| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
   * সুযোগ আছে বিএসসি অ্যারোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে   * উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গী ....ড. এফ এইচ আনসারী   * সবার মতামত নিয়েই গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষায় ব্যবস্থা :প্রধানমন্ত্রী   * ডুবোচরে আটকে আছে ১৫টি মালবাহী জাহাজ   * নিম্নকক্ষে নিয়ন্ত্রণ হারালেন ট্রাম্প   * শেখ হাসিনার অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব ---ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা   * আমার সংসার টিকে আছে এইতো বেশি   * গোপালগঞ্জে মোবাইলে প্রেমের ফাঁদ চক্রের ৫ সদস্য গ্রেফতার   * সাটুরিয়ায় দলিল হাতে ঘুরছে ভূমিহীন ২০ পরিবার   * এ্যরোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পেশায় আসতে চাইলে  

   আন্তর্জাতিক -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ডুবোচরে আটকে আছে ১৫টি মালবাহী জাহাজ

অনলাইন সংবাদদাতা: শুষ্ক মৌসুমের শুরুতেই পাবনার বেড়া উপজেলার বাঘাবাড়ি নৌবন্দরের পেঁচাকোলা ও মালদহ পাড়ার মাঝামাঝি যমুনা নদীতে জেগে উঠছে একাধিক ডুবোচর। এসব ডুবোচরে বাঘাবাড়ীগামী ও বাঘাবাড়ী থেকে ছেড়ে আসা ১৫টি জাহাজ ডুবোচরে আটকে আছে। বাঘাবাড়ি বন্দর সূত্রে জানা যায়, দৌলতদিয়া-বাঘাবাড়ী নৌপথ উত্তরাঞ্চলের ১৬ জেলায় জ্বালানী তেল, রাসায়নিক সার ও অন্যান্য পণ্য পরিবহণের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ পথ হিসেবে ব্যবহূত হয়।

গত মঙ্গলবার ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, পেঁচাকোলা ও মালদহপাড়ার বিভিন্ন স্থানে ১৫টি জাহাজ আটকা পড়ে আছে। প্রতিদিন আটকে পড়া জাহাজের সংখ্যা বাড়ছে। এসব জাহাজের মধ্যে এম ভি ফয়সাল-৮, ৮৫০ টন গম, এম ভি ইব্রাহিম খলিল ৬১০ টন সার, এম ভি ফয়সালে আরো দুইটি জাহাজ, এম ভি সুমাইয়া, এম ভি সুলতানা সানজার সহ কয়েকটি জাহাজ আটকা পরে আছে।
এম ভি ফয়সাল-৮ এর মাষ্টার জাহাঙ্গীর জানান, তারা চট্রগাম থেকে গম নিয়ে বাঘাবাড়ি বন্দরে যাচ্ছিলেন। দই দিন আগে তারা এই স্থানে ডুবোচরে আটকে যান। এখন লাইটার জাহাজে এসব পণ্য ধীরে ধীরে খালাস করে তারপর জাহাজ সরাতে হবে। এ নৌপথে জ্বালানী তেলবাহী ট্যাংকার, রাসায়নিক সার ও বিভিন্ন পণ্যবাহী কার্গো জাহাজ চলাচল করে। বাঘাবাড়ি বন্দর থেকে উত্তরাঞ্চলে চাহিদার ৯০ ভাগ জ্বালানী তেল ও রাসায়নিক সার সরবরাহ করা হয়। আবার বাঘাবাড়ি থেকে ঢাকাসহ বিভিন্ন অঞ্চলে চাল, গম সহ অন্যান্য পণ্যসামগ্রী পাঠানো হয়।
বিসিআইসি’র বাঘাবাড়ী ট্রানজিট বাফার গুদাম সূত্রে জানা গেছে, যমুনা নদীর নাব্যতা সংকটে বাফার গুদামগুলোতে আপদকালীন সারের মজুদ গড়ে তোলার কাজ চরমভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে। বিআইডব্লিউটিএ আরিচা অফিসের একটি সূত্রে জানা যায়, রাসায়নিক সার ও পণ্যবাহী জাহাজ চলাচলের জন্য ১০ থেকে ১১ ফুট পানির গভীরতা প্রয়োজন হয়। কিন্তু বর্তমানে এ নৌপথে কোথাও কোথাও ৮ থেকে ৯ ফুট গভীরতা রয়েছে। আগামী ২-৩ সপ্তাহের মধ্যে পানির স্তর কমে ৭-৮ ফুট পর্যন্ত নেমে আসতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিআইডব্লিউটিএ কর্মকর্তারা।
বাঘাবাড়ি বন্দর থেকে দৌলতদিয়া পর্যন্ত মোহনগঞ্জ, নাকালিয়া, হরিরামপুর, পেঁচাকোলা, নগরবাড়ীসহ প্রায় ডজনখানেক স্থানে জেগে উঠছে ডুবোচর। ফলে নাব্যতা সংকট ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইতোমধ্যেই মোহনগঞ্জ, হরিরামপুর ও নাকালিয়া পয়েন্টে ডুবোচরে জাহাজ প্রায়’ই আটকা পড়ছে। বাঘাবাড়ী নৌবন্দর কর্তৃপক্ষ বিআইডব্লিউটিএ এর ড্রেজিং বিভাগকে চিঠি দিয়েছে বলে জানা গেছে।
এম.ভি বিজয় চিলিং মাস্টার হেলাল উদ্দিন জানান, দৌলতদিয়া থেকে বাঘাবাড়ী নৌবন্দর পর্যন্ত ৪৫ কি.মি নৌপথের ১০টি পয়েন্টে পানির গভীরতা কমে দাঁড়িয়েছে ৭ থেকে ৯ ফুট। মোহনগঞ্জ পয়েন্টে কার্গো জাহাজ চলাচলের জন্য সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ডুবোচরে আটকে আছে ১৫টি মালবাহী জাহাজ
                                  

অনলাইন সংবাদদাতা: শুষ্ক মৌসুমের শুরুতেই পাবনার বেড়া উপজেলার বাঘাবাড়ি নৌবন্দরের পেঁচাকোলা ও মালদহ পাড়ার মাঝামাঝি যমুনা নদীতে জেগে উঠছে একাধিক ডুবোচর। এসব ডুবোচরে বাঘাবাড়ীগামী ও বাঘাবাড়ী থেকে ছেড়ে আসা ১৫টি জাহাজ ডুবোচরে আটকে আছে। বাঘাবাড়ি বন্দর সূত্রে জানা যায়, দৌলতদিয়া-বাঘাবাড়ী নৌপথ উত্তরাঞ্চলের ১৬ জেলায় জ্বালানী তেল, রাসায়নিক সার ও অন্যান্য পণ্য পরিবহণের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ পথ হিসেবে ব্যবহূত হয়।

গত মঙ্গলবার ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, পেঁচাকোলা ও মালদহপাড়ার বিভিন্ন স্থানে ১৫টি জাহাজ আটকা পড়ে আছে। প্রতিদিন আটকে পড়া জাহাজের সংখ্যা বাড়ছে। এসব জাহাজের মধ্যে এম ভি ফয়সাল-৮, ৮৫০ টন গম, এম ভি ইব্রাহিম খলিল ৬১০ টন সার, এম ভি ফয়সালে আরো দুইটি জাহাজ, এম ভি সুমাইয়া, এম ভি সুলতানা সানজার সহ কয়েকটি জাহাজ আটকা পরে আছে।
এম ভি ফয়সাল-৮ এর মাষ্টার জাহাঙ্গীর জানান, তারা চট্রগাম থেকে গম নিয়ে বাঘাবাড়ি বন্দরে যাচ্ছিলেন। দই দিন আগে তারা এই স্থানে ডুবোচরে আটকে যান। এখন লাইটার জাহাজে এসব পণ্য ধীরে ধীরে খালাস করে তারপর জাহাজ সরাতে হবে। এ নৌপথে জ্বালানী তেলবাহী ট্যাংকার, রাসায়নিক সার ও বিভিন্ন পণ্যবাহী কার্গো জাহাজ চলাচল করে। বাঘাবাড়ি বন্দর থেকে উত্তরাঞ্চলে চাহিদার ৯০ ভাগ জ্বালানী তেল ও রাসায়নিক সার সরবরাহ করা হয়। আবার বাঘাবাড়ি থেকে ঢাকাসহ বিভিন্ন অঞ্চলে চাল, গম সহ অন্যান্য পণ্যসামগ্রী পাঠানো হয়।
বিসিআইসি’র বাঘাবাড়ী ট্রানজিট বাফার গুদাম সূত্রে জানা গেছে, যমুনা নদীর নাব্যতা সংকটে বাফার গুদামগুলোতে আপদকালীন সারের মজুদ গড়ে তোলার কাজ চরমভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে। বিআইডব্লিউটিএ আরিচা অফিসের একটি সূত্রে জানা যায়, রাসায়নিক সার ও পণ্যবাহী জাহাজ চলাচলের জন্য ১০ থেকে ১১ ফুট পানির গভীরতা প্রয়োজন হয়। কিন্তু বর্তমানে এ নৌপথে কোথাও কোথাও ৮ থেকে ৯ ফুট গভীরতা রয়েছে। আগামী ২-৩ সপ্তাহের মধ্যে পানির স্তর কমে ৭-৮ ফুট পর্যন্ত নেমে আসতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিআইডব্লিউটিএ কর্মকর্তারা।
বাঘাবাড়ি বন্দর থেকে দৌলতদিয়া পর্যন্ত মোহনগঞ্জ, নাকালিয়া, হরিরামপুর, পেঁচাকোলা, নগরবাড়ীসহ প্রায় ডজনখানেক স্থানে জেগে উঠছে ডুবোচর। ফলে নাব্যতা সংকট ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইতোমধ্যেই মোহনগঞ্জ, হরিরামপুর ও নাকালিয়া পয়েন্টে ডুবোচরে জাহাজ প্রায়’ই আটকা পড়ছে। বাঘাবাড়ী নৌবন্দর কর্তৃপক্ষ বিআইডব্লিউটিএ এর ড্রেজিং বিভাগকে চিঠি দিয়েছে বলে জানা গেছে।
এম.ভি বিজয় চিলিং মাস্টার হেলাল উদ্দিন জানান, দৌলতদিয়া থেকে বাঘাবাড়ী নৌবন্দর পর্যন্ত ৪৫ কি.মি নৌপথের ১০টি পয়েন্টে পানির গভীরতা কমে দাঁড়িয়েছে ৭ থেকে ৯ ফুট। মোহনগঞ্জ পয়েন্টে কার্গো জাহাজ চলাচলের জন্য সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

নিম্নকক্ষে নিয়ন্ত্রণ হারালেন ট্রাম্প
                                  

অনলাইন ডেস্ক:

ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার দুই বছরের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের আইনসভা কংগ্রেসের নিম্নকক্ষে নিয়ন্ত্রণ হারায় ডেমোক্রেটরা। মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকে বুধবার সকাল পর্যন্ত মধ্যবর্তী নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।
এরপর গণনা শুরু হলে দেখা যায়, ট্রাম্পের দল রিপাবলিকানদের আইনসবার উচ্চক্ষ সিনেটে ইতোমধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিশ্চিত করতে সক্ষম হয়েছে। তবে নিম্নকক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে যাচ্ছে বিরোধী ডেমোক্রেটরা। এর আগে দুই কক্ষেই রিপাবলিকানরা সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিল।
এবার হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভের ৪৩৫টি আসনের সবক’টিতেই ভোট হয়েছে। এছাড়া সিনেটের ৩৫টি এবং ৩৬টি অঙ্গরাজ্যের ৩৯টি গভর্নর পদেও ভোট হয়েছে। সিনেটে ৫১-৪৯ ব্যবধানে এর আগে সংখ্যাগরিষ্ঠ ছিল রিপাবলিকানরা। এই নির্বাচনে ৩৫ সিনেট আসনের ২৬টিই ছিল ডেমোক্রেটদের দখলে। তাই তাদের জন্য বিষয়টি চ্যালেঞ্জিংই ছিল।
সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে ডেমোক্রেটরা সিনেটের নিয়ন্ত্রণ নিতে পারেনি। কারণ ইতোমধ্যে সিনেটে ৫১টি আসন রিপাবলিকানদের নিশ্চিত হয়েছে বলে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গণমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টের খবরে বলা হয়েছে। সেখানে ডেমোক্রেটদের আসন দাঁড়িয়েছে এ পর্যন্ত ৪৫টি। বাকি ৪টি আসনের ফলাফল এখনও পাওয়া যায়নি।
তবে আইনসভার নিম্নকক্ষে যে ট্রাম্পের দল নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে। ওয়াশিংটন পোস্টের খবর অনুযায়ী ৫৩৫ আসনের নিম্নকক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠ ২১৯ আসন ইতোমধ্যেই নিশ্চিত করেছে। যেখানে রিপাবলিকানদের অর্জন ১৯৩টি। বাকি ২৩ আসনের ফলাফল এখনো ঘোষণা হয়নি।
এটি হলে গত আট বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো প্রতিনিধি পরিষদে আধিপত্য পাবে ডেমোক্রেটরা। এতে ডেমোক্রেটরা হাউস কমিটির মাধ্যমে প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে নতুন তদন্ত শুরু করতে পারবে। এছাড়া রিপাবলিকান বিল আটকে দিতে এবং সম্ভবত প্রেসিডেন্টকে ইমপিচের প্রস্তাবও কংগ্রেসে উত্থাপন করতে পারবে।

‘পুতিন-ট্রাম্প যাই বলুক যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে রাশিয়ার হাত ছিল’
                                  

যুক্তরাষ্ট্রের এফবিআই পরিচালক ক্রিস্টোফার রে বুধবার বলেছেন, নির্বাচনে মস্কোর হস্তক্ষেপের বিষয়ে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার অভিমত হচ্ছে, রাশিয়া ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে অনধিকার চর্চা করেছে। এ সপ্তাহে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বিষয়টি ভ্লাদিমির পুতিন অস্বীকার করা সত্ত্বেও তিনি আবারো এমন মন্তব্য করলেন।

সোমবার হেলসিঙ্কিতে বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের ব্যাপারে ট্রাম্পের কাছে পুতিনের অস্বীকার করার ব্যাপারে জানতে চাইলে রে বলেন, ‘তিনি তার অবস্থান থেকে তার অভিমত ব্যক্ত করেছেন।

তবে তিনি যাই বলুক না কেন, এ ব্যাপারে ‘গোয়েন্দা সংস্থা তাদের মূল্যায়নে আগের অবস্থানেই রয়েছে। এক্ষেত্রে আমার অভিমতের কোন পরিবর্তন নেই। এ ব্যাপারে আমাদের মূল্যায়ন হচ্ছে রাশিয়া যুক্তরাষ্ট্রের গত নির্বাচনে নানাভাবে হস্তক্ষেপ করার চেষ্টা করে এবং এখনো তারা যুক্তরাষ্ট্রের ওপর প্রভাব খাটানোর বিভিন্ন নেতিবাচক কাজ অব্যাহত রেখেছে।

তিনি আরো বলেন, তাদের এসব কাজের লক্ষ্য হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রে বিভক্তি সৃষ্টি করে দেশটির ক্ষতি করা। সোমবার হেলসিঙ্কিতে বৈঠকের পর এক সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়া কোন হস্তক্ষেপ করেনি বলে পুতিন যে মন্তব্য করেন ট্রাম্প তা মেনে নেয়ায় ওয়াশিংটনে সমালোচনার ঝড় উঠে এবং মার্কিন গোয়েন্দা প্রধান এ ব্যাপারে ভিন্ন মতপোষণ করে বিবৃতি দেন।

তবে মঙ্গলবার ট্রাম্প তার আগের অবস্থান থেকে সরে এসে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের ব্যাপারে মার্কিন গোয়েন্দাদের দেয়া প্রতিবেদনকে সমর্থন জানান।

ভারতে বিমানবাহিনীর যুদ্ধবিমান বিধ্বস্ত, পাইলট নিহত
                                  

ডিটিভি বাংলা নিউজঃ
ভারতের গুজরাটে বিমানবাহিনীর জাগুয়ার যুদ্ধবিমান বিধ্বস্ত হয়ে পাইলট নিহত হয়েছেন। এনডিটিভি অনলাইনের খবরে জানানো হয়, আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে গুজরাটের জামনগর বিমান ঘাঁটি থেকে ছেড়ে যাওয়ার পর কাছেই একটি গ্রামে যুদ্ধবিমানটি বিধ্বস্ত হয়।
যুদ্ধবিমানটি চালাচ্ছিলেন এয়ার কমান্ডার সঞ্জয় চৌহান। প্রতিরক্ষা বিভাগের একজন মুখপাত্র জানান, নিয়মিত প্রশিক্ষণের অংশ হিসেবে যুদ্ধবিমানটি চালানো হচ্ছিল। আহমেদাবাদ থেকে ৩৪০ কিলোমিটার পশ্চিমে কুচ শহরের মুন্দ্রা গ্রামে যুদ্ধবিমানটি বিধ্বস্ত হয়। জাগুয়ার যুদ্ধবিমানটি দুই ইঞ্জিনের।
ঘটনা তদন্তে বিমানবাহিনীর সদর দপ্তর থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
কয়েক মাস আগে ভারতীয় বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টার আসামের মাজুলি দ্বীপে বিধ্বস্ত হয়। তখনো দুই পাইলটের মৃত্যু হয়।

চার ঘন্টায় ১৫ হাজার বজ্রপাত!
                                  

ডিটিভি বাংলা নিউজঃ
বিশ্বের জলবায়ুতে কি চরম বদল আসছে? বিশ্বব্যাপী একের পর অস্বাভাবিক প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঘটনা ঘটে চলেছে। সম্প্রতি মধ্যপ্রাচ্যের ওমানে ভয়াবহ সাইক্লোনে একদিনেই তিন বছরের সমান বৃষ্টিপাত হয়েছে। এবার ব্রিটেনের কয়েকটি অংশজুড়ে মাত্র চার ঘন্টায় ১৫ হাজার বজ্রপাতের ঘটনা ঘটেছে।
বজ্রঝড়ের পাশাপাশি ব্যাপক বৃষ্টিপাত হচ্ছে। ঘন ঘন বজ্রপাতে রাতের আকাশ বার বার আলোকিত হয়ে উঠছে। গভীর রাতে ওই অঞ্চলে চার ঘন্টায় প্রায় ১৫ হাজার বজ্রপাতের ঘটনা হয়েছে। উত্তর দিকে বয়ে চলা এই বজ্রঝড় রবিবার সারাদিন ধরে দক্ষিণ ইংল্যান্ড, মিডল্যান্ডস্ এবং ওয়েলস পর্যন্ত বয়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
ব্যাপক বৃষ্টিপাত ও বন্যার পূর্বাভাস জানিয়ে ব্রিটেনের আবহাওয়া দফতর একটি ‘হলুদ’ সতর্কতা জারি করেছে।
সোমবার ভোর ৬টা পর্যন্ত বৃষ্টির এই সতর্কতা ওয়েলস, দক্ষিণ ইংল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের কেন্দ্রীয় অংশের জন্য বজায় থাকবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর। সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দ্রুত ধেয়ে আসা বন্যায় অল্প সময়ের মধ্যেই বাড়িঘর ও ব্যবসা সংস্থা ডুবে যেতে পারে। বন্যার জলের গভীরতা বেশি হতে পারে জানিয়ে কিছু ভবন বজ্রপাতে, শিলায় অথবা তীব্র বাতাসে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বলেও সতর্ক করা হয়েছে।
শনিবার অপেক্ষাকৃত উষ্ণ একটি দিন যাওয়ার পর রাতে বজ্রঝড়ের পাশাপাশি ব্যাপক বৃষ্টিপাত শুরু হয়।

ঝুঁকিতে রয়েছে বিশ্বের অর্ধেকেরও বেশি শিশু!
                                  

ডিটিভি বাংলা নিউজঃ
বর্তমানে বিশ্বের ১২০ কোটি বা অর্ধেকেরও বেশি শিশু ঝুঁকিতে রয়েছে। ব্রিটেনভিত্তিক দাতব্য সংস্থা সেভ দ্যা চিলড্রেন এ কথা বলেছে। বুধবার সংস্থাটি এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। আগামী ১ জুন আন্তর্জাতিক শিশু দিবস। এই দিবস উপলক্ষে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে।
সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দারিদ্র্য, সংঘর্ষ ও মেয়েশিশুদের প্রতি বৈষম্যেই শিশুদের ঝুঁকিতে থাকার মূল কারণ। ১২০ কোটির বেশি শিশু এই তিন ধরনের হুমকির মুখে রয়েছে। এ ছাড়া ১৫ কোটি ৩০ লাখ শিশু একই সময় এসব হুমকির মুখোমুখি।
সেভ দ্যা চিলড্রেনের সূচক বলছে, ১০০ কোটি শিশু বসবাস করে দারিদ্র্যপীড়িত দেশগুলোতে। সংঘর্ষপ্রবণ দেশগুলোতে বসবাস করে ২৪ কোটি শিশু। আর ৫৭ কোটি ৫০ লাখ শিশু এমন সব দেশে বাস করে যেখানে নারীর প্রতি বৈষম্য সাধারণ ঘটনা।
শিশুদের পরিস্থিতি নিয়ে ১৭৫টি দেশে জরিপ পরিচালনা করে সেভ দ্যা চিলড্রেন। জরিপে দেখা গেছে, শিশুদের সবচেয়ে ভালো অবস্থা সিঙ্গাপুর ও স্লোভেনিয়ায়। দেশ দুটি যৌথভাবে প্রথম অবস্থানে রয়েছে। র‌্যাংকিংয়ের নিচে রয়েছে নাইজার, সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক।

ভেনেজুয়েলার ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করবে ইইউ
                                  
ডিটিভি বাংলা নিউজঃ ভেনেজুয়েলায় নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আহবান জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন(ইইউ)। এছাড়া দক্ষিণ আমেরিকান দেশটির বেশ কয়েকজন কর্মকর্তার ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার কথা চিন্তা করছে ইউরোপের অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক এই জোট সংগঠন। এ খবর দিয়েছে আল জাজিরা। খবরে বলা হয়, সম্প্রতি ভেনেজুয়েলায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন নিকোলাস মাদুরো। তবে নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। বেশিরভাগ বিরোধীদলই নির্বাচন বর্জন করেছে। অংশগ্রহণকারী বিরোধীদল অনিয়মের অভিযোগ তুলেছে। নির্বাচনী ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছে যুক্তরাষ্ট্রও। গতকাল সোমবার ব্রাসেলসে ইইউ’র পররাষ্ট্র মন্ত্রীরা এক নিয়মিত বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে দেয়া এক বিবৃতিতে ভেনেজুয়েলার নির্বাচন নিয়ে তারা বলেন, নির্বাচনী প্রক্রিয়া সর্বব্যাপী ও গণতান্ত্রিক নির্বাচনের জন্য প্রয়োজনীয় নিশ্চয়তা নিশ্চিত করতে না পাড়ায় এটি গ্রহণযোগ্য নয়। বিবৃতিতে আরো বলা হয়, প্রতিষ্ঠিত প্রক্রিয়া মেনে ইইউ, দ্রুত অতিরিক্ত ও প্রতিবর্তনযোগ্য নিষেধাত্মক পদক্ষেপ নেবে। এই পদক্ষেপগুলো ভেনেজুয়েলার জনগণের ক্ষতি করবেনা। ইইউ তাদের সঙ্কটাপন্ন অবস্থা উপশম করতে চায়। ধারণা করা হচ্ছে আগামী মাসের ২৫ তারিখ লুক্সেমবার্গে অনুষ্ঠেয় এক বৈঠকে নিষেধাজ্ঞাগুলো আনুষ্ঠানিকভাবে আরোপ করা হবে। শুক্রবার ইইউ কূটনৈতিকরা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছে, সংগঠনটি ভেনেজুয়েলার মোট ১১ কর্মকর্তার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার কথা ভাবছে। প্রসঙ্গত, এই বছরের জানুয়ারিতে ভেনেজুয়েলার সাত নাগরিকের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে ইইউ। পাশাপাশি তাদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হয়।
ফিফা প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠকে সামনে এলেন প্রিন্স সালমান
                                  

ডিটিভি বাংলা নিউজঃ
সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান নিহত হওয়ার গুঞ্জনের মুখে একটি ছবি প্রকাশ করেছিল দেশটির রাজপরিবার। এবার একটি ছবিতে দেখা গেল ফিফা প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনোর সঙ্গে বৈঠক করছেন মোহাম্মদ বিন সালমান।
আরব নিউজ ও আল অ্যারাবিয়ার খবরে বলা হয়েছে, ফিফা প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনোর সঙ্গে বৈঠক করছেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। দুজনের বৈঠকের একটি ছবিও প্রকাশ হয়েছে। ছবির ক্যাপশনে লেখা, গতকাল শুক্রবার ফিফা প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনোর সঙ্গে জেদ্দায় বৈঠক করেন। বৈঠকে সৌদি জেনারেল স্পোর্টস অথরিটি (জিএসএ) এবং ফিফার পারস্পরিক সহযোগিতা জোরদারের ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়। জিএসএর বোর্ড অব ডিরেক্টরসের চেয়ারম্যান তুর্কি আল-শেখও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে সৌদি আরবের পেশাদার ফুটবল ক্লাবগুলোকে ৩৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অনুদানের ঘোষণা দিয়েছেন মোহাম্মাদ বিন সালমান। এই অনুদান খেলোয়াড়দের বকেয়া বেতন পরিশোধ এবং ক্লাবগুলোর অবকাঠামোগত উন্নয়নে খরচ করা হবে। জেনারেল স্পোর্টস অথরিটি ও সৌদি অ্যারাবিয়া ফুটবল ফেডারেশনের পক্ষ থেকে অনুদানের এ খবর জানানো হয়।

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং–উনের সঙ্গে বৈঠক বাতিল করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প
                                  

ডিটিভি বাংলা নিউজঃ
উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং–উনের সঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বৈঠক হচ্ছে না। ১২ জুন সিঙ্গাপুরে এই দুই নেতার বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। আজ বৃহস্পতিবার ওই বৈঠক বাতিলের ঘোষণা দিয়েছেন ট্রাম্প।
বিবিসি অনলাইনের খবরে বলা হয়, উত্তর কোরিয়ার সাম্প্রতিক এক বিবৃতিতে চরম ক্ষুব্ধ হয়ে ট্রাম্প এই বৈঠক বাতিলের সিদ্ধান্ত নেন। ট্রাম্প ওই বিবৃতিকে ‘প্রকাশ্যে শত্রুতা’ বলেও আখ্যা দেন।
বৈঠক বাতিলের ঘোষণা দিয়ে ট্রাম্প বলেছেন, উনের সঙ্গে ১২ জুন বৈঠক করা যুক্তিযুক্ত হবে না। কিমের কাছে পাঠানো এক চিঠিতে ট্রাম্প বলেছেন, অন্য কোনো দিন কিমের সঙ্গে সাক্ষাতের অপেক্ষায় থাকবেন তিনি।
ট্রাম্পের বৈঠক বাতিলের বিপরীতে এখনো উত্তর কোরিয়ার কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।
উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে ট্রাম্পের বৈঠক নিয়ে বেশ কয়েক দিন ধরেই নানা কথা চলছিল। এ বৈঠক ভেস্তে যেতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছিল।
ট্রাম্প প্রশাসনের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম সিএনএনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ডোনাল্ড ট্রাম্প ও কিম জং-উনের বৈঠকের আগে দুই দেশের মধ্যে উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তাদের বৈঠক চাইছিল ট্রাম্প প্রশাসন। এ ছাড়া শীর্ষ দুই নেতার বৈঠকের আগেই উত্তর কোরিয়ার কাছ থেকে পরমাণু কর্মসূচি থেকে সরে আসার নিশ্চয়তাও চাচ্ছিল যুক্তরাষ্ট্র।


দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের একটি যৌথ সামরিক মহড়া অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। উত্তর কোরিয়া অবশ্য আগেই হুমকি দিয়েছিল—ওই সামরিক মহড়া অনুষ্ঠিত হলে তারা ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠক থেকে সরে যাবে। আবার পরমাণু কর্মসূচি থেকে সরে যাওয়ার জন্য চাপ অব্যাহত রাখলেও একই পরিণতির হুমকি দিয়ে রেখেছিল পিয়ংইয়ং।
এর আগে ট্রাম্প নিজেই এক টুইট বার্তায় আগামী ১২ জুন সিঙ্গাপুরে কিম জং-উনের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন। গত মঙ্গলবার অবশ্য ট্রাম্প বলেন, বৈঠকের জন্য উত্তর কোরিয়াকে কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। যদি তারা সেটা না করে, তাহলে আগামী মাসের পরিবর্তে অন্য কোনো সময়ে বৈঠকটি হতে পারে। তবে কোনো নির্দিষ্ট সময় উল্লেখ করেননি তিনি।

বিবিসি জানিয়েছে, কোরিয়া উপদ্বীপে উত্তেজনা কমাতে আজ বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের ডেকে তাঁদের সামনে একমাত্র পারমাণবিক পরীক্ষাকেন্দ্রের সুড়ঙ্গ ধ্বংস করেছে উত্তর কোরিয়া। এ স্থাপনার সুড়ঙ্গগুলো স্যাটেলাইটের মাধ্যমে পাওয়া ছবিতেও দৃশ্যমান হয়। বিভিন্ন দেশ থেকে বাছাই করা ২০ জন সাংবাদিক এ সুড়ঙ্গ ধ্বংসের ঘটনা প্রত্যক্ষ করেন।

যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণ-পক্ষপাত বিষয়ক সচেতনতা বাড়াতে ৮হাজার ক্যাফে বন্ধ!
                                  

যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণ-পক্ষপাত বিষয়ক সচেতনতা বাড়াতে ৮হাজার ক্যাফে একবিকেল বন্ধ রাখবে ‘স্টারবাকস’। কোম্পানিটি তাদের ক্যাফেগুলো আগামী ২৯ মে বন্ধ রেখে তাদের অন্তত ১লাখ ৭৫হাজার কর্মীর জন্য মানসিক সহনশীলতামূলক শিক্ষাদানের ব্যবস্থা করবে। মূলত, দেশটির অন্যতম বৃহৎ শহর ফিলাডেলফিয়ায় কোম্পানিটির একটি ক্যাফেতে বর্ণ-পক্ষপাতের শিকার হয়ে ২জন কৃষ্ণাঙ্গ গ্রেফতারে ব্যাপক বিক্ষোভের আশঙ্কায় এমন একটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

ফিলাডেলফিয়ার ঘটনার প্রেক্ষিতে, কফিপ্রেমীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কোম্পানিটির পণ্য পরিহারের ডাক দেওয়ায় তারা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে । তাদের কর্র্মীদের আরো বেশি সহনশীল করে গড়ে তুলতে অভিনব এ প্রশিক্ষণটির ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানায় কোম্পানিটির একজন কর্মকর্তা।

কোম্পানিটি এক বিবৃতিতে জানায়, মুদিখানা ও বিমানবন্দরের পাশে অবস্থিত লাইসেন্সধারী অন্তত ৬হাজার ক্যাফে বন্ধ করা হবে না তবে ঐসব ক্যাফের কর্মীদের তারা প্রশিক্ষণ সরঞ্জামাদী সরবরাহ করবে। শুধু নিজ কোম্পানির কর্মীদের মধ্যে এই প্রশিক্ষণ সীমাবদ্ধ থাকবে না, তারা মূলত এই সমস্যাটি সমাধানের অংশীদার হতে চায় বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী প্রধান কেভিন জনসন।

ট্রাম্পের সঙ্গে তুলনায় ‘ক্ষুব্ধ’ হন নিউজিল্যান্ড প্রধানমন্ত্রী!
                                  

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে তুলনা করায় ক্রোধান্বিত হয়েছিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আর্ডার্ন। ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে মার্কিন সংবাদমাধ্যম ‘ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল’র এক প্রতিবেদনের শিরোনামে জাসিন্ডা সম্পর্কে বলা হয়েছিলো, ‘এই হলেন নিউজিল্যান্ডের জাস্টিন ট্রুডো, যদিও অভিবাসন ইস্যুতে ট্রাম্পের সঙ্গেই বেশি মিল তার।’ আর এতেই ক্রোধে ফেটে পড়েছিলেন জাসিন্ডা।
মঙ্গলবার আমেরিকার এনবিসি টেলিভিশনে এক সাক্ষাৎকারে জাসিন্ডা বলেন, সেসময় ওয়াল স্ট্রিটের ওই তুলনাটি দেখে ‘অত্যন্ত রাগান্বিত’ হয়ে পড়েছিলেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘আমরা এমন একটি দলের প্রতিনিধিত্ব করি, যে দলটি বর্তমানে আমাদের শরণার্থী কোটা দ্বিগুণ করতে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। আমরা নিজেরাই অভিবাসননির্ভর একটি জাতি। এমনকি আমি নিজেও পারিবারিকভাবে নিউজিল্যান্ডে বসবাসকারী তৃতীয়-প্রজন্মের প্রতিনিধি।’

জাসিন্ডা বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডকে একটি রক্ষণশীল দেশ বলে মনে করা হলেও, আমরা এই বদনাম ঘোচাতে লড়াই করে যাচ্ছি। আর তাই এই মূল্যবোধের সম্পূর্ণ বিপরীত মন্তব্য করায় সত্যিকার অর্থেই প্রচ- রেগে গিয়েছিলাম আমি।’

প্রসঙ্গত, জাসিন্ডার লেবার জোট সরকার তার তিন বছরের মেয়াদে ২০ হাজার থেকে ৩০ হাজার লোকের অভিবাসন প্রত্যাহারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। বিশেষ করে শিক্ষাভিসায় আসা বিদেশি শিক্ষার্থী যারা নিউজিল্যান্ডে পড়তে এসে সেখানেই থেকে যায়। এছাড়া, বিদেশি কর্মীদের নিউজিল্যান্ডের কোম্পানিগুলোতে নিয়োগের নীতিমালা আরো কঠোর করার ঘোষণা দিয়েছে দেশটি।

ভুয়া ডিগ্রির কারণে ২৫০ বিচারককে বহিষ্কার করল কঙ্গো
                                  

দূর্নীতি এবং ভুয়া ডিগ্রি দিয়ে চাকরি নেয়া ২৫০ এর বেশী জজকে চাকরিচ্যূত করেছে কঙ্গো সরকার।

কঙ্গোর আইনমন্ত্রী এলকেস থাম্বো স্থানীয় টিভিতে বক্তব্য দেয়ার সময় বলেন, ভুয়া ডিগ্রিধারী বিচারকরা বিচার ব্যবস্থাকে দূর্বল করে দিয়েছে এবং তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে।

কঙ্গোর মিডিয়া জানিয়েছে, ১৮ এপ্রিল ২৫৬ জন বিচারককে চাকরি থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

অল্পের জন্য রক্ষা!
                                  

পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বেড়াতে গিয়েছিলেন এক ব্যক্তি। সুবিধামতো স্থানে পার্ক করলেন তাদের গাড়ি। যখনই ওই ব্যক্তি গাড়িটি থেকে পরিবারের সবাইকে নিয়ে নেমেছেন, সঙ্গে সঙ্গে পাহাড় থেকে একটি ‘দৈত্যাকার’ পাথর হুড়মুড়িয়ে পড়লো একেবারে গাড়িটির ওপর। এতে গাড়িটির একাংশ একেবারে চ্যাপ্টা হয়ে যায়। অল্পের জন্য রক্ষা পায় পুরো পরিবারটি।

ঘটনাটি ঘটেছে সৌদি আরবের দক্ষিণাঞ্চলে খামিস মুসাইত শহরের সুলাইল গ্রামে।

মৃত্যুর খুব কাছে থেকে ফিরে আসা ওই পরিবারের অভিজ্ঞতার খবর পরে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করা হয় বলে জানিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক গণমাধ্যম আল আরবিয়া।

এদিকে ওই ঘটনার ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে শেয়ার করে একজন বলেন, শহরতলিতে ঘোরাঘুরির সময় প্রত্যেকেরই সাবধানতা অবলম্বন করা দরকার। এ সময় পাহাড়ের নিচে দাঁড়িয়ে থাকাও ঠিক নয়।

বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারে ফিরল প্রথম রোহিঙ্গা পরিবার
                                  

জাতিসংঘকে উপেক্ষা করে প্রথম রোহিঙ্গা পরিবারকে ফিরিয়ে নিয়েছে মিয়ানমার। প্রত্যাবাসনের জন্য রাখাইন এখনও প্রস্তুত নয় বলে মনে করছে জাতিসংঘ।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এবং যুক্তরাজ্যভিত্তিক অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালও রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়ার মতো বাস্তবতা সৃষ্টি হয়নি বলে মনে করে। তা সত্ত্বেও শনিবার বাংলাদেশ থেকে ৫ সদস্যের এক রোহিঙ্গা পরিবারকে ফিরিয়ে নিয়েছে নেপিদো। মিয়ানমার সরকারের এক বিবৃতিকে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়েছে।

দুই বছরে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে চলতি বছরের জানুয়ারিতে ঢাকা-নেপিদো প্রত্যাবাসন চুক্তি স্বাক্ষর হয়। এই উদ্যোগ বাস্তবায়নে মিয়ানমার রাখাইনে দুটি অভ্যর্থনাকেন্দ্র স্থাপন করেছে। এগুলোকে অস্থায়ী শিবির নামে ডাকছে মিয়ানমার। তবে সেখানে বহুল প্রতীক্ষিত ও বিরল সফর শেষে জাতিসংঘের প্রতিনিধি দল সম্প্রতি জানিয়েছে, রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের জন্য এখনও তৈরি নয় রাখাইন।

সরেজমিন বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখে এবং সেখানকার স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জাতিসংঘের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল উরসুলা মুয়েলার এমন সিদ্ধান্তে পৌঁছান। ৬ দিনের সফর শেষে উরসুলা মুয়েলার সংবাদমাধ্যমকে জানান, স্বাস্থ্যসেবার অপ্রতূলতা, নিরাপত্তা নিয়ে অনিশ্চয়তা আর অব্যাহত স্থানচুত্যির ঘটনা ঘটছে ধারাবাহিকভাবে। এই পরিস্থিতি রোহিঙ্গাদের ফেরত যাওয়ার জন্য সহায়ক নয়। ভবিষ্যতেও প্রত্যাবাসন আদতে সম্ভব কিনা, তা নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেন তিনি। তবে জাতিসংঘের এই সংশয়কে আমল না নিয়ে মিয়ানমার প্রত্যাবাসন চুক্তির অংশ হিসেবে প্রথম রোহিঙ্গা পরিবারকে ফিরিয়ে নিলো।

রোহিঙ্গাদের নিজ দেশের জনগোষ্ঠী হিসেবে স্বীকার করতে শুরু থেকেই অস্বীকৃতি জানিয়ে আসছে মিয়ানমার। তাদের ‘বাঙালি মুসলমান’ আখ্যা দিয়ে বাংলাদেশের বাসিন্দা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে চায় নেপিদো। শনিবার মিয়ানমার সরকারের এক বিবৃতিতে রোহিঙ্গাদের মুসলিম আখ্যা দিয়ে বলা হয়েছে, ‘৫ সদস্যের এক মুসলিম পরিবার আজ সকালে রাখাইনের তানজিপিওলেটওয়া অভ্যর্থনাকেন্দ্রে এসেছে।’ ওই সরকারি বিবৃতিতে বলা হয়, অভিবাসন ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যাচাই-বাছাই শেষে তাদের ফিরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হচ্ছে। সমাজকল্যাণ, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে তাদের চাল, মশারি, কম্বল, গেঞ্জি, লুঙ্গি সরবরাহ করা হয়েছে বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়।

রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার চলমান প্রক্রিয়ায় তাদের নিবন্ধনের অংশ হিসেবে ন্যাশনাল ভেরিফিকেশন কার্ড-এনভিসি দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে মিয়ানমার। তবে রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের নেতৃত্ব পর্যায় থেকে এই কার্ডকে নাগরিকত্ব অস্বীকার করে রোহিঙ্গাদের আজীবনের জন্য শরণার্থী করে রাখার পাঁয়তারা বলে বিবেচনা করা হচ্ছে। সরকারের শনিবারের বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, প্রত্যাবাসনের জন্য যাচাই-বাছাই শেষে ওই পরিবারকে মিয়ানমারে প্রবেশের আগেই এনভিসি কার্ড দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, কয়েক দশক ধরে মিয়ানমারে জাতিগত নিপীড়নের শিকার রোহিঙ্গাদের ওপর গত ২৫ আগস্ট নতুন করে সেনাবাহিনীর দমন অভিযান শুরু করলে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা সীমান্ত পার হয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেয়। মিয়ানমারে তাদের ওপর নির্যাতন ও গ্রাম জ্বালিয়ে দেওয়ার বিবরণ দিয়েছে। স্যাটেলাইট থেকে পাওয়া ছবি ও রয়টার্সের অনুসন্ধানে রোহিঙ্গা নিধনযজ্ঞের প্রমাণ পাওয়া গেছে। এছাড়াও এর আগে বিভিন্ন সময় নিপীড়নের মুখে প্রায় তিন লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসেছে। সব মিলিয়া প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গার বোঝা বহন করতে হচ্ছে বাংলাদেশকে।

২৪ দেশের অংশগ্রহণে সৌদিতে যৌথ সামরিক মহড়া শেষ হচ্ছে সোমবার
                                  

সৌদি আরবে ২৪ টি দেশের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হওয়া ইসলামিক জোটের সামরিক মহড়া ‘জয়েন্ট গাল্ফ শিল্ড-১ শেষ হচ্ছে আজ সোমবার। সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজের নেতৃত্বে মহড়ায় অংশ নেওয়া দেশগুলোর শীর্ষ নেতাদেরও সমাপনীতে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। বাদশাহ সালমানের আমন্ত্রণ পেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এ উপলক্ষ্যে রোববার সৌদি পৌঁছেছেন।

আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক শান্তি নিশ্চিত করা ও বন্ধুপ্রতীম দেশগুলোর সঙ্গে সহযোগিতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এ সামরিক মহড়ার আয়োজন করা হয়েছিল। সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ বিশ্বের নেতৃস্থানীয় দেশগুলোকেও সামরিক মহড়া ‘জয়েন্ট গাল্ফ শিল্ড-১ এর সমাপনীতে অংশ নেওয়ার আমন্ত্রণ জানান। বাংলাদেশসহ ২৩টি দেশের অংশগ্রহণে গত ১৮ মার্চ সৌদি আরবের পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশে এই যৌথ মহড়া শুরু হয়।
মাসব্যাপী এ মহড়ায় বাংলাদেশসহ ২৩ দেশের স্থল, নৌ ও বিমান বাহিনীর সদস্যদের অংশংগ্রহণে এই যৌথ সামরিক মহড়া গালফ শিল্ড ওয়ান নামে পরিচিত। অংশগ্রহণকারী দেশের সংখ্যা, সেনা সংখ্যা ও ব্যবহৃত সমরাস্ত্রের বিবেচনায় এই মহড়াকে উপসাগরীয় অঞ্চলের অন্যতম বৃহৎ সামরিক মহড়া হিসেবে বিবেচিত।

যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন, আরব আমিরাত, পাকিস্তান, বাহরাইন, কুয়েত, তুরস্ক মহড়ায় অংশ নেওয়া দেশগুলোর অন্তর্ভুক্ত।

জয়েন্ট গাল্প শিল্ড-১ এর মুখপাত্র জেনারেল আবদুল্লাহ আল-সাবায়ে স্থানীয় সময় শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, সৌদি আরবের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে ২৪ টি দেশের ভূমি, বিমান ও নৌবাহিনীর সদস্যরা এ মহড়ায় অংশ নেয়। অংশগ্রহণকারী দেশগুলির সংখ্যা এবং তার অস্ত্রের গুণাবলীর পরিপ্রেক্ষিতে সামরিক মহড়াটি এ অঞ্চলের সর্ববৃহৎ বলে বিবেচিত। এটি এ অঞ্চলে সামরিক প্রস্তুতি জোরদার, যৌথ ব্যবস্থার আধুনিকায়ন এবং নিরাপত্তায় সমন্বয় ও সহযোগিতা বৃদ্ধি করা সামরিক মহড়াটির উদ্দেশ্য।

যমজ ভাই, বাবা হলেন একই দিনে
                                  

যমজ ভাইদের মাঝে অনেক বিষয়েই মিল থাকে। তবে তাদের স্ত্রীরা একই দিনে সন্তান প্রসব করছে, এমন মিল আগে দেখা যায়নি। সম্প্রতি তেমন ঘটনাই ঘটল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে।

মিশিগান রাজ্যের দুই ভাই জাস্টিন ও জসুয়া থরিংটনের খুব মিল। তারা যেমন জন্মগ্রহণ করেছিলেন এক দিনে তেমন বহুদিন একত্রেই কাটিয়েছেন। এরপর তারা দুই ভাই বিয়ে করেন ভিন্ন দুই নারীকে।

দুই ভাইয়ের স্ত্রীই গর্ভবতী ছিলেন। সন্তান জন্মদানের তারিখ এগিয়ে আসাতে তাদের মিশিগান রাজ্যের থ্রাভার্স সিটির হাসপাতালে পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়। এরপর তাদের সন্তান জন্মদানের সম্ভাব্য তারিখ প্রায় দুই সপ্তাহের ব্যবধান ছিল।

গত ২৭ মার্চ এক ভাই জসুয়ার স্ত্রী প্রথমে হাসপাতালে ভর্তি হন। তাদের এক সন্তান জন্মগ্রহণ করে। এর ঘণ্টাখানেক পরেই অপর ভাই তার স্ত্রীকে নিয়ে হাসপাতালে হাজির হন