার  ৩১মার্চ , ২০২৩ উক্ত দোয়া ও ইফতারিতে অংশগ্রহণ করেন,  নগরকান্দা উপজেলার ডাঙ্গী   ইউনিয়নের  আগামী দিনের রূপকার।  ও গরীব, দুঃখী মানুষের বন্ধু  বিশিষ্ট   সমাজসেবক,  ব্যবসায়ী  মোঃ মুরাদ হোসেন মিয়া ।  ভাঙ্গা উপজেলার পুখুরিয়া  ব্রাহ্মণ  কান্দা গ্রামের গিয়াস উদ্দিন মাতবর,  ডাংগী ইউনিয়নের  মেম্বার মোঃ আবুল হোসেন , ডাংগী ইউনিয়নের খৈয়া সাবেক মেম্বার  আইয়ুব বেপারী, ও শত, শত এলাকা বাসী উপস্থিত ছিলেন।

৭ অতিরিক্ত আইজিপিকে বদলি
                                  

Online Desk(DTV BANGLA NEWS):   হাইওয়ে পুলিশের প্রধানসহ অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক (অতিরিক্ত আইজিপি) পদমর্যাদার সাত কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে। বুধবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ থেকে এক প্রজ্ঞাপনে তাদের বদলি করা হয়। রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে প্রজ্ঞাপনে সই করেন উপসচিব নূর-এ-মাহবুবা জয়া। বদলি কর্মকর্তারা হলেন- পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) অতিরিক্ত আইজিপি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত মো. হুমায়ুন কবিরকে পুলিশ অধিদপ্তরে, পুলিশ অধিদপ্তরের আইজিপি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত জামিল আহমদকে পুলিশ অধিদপ্তরে, পুলিশ অধিদপ্তরের আইজিপি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত ওয়াই এম বেলালুর রহমানকে পুলিশ টেলিকমে, ডিএমপির অতিরিক্ত আইজিপি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত মীর রেজাউল আলমকে রাজশাহী পুলিশ একাডেমির প্রিন্সিপাল পদে বদলি করা হয়েছে। এছাড়া রাজশাহী পুলিশ একাডেমির প্রিন্সিপাল অতিরিক্ত আইজিপি আবু হাসান মুহম্মদ তারিককে পুলিশ অধিদপ্তরে, পুলিশ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত আইজিপি মো. শাহাবুদ্দিন খানকে হাইওয়ে পুলিশের প্রধান ও হাইওয়ে পুলিশের প্রধান অতিরিক্ত আইজিপি মল্লিক ফখরুল ইসলামকে ঢাকা পুলিশ স্টাফ কলেজের রেক্টর হিসেবে বদলি করা হয়েছে।

সূত্র: জাগো নিউজ

‘টাকা বাঁচাতে গিয়ে আমার সব কেড়ে নিয়েছে’
                                  

ঢাকা: রাজধানীর উত্তরায় বিআরটি প্রকল্পের গার্ডার চাপা পড়ে একই পরিবারের ৫ জন নিহত হলেও ভাগ্যক্রমে বেঁচে যান গাড়িতে থাকা নবদম্পতি হৃদয় ও রিয়া। হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়ে ছুটে এসেছেন সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজের মর্গের সামনে। যেখানে একই গাড়িতে থাকা বাকি ৫ জনের মরদেহের ময়নাতদন্ত চলছিল। ভাগ্যক্রমে বেঁচে গেলেও মাত্র একদিনের ব্যবধানে চোখের সামনে পরিবারের ৫ জনকে মারা যেতে দেখে কিছুতেই সামলাতে পারছেন না নিজেদের। কান্না থামিয়ে এই দম্পতি বলছেন, টাকা বাঁচাতে কোনো ধরনের নিরাপত্তা ছাড়াই এতো বড় কাজ করাতেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। ফলে পরিবারের ৫ জনকে হারাতে হয়েছে তাদের। রিয়া বলেন, এই দুনিয়াতে আমার মা-ই সবচেয়ে আপান। সেই ছোট থেকে আমাকে আর আমার ভাইকে বড় করছেন। সেই মা-ই আমার সঙ্গে থেকে মারা গেলেন। চাপা পড়ার পর মায়ের শরীরের রক্ত আমার গায়ে এসে লাগে, এটা কোনো ভাবেই কল্পনা করা যায় না। তিনি বলেন, এমন ব্যস্ত একটা সড়কে এ ধরনের কাজ করার সময় যান চলাচল বন্ধ রাখা উচিত ছিল। গার্ডারের মতো এমন একটা জিনিস ঝুলিয়ে রেখেছিল কোনো ধরনের নিরাপত্তা ছাড়াই। দুইটা টাকা বাঁচানোর জন্য তারা এমন একটা কাজ করল। কাজ করতেছে ঠিক আছে, কিন্তু নিরাপত্তাটা যদি নিশ্চিত করতো, তাহলে আমার এতো বড় ক্ষতি হতো না। তিনি আরও বলেন, আমার শ্বশুর আমার বাবার মতো। তিনি আমাকে মা বলে ডাকতেন। আমাকে নিয়ে তার কতো স্বপ্ন ছিল, আজকে সব শেষ হয়ে গেল। তিনি শখ করে ছেলের জন্য বউ নিয়ে এসেছিলেন। বিয়ের সময় তিনি নিজেই গাড়ি চালিয়ে আমাকে নিয়ে আসেন, আবার নিজেই দিয়ে আসতে যাচ্ছিলেন।এরমধ্যে এমন একটা ঘটনা ঘটলো, আমার শ্বশুর চলে গেলেন, মা চলে গেলেন। আমার সব শেষ হয়ে গেছে। রিয়ার স্বামী হৃদয় বলেন, বউভাতের অনুষ্ঠান ছিল আমাদের কাওলার বাসায়, সেখানে শ্বশুরবাড়ির লোকজন আসেন। বউভাতের অনুষ্ঠান শেষ হতে তিনটা বেজে যায়। তারা চাইছিলেণ, আমি যেন তাদের সঙ্গে শ্বশুরবাড়ি যাই। শ্বশুরবাড়ি সাভারের আশুলিয়া খেজুরবাগানে। কিন্তু বাবা বললেন তুমি যেহেতু শ্বশুরবাড়ি যাবা আমি তোমাকে গাড়িতে করে দিয়ে আসি। তার কথামতো আমি গাড়ির সামনে বসি। আমার শাশুড়ি-খালা শাশুড়ি, ও স্বামী পেছনের সিটে বসেন। বিমানবন্দর ক্রস করার পরে দেখি প্রজেক্টের গার্ডার ঝুলে ছিল রাস্তার উপরে। ওইটার নিচ দিয়ে সব গাড়ি যাচ্ছিল। অন্য গাড়ি যেভাবে যাচ্ছিল আমাদেরটাও সেভাবে যাচ্ছিল। আমরা যখন ক্রস করছিলাম, তখন গার্ডার গাড়ির ডানসাইডে আছড়ে পড়ে। ডানসাইডে আমার বাবা ড্রাইভ করছিলেন, আমার শাশুড়ি, খালা শাশুড়ি ছিলেন, আর দুটি বাচ্চা ছিল। সঙ্গে সঙ্গে তারা মারা যায়। আমরা গাড়িতে আটকে পড়ি। স্থানীয়রা গাড়ির গ্লাস ভেঙে আমাদের গাড়ি থেকে বের করে। পরে ফায়ার সার্ভিস গাড়ি কেটে ৫ জনের মরদেহ উদ্ধার করে। সোমবার (১৫ আগস্ট) বিকেলে উত্তরা ৩ নম্বর সেক্টরের প্যারাডাইস টাওয়ারের সামনে গার্ডার চাপায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। গাড়িটিতে মোট ৭ যাত্রী ছিলেন। এরমধ্যে দুই শিশু, দুই নারী ও একজন পুরুষ মারা গেছেন। নিহতরা হলেন- রুবেল (৫০), ঝরণা (২৮), ফাহিমা (৩৭), জান্নাত (৬) ও জাকারিয়া (২)। তাদের মরদেহ রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। গাড়িতে থাকা হৃদয় (২৬) ও রিয়া মনি (২১) নামে নবদম্পতি ভাগ্যক্রমে বেঁচে যান।

দেশবাসীকে পবিত্র ঈদুল আয্হার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আব্দুল মালেক
                                  

স্টাফ রিপোর্টারঃ

নারায়নগঞ্জের কুতুবপুরের কৃতি সন্তান, সমাজ সেবক এবং জনপ্রিয় যুবলীগ নেতা দেশবাসীকে পবিত্র ঈদুল আয্হার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। আব্দুল মালেক ঢাকা দক্ষিণের কদমতলী, শ্যামপুর, ফতুল্লা সহ বিশাল এলাকায় সামাজিক এবং দলীয় কর্মকান্ড নিষ্ঠার সাথে পালন অব্যহত রেখেছেন। জনগণের দুঃসময়ে কাছে পাওয়া এই বঙ্গবন্ধুর সৈনিক করোনা ভাইরাসেরর এই মহামারীর সময়ও এককভাবে নিজ তহবিল থেকে গরীব অসহায়দের মাঝে দান করে চলেছেন।
সুযোগ্য নেতৃত্বে বিশ্বে উন্নয়নের রোলমডেল হিসেবে অনুকরণীয় বাংলাদেশের উন্নয়নের রুপকার, মানবতার জননী, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতিও আব্দুল মালেক ও তার সমর্থকরা দোওয়া ও আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
উল্লেখ্য সেবার ব্রত নিয়ে তৃণমূল পর্যায়ে কাজ করা নিবেদিত প্রাণ কর্মী আব্দুল মালেক নিজ এলাকায় অত্যন্ত জনপ্রিয় যুবলীগ নেতা। তিনি দীর্ঘ সময় ধরে নিজের মেধা, দক্ষতা, কর্ম প্রচেষ্টা নিয়ে জনগণের সেবা করে যাচ্ছেন। আব্দুল মালেক জানান, অপরের কল্যাণ করতে আমি নিজের জীবন উৎসর্গ করতে রাজী আছি। এজন্যই পরোপকারী ব্যাক্তি হিসেবে তিনি এলাকায় সব শ্রেণী, পেশার মানুষের কাছে প্রাণ-প্রিয় ব্যাক্তিত্ব। দলীয় অঙ্গনেও আব্দুল মালেক সমধীক জনপ্রিয় বলে প্রমাণ রয়েছে। যে কোনো মিছিল মিটিং সভা সমাবেশে তার নেতৃত্বে ঝাঁকে ঝাঁকে লোকজন জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু শ্লোগানে বের হয়। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের দুঃসময় থেকে এখন পর্যন্ত ২০ বছরে বহু হামলা, মামলা ও কারাবরণ করেছেন তিনি। তার মতে, আমাদের প্রধাণমন্ত্রী জননেত্রী হাসিনাও দেশ ও জনগণের জন্য বারবার নির্যাতিত হয়েছেন। জেলে গিয়েছেন এমনকি তাকে হত্যা করার জন্য সরাসরি বহুবার চেষ্টা চালানো হয়েছে। কিন্তু তিনি হিংসাপরায়ণ হয়ে প্রতিশোধ মূলক কোন কাজ করেন নি। তিনি বলেন, তাই আমিও তাঁর আদর্শ, নেতৃত্বকে অনুসরণ করে এলাকার জনগণের উন্নয়নে আতœনিয়োগ করেছি এবং যতদিন বাচবো এভাবে কাজ করে যাবো।

 

জবির দরিদ্র শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহায়তা প্রদান করবে জবি নীলদলের একাংশ
                                  

জবি প্রতিনিধি, ইমরান হুসাইন।

করোনার সংক্রমনে বিশ্বে চলমান সংকটময় পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে ও লকডাউন চলছে৷ এই পরিস্থিতিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত দরিদ্র শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহায়তা দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় নীল দলের একাংশ।

বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগের চেয়ারম্যানদের কাছে দরিদ্র শিক্ষার্থীদের তালিকা ছেয়ে একটি চিঠি প্রেরণ করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় নীলদলের একাংশের সাধারণ সম্পাদক ড. সিদ্ধার্থ ভৌমিক।

চিঠিতে বলা হয়, আজ বিশ্বের সকল দেশের মতো আমাদের দেশও করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে মুক্ত নয়। জরুরী প্রয়োজনে দেশে লক-ডাউন চলছে। ফলশ্রুতিতে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক দরিদ্র শিক্ষার্থী ও তাদের পরিবার অসহায় অবস্থায় দিন যাপন করছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আমরা (জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় নীলদল) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিকট থেকে প্রাপ্ত কিছু অর্থ দরিদ্র শিক্ষার্থীর মধ্যে বিতরণ করতে চাই।

এছাড়াও চিঠিতে সকল বিভাগের চেয়ারম্যানদের বিশ্ববিদ্যালয়ের দরিদ্র শিক্ষার্থীদের সহায়তা করার জন্য প্রত্যেক বিভাগ থেকে ৩ জন অসহায় শিক্ষার্থীদের তথ্য (শিক্ষার্থীর নাম, বিভাগ, সেশন, আইডি, মোবাইল নম্বর) আগামী ১০ এপ্রিলের মধ্যে জানাতে বলা হয়।

এ বিষয়ে জবি নীলদল একাংশের সাধারণ সম্পাদক ড. সিদ্ধার্থ ভৌমিক বলেন, আমি সকল বিভাগের চেয়ারম্যান দের বিজ্ঞপ্তিটা মেইল করেছি, তাদের পাঠানো তালিকা অনুযায়ী শিক্ষার্থীদেরকে আমরা এক হাজার টাকা করে দিব। এবং আশা করি এই সংকট কালীন সময়ে সকল শিক্ষকবৃন্দ মিলে শিক্ষার্থীদের পাশে থাকবেন।

ভারী বর্ষণে রোহিঙ্গা শিবিরে ভূমিধস, শিশু নিহতসহ আহত ৫ শতাধিক
                                  

ডিটিভি বাংলা নিউজঃ
দেশের দক্ষিণাঞ্চলে গত চারদিনের টানা বৃষ্টিতে কক্সবাজার জেলার টেকনাফের রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে ভূমিধসে এক শিশুর মৃত্যুসহ আরো অন্তত পাঁচ শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। সোমবার সকালে উখিয়ার কুতুপালং ডি-রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ৮ নম্বর পাহাড়ে এ ঘটনা ঘটে।

গত শনিবার থেকে উখিয়ায় ভারী বৃষ্টিপাত শুরু চলছে। সেই সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়াও বইছে। শরণার্থীরা যেসব বাড়ি-ঘরে থাকেন, সেরকম অন্তত ৬০০ ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে ভূমিধসে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, অনিয়ন্ত্রিত পাহাড় কাটার কারণে পরিস্থিতি বিরূপ আকার ধারণ করেছে। টেকনাফের কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের জি ব্লক, জি-সেভেন ব্লক, বালুখালী ক্যাম্প, টেংখালি এসব এলাকায় ভুমিধস ঘটেছে।
বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপের কারণে গত কয়েকদিন ধরে ঝোড়ো হাওয়া আর একটানা প্রচণ্ড বৃষ্টি হচ্ছে দক্ষিণ-পূর্বের জেলা কক্সবাজারে। এই জেলার টেকনাফে বসবাস করছেন সাড়ে সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থী। কুতুপালং ক্যাম্পে থাকা রোহিঙ্গা শরণার্থীরা জানান, যারা পাহাড়ের উপরে বা নিচে ঘর বেঁধেছিলেন তারা জখম হয়েছেন। যারা পাহাড়ের নিচে ঘর বানিয়েছেন তারা এখন বন্যার কবলে পড়েছেন।
৭০ কিলোমিটার গতির বাতাসের সঙ্গে ভারী বর্ষণের কারণে পাহাড় ধসের কবলে পড়েছেন অন্তত ২ হাজার ৫শ’ মানুষ। এদের পাশাপাশি আরো প্রায় ১১ হাজার ব্যক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। গত শনিবার থেকে কক্সবাজার অঞ্চলে ৪শ’ মিলিমিটারেরও বেশি বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। টানা এ বর্ষণের কবলেই দিনযাপন করছেন রোহিঙ্গা শিবিরগুলোর ৯ লাখ শরণার্থীর সবাই।টেকনাফের শরণার্থীদের জন্য যে ক্যাম্পগুলো তৈরি করা হয়েছে সেগুলো অস্থায়ী ত্রিপলের ছাউনি এবং বেড়া দিয়ে নির্মিত। রেড ক্রিসেন্ট বলছে এখন সেখানে দুই লক্ষের মত মানুষ ভূমি ধসের ঝুঁকিতে রয়েছে। বাংলাদেশের সরকার এর আগে বলেছিল রোহিঙ্গাদের জন্য নোয়াখালীর ভাসানচরে একটি প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ করছে তারা।বাংলাদেশ নৌবাহিনীর তত্ত্বাবধানে ভাসানচরে সুনির্দিষ্ট মডেলে ঘরবাড়ি এবং সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণ শুরু হয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ে এক লাখ রোহিঙ্গা ভাসানচরে নেয়ার কথা জানানো হলেও ঠিক কবে নাগাদ সেটি শুরু হবে তা এখনো স্পষ্ট নয়।

সিরাজগঞ্জে বাস ও কাভার্ড ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৪
                                  

ডিটিভি বাংলা নিউজঃ
সিরাজগঞ্জের সয়দাবাদ এলাকায় যাত্রীবাহী বাস ও কাভার্ড ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে চারজন নিহত হয়েছেন। আহত ১৫ জনের বেশি। দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাত সোয়া দুইটার দিকে বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম সংযোগ সড়কে এ ঘটনা ঘটে।
বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহীদ আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে তিনজন পুরুষ ও একজন নারী। হতাহত ব্যক্তিদের নাম–পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে।
ওসি শহীদ আলম বলেন, সয়দাবাদ এলাকায় ঢাকা থেকে কুড়িগ্রামগামী শ্যামলী পরিবহনের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি কাভার্ড ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলে চারজন মারা গেছেন।
শহীদ আলম বলেন, তাঁদের মধ্যে কাভার্ড ভ্যানের চালক ও তাঁর সহকারী রয়েছেন। বাসের যাত্রীদের মধ্যে মারা গেছেন দুজন। আর দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। বাসের ১৫ জনের মতো যাত্রী আহত হয়েছেন। আহত ব্যক্তিদের দ্রুত উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জের ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

১৩ ও ১৪ জুনের টিকিটের জন্য হন্যে দূরপাল্লার যাত্রীরা
                                  

ডিটিভি বাংলা নিউজঃ
ঈদ উপলক্ষে আজ বুধবার থেকে দূরপাল্লার বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। বাস কর্তৃপক্ষ ও টিকিটপ্রত্যাশীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ঈদের আগে মূলত ১৩ ও ১৪ জুন—এই দুই দিনের টিকিটের চাহিদা সবচেয়ে বেশি। অন্যান্য দিনের বাসের টিকিট বিক্রি কম।
আজ বুধবার সকাল ছয়টা থেকে রাজধানীর বিভিন্ন বাস কাউন্টারে অগ্রিম টিকিট বিক্রি হয়েছে। ভোরের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে টিকিটপ্রত্যাশীরা বাসের কাউন্টারগুলোর সামনে ভিড় করতে শুরু করেছেন।
কল্যাণপুর বাসস্ট্যান্ডে কথা হয় নীলফামারীর বাসিন্দা আফতাব উদ্দিনের সঙ্গে। একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন তিনি। তিনি বলেন, ঈদের আগে ১৪ জুন তাঁর শেষ অফিস। তাই ওই দিন তিনি বিকেলে বাসে উঠবেন। পরিবারকে আগেই পাঠিয়ে দেবেন তিনি।
বাংলাদেশ বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও শ্যামলী পরিবহনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রমেশ চন্দ্র ঘোষ প্রথম আলোকে বলেন, ‘বেশি মানুষ ১৪ জুনের টিকিট খুঁজছেন। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে, ওই দিন ঈদের আগে শেষ অফিস। আমাদের কাউন্টারেও এসে অনেকে ওই দিনের টিকিট না পেয়ে চলে গেছেন। আমরাও ওই দিনের টিকিট দিতে হিমশিম খাচ্ছি।’
তবে কেউ কেউ ঈদের আগে এক দিন ছুটি নিয়ে ১৩ জুন ঢাকা ছেড়ে যাবেন। এমনই একজন গাইবান্ধার পলাশবাড়ীর মো. মেরাজ হোসেন। সরকারি এই কর্মকর্তা বলেন, ‘কয়েক বছর ধরে দেখছি, ঈদের আগে মহাসড়কে অনেক যানজট হয়। এতে আমাদের বাড়ি পৌঁছাতে ২৫ থেকে ৩০ ঘণ্টা লেগে যায়। পরিবারকে কিছুটা সময় বাড়তি দিতে এক দিন আগেই ঢাকা ছাড়ছি। ঈদের পরপরই আবার ঢাকা চলে আসতে হবে।’
ঈদের আগে ১৪ জুনের টিকিটের পরপরই ১৩ জুনের টিকিটের চাহিদা বেশি বলে জানালেন এস আর ট্রাভেলসের সহকারী মহাব্যবস্থাপক প্লাবন রহমান। তাঁর প্রতিষ্ঠানের সব বাস উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় চলে। প্লাবন বলেন, বেশি লোক ১৪ জুনের টিকিট খুঁজছেন। তবে ওই দিনের টিকিট না পেয়ে ১৩ জুনের টিকিট চাইছেন। তবে আগাম টিকিট দেওয়ার প্রথম দিনেই ১৩ ও ১৪ জুনের টিকিট শেষ হয়ে গেছে বলে জানান তিনি। ওই দুই দিন বাদে অন্য দিনগুলোর টিকিটের চাহিদা তেমন নেই বলে জানান প্লাবন।
তবে চাকরিজীবীরা ঈদের ঠিক আগমুহূর্তে ঢাকা ছাড়ার প্রস্তুতি নিলেও কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা কিছুদিন আগেই ঢাকা ছেড়ে যাচ্ছেন।
সকাল সাতটায় গাবতলী এলাকায় হানিফ কাউন্টারে গিয়ে দেখা গেছে, টিকিটপ্রত্যাশীদের দীর্ঘ সারি। সেখানে বাসের অগ্রিম টিকিট কাটতে এসেছিলেন ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী মিলন মাহমুদ। তিনি জানান, আগামী ১১ জুন ঢাকা ছেড়ে যাবেন। ঈদের আগে আগে যানজট ও ভোগান্তি বেড়ে যাওয়ার অভিজ্ঞতা থেকে তিনি এবার আগেই ঢাকা ছাড়ছেন।
হানিফ পরিবহনের মহাব্যবস্থাপক মো. মোশারফ হোসেন আজ সকাল আটটার দিকে বলেন, সকাল সোয়া ছয়টা থেকে তাঁরা অগ্রিম টিকিট দেওয়া শুরু করেছেন। ১৩ ও ১৪ জুনের টিকিটের চাহিদা বেশি। বিভিন্ন গন্তব্যের এই দুই দিনের টিকিট সকাল ১০টার মধ্যে প্রায় শেষ হয়ে যাবে বলে তাঁর ধারণা। ছুটি ভাগ করে দিলে টিকিটের চাপ কম হতো বলে মনে করেন মোশারফ হোসেন।

ঈদে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু ১ জুন
                                  

ডিটিভি বাংলা নিউজঃ
ঈদুল ফিতর উপলক্ষে এবার ট্রেনের অগ্রিম টিকেট বিক্রি শুরু হবে ১ জুন থেকে। চলবে ৬ জুন পর্যন্ত। আর ফিরতি টিকিট বিক্রি শুরু হবে ১০ জুন, চলবে ১৫ জুন পর্যন্ত।
আজ বৃহস্পতিবার রেলভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক বলেন, ১৬ জুন ঈদের সম্ভাব্য দিন ধরে ১ জুন থেকে টিকেট বিক্রির সূচি ঠিক করা হয়েছে।
সে হিসেবে ঈদে বাড়ি গমনেচ্ছু যাত্রীদের ১ জুন দেয়া হবে ১০ জুনের (রবিবার) টিকিট। ২ জুন দেয়া হবে ১১ জুনের (সোমবার), ৩ জুন দেয়া হবে ১২ জুনের (মঙ্গলবার), ৪ জুন দেয়া হবে ১৩ জুনের (বুধবার), ৫ জুন দেয়া হবে ১৪ জুনের (বৃহস্পতিবার) এবং ৬ জুন দেয়া হবে ১৫ জুনের (শুক্রবার) টিকিট।
আর ঈদ উদযাপন শেষে কর্মস্থলে গমনেচ্ছু যাত্রীদের ১০ জুন দেয়া হবে ১৯ জুনের, ১১ জুনে দেয়া হবে ২০ জুনের, ১২ জুনে ২১ জুনের, ১৩ জুনে ২২ জুনের, ১৪ জুনে ২৩ জুনের এবং ১৫ জুনে দেওয়া হবে ২৪ জুনের ফিরতি টিকিট।
ঢাকার কমলাপুরের পাশাপাশি বিমানবন্দর, চট্টগ্রাম সিলেট, খুলনা, যশোর ঈশ্বরদী, রাজশাহী, দিনাজপুর, লালমনিরহাটসহ বড় স্টেশনগুলো থেকেও অগ্রিম টিকেট বিক্রি করা হবে বলে জানিয়েছেন মুজিবুল হক।

পশ্চিমবঙ্গকে আরেক বাংলাদেশ বানাচ্ছেন মমতা !
                                  

ভারতের পশ্চিমবাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পশ্চিমবঙ্গকে আরেকটি বাংলাদেশ বানাচ্ছেন বলে অভিযোগ তুলেছে দেশটির বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। রাম নবমীর র‌্যালিকে কেন্দ্র করে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন স্থানে সহিংস সংঘাত হয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সতর্ক করে ওই কথা বলেছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। পাশাপাশি বিজেপি নেতারা মমতার বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে বলেছেন, তিনি রাষ্ট্রীয় মদতে হিন্দুদের ওপর সন্ত্রাস লেলিয়ে দিয়েছেন। ডিএনএ।

মমতাকে টার্গেট করে বক্তব্য রাখছেন ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার থেকে শুরু করে রাজ্য বিজেপি নেতারা। এর মধ্যে রয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জভেদকার। তারা বলছেন, যখন পশ্চিমবঙ্গ জ্বলছে, তখন দিল্লিতে বলে রাজনীতির তৃতীয় ফ্রন্ট করছেন মমতা। প্রকাশ জাভেদকার বলেন, পশ্চিমবঙ্গ জ্বলছে। আর অন্যদিকে এ রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদে থাকা মুখ্যমন্ত্রী দিল্লিতে বসে রাজনীতি করছেন। মমতা তো নিরোর মতোই। রোম যখন জ্বলছিল নিরো তখন বাঁশী বাজাচ্ছিল।

মমতাকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, যদি রাজনীতি করতে চান। তাহলে করেন। এক্ষেত্রে প্রথমেই পশ্চিমবঙ্গের আগুন নিভান। নিরপরাধ রামভক্তদের ওপর এই সহিংসতা শুরু করেছেন তার নিজের লোকেরাই। আইন শৃংখলা ভেঙে পড়েছে পশ্চিমবঙ্গে। ওদিবে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের আন্তর্জাতিক বিষয়ক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুরেন্দ্র জৈন বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গের হিন্দুরা প্রমাণ করে দিয়েছেন যে, তারা হিন্দুত্ববিরোধিতা সহ্য করবেন না। ধর্মনিরপেক্ষতার নামে জাতীয়তাবেিরাধী কর্মকান্ড সহ্য করবেন না।


   Page 1 of 7
     পাঁচ মিশালী
ভুল চিকিৎসার নামে চিকিৎসকদের ওপর আক্রমণ মানা যায় না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
তারুণ্য ধরে রাখবে যেসব খাবার
.............................................................................................
আধা ঘণ্টায় ৭০ কোটি টাকার লেনদেন, সূচক মিশ্র
.............................................................................................
ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে ব্রাজিলে নিহত ১১, নিখোঁজ ২০
.............................................................................................
৩২ বছর পর কারামুক্ত ‘জল্লাদ’ শাহজাহান
.............................................................................................
২৩ মণের রাজাবাবু, দাম ১০ লাখ
.............................................................................................
নগরকান্দা কামাল হোসেন রাজিবের দোয়া ও ইফতার আয়োজন
.............................................................................................
৭ অতিরিক্ত আইজিপিকে বদলি
.............................................................................................
‘টাকা বাঁচাতে গিয়ে আমার সব কেড়ে নিয়েছে’
.............................................................................................
দেশবাসীকে পবিত্র ঈদুল আয্হার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আব্দুল মালেক
.............................................................................................
জবির দরিদ্র শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহায়তা প্রদান করবে জবি নীলদলের একাংশ
.............................................................................................
ভারী বর্ষণে রোহিঙ্গা শিবিরে ভূমিধস, শিশু নিহতসহ আহত ৫ শতাধিক
.............................................................................................
সিরাজগঞ্জে বাস ও কাভার্ড ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৪
.............................................................................................
১৩ ও ১৪ জুনের টিকিটের জন্য হন্যে দূরপাল্লার যাত্রীরা
.............................................................................................
ঈদে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু ১ জুন
.............................................................................................
পশ্চিমবঙ্গকে আরেক বাংলাদেশ বানাচ্ছেন মমতা !
.............................................................................................
কাঁচা ও পাকা পেঁপে খুব উপকারি
.............................................................................................
কেটে ফেলা চুলে কোটি টাকার ব্যবসা
.............................................................................................
অল্পতে চোখে পানি চলে আসা বিশেষ গুণের লক্ষণ
.............................................................................................
ইরানে পুলিশের জন্যে টয়োটা ল্যান্ড ক্রুজার
.............................................................................................
দিনের শুরুতে কী করবেন?
.............................................................................................
বৃষের দুশ্চিন্তা, ধনুর কর্মব্যস্ততা
.............................................................................................
জুতা পরে হাঁটলেই চার্জ হবে মোবাইলে!
.............................................................................................
ফ্রিজে রাখা শুক্রাণু থেকে যমজ শিশু!
.............................................................................................
ভালোবেসেই মুক্ত করো সংকোচের দ্বার
.............................................................................................
মহাশূন্যে ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট!
.............................................................................................
ভারতে হিন্দু নারীর মুসলিম স্বামীদের তালিকা প্রকাশ করে হত্যার হুমকি
.............................................................................................
লসএ্যাঞ্জেলে ‘গিল্ড এ্যাওয়ার্ডে’ কালোর বদলে আলোর ঝলক
.............................................................................................
ভ্রুণ সংরক্ষণের ২৫ বছর পর ‘এমা’র জন্ম
.............................................................................................
ছয় বছরে ইউটিউব স্টার, খেলনা দেখিয়েই কোটিপতি
.............................................................................................
‘জিন্স পরা মেয়েদের কেউ বিয়ে করবে না’
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রের আকাশে বিস্ময়কর উল্কাপাত
.............................................................................................
শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা করতেই লিঙ্গ কামড়ে খেল বুলডগ!‌
.............................................................................................
হিন্দুবাদী সংগঠনগুলো এখনো চায় মসজিদ নয় মন্দির হোক: গৌতম লাহরি
.............................................................................................
ভক্তদের অবাক করে বিশ্ব নবিকে নিয়ে গান বাঁধলেন পপ তারকা আমাল হিজাজী
.............................................................................................
সিরিয়াল দেখে গায়ে আগুন দিয়ে শিশুর মৃত্যু
.............................................................................................
পুরুষের ব্যক্তিগত সমস্যা
.............................................................................................
হিটলারের বিরল ছবি ঠাঁই পেল ডাচ জাদুঘরে!
.............................................................................................
৩৭ দেশে অন অ্যারাইভাল সুবিধা পাচ্ছে বাংলাদেশ
.............................................................................................
মেয়েকে বানাতে চান কুস্তিগীর, অর্থোপার্জনে রিকশা চালাচ্ছেন অসমের এই মহিলা
.............................................................................................
আইএস কাণ্ড : ‘ধর্ষণের আগে প্রার্থনা করানো হতো’
.............................................................................................
বর্তমান রাশিয়াকে গড়ে তুলেছে যারা
.............................................................................................
পৃথিবীর অর্ধেক সম্পদের মালিক মাত্র ১ ভাগ মানুষ
.............................................................................................
দুবাইয়ে গালি দেয়ার শাস্তি ২ হাজার দিরহাম
.............................................................................................
ভিক্ষুক ধরিয়ে দিলে পুরস্কার!
.............................................................................................
কাজী শুভর ‘সুন্দরী’ টয়া
.............................................................................................
অবশেষে পদত্যাগ করলেন বৃটিশমন্ত্রী প্রীতি প্যাটেল
.............................................................................................
অপচয় দারিদ্র্য আনে, আর দারিদ্র্য কুফরির দিকে ধাবিত করে
.............................................................................................
প্যারিসের যে রেস্তোরাঁয় পোশাক পরিধান নিষিদ্ধ!
.............................................................................................
এক ঘুমে ১১ দিন!
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
চেয়ারম্যান: এস.এইচ. শিবলী ।
সম্পাদক, প্রকাশক: জাকির এইচ. তালুকদার ।
হেড অফিস: ২ আরকে মিশন রোড, ঢাকা ১২০৩ ।
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বাড়ি নং ২, রোড নং ৩, সাদেক হোসেন খোকা রোড, মতিঝিল বা/এ, ঢাকা ১০০০ ।
ফোন: 01558011275, 02-৪৭১২২৮২৯, ই-মেইল: dtvbanglahr@gmail.com
   All Right Reserved By www.dtvbangla.com Developed By: Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop    
Dynamic SOlution IT Dynamic POS | Super Shop | Dealer Ship | Show Room Software | Trading Software | Inventory Management Software Computer | Mobile | Electronics Item Software Accounts,HR & Payroll Software Hospital | Clinic Management Software Dynamic Scale BD Digital Truck Scale | Platform Scale | Weighing Bridge Scale Digital Load Cell Digital Indicator Digital Score Board Junction Box | Chequer Plate | Girder Digital Scale | Digital Floor Scale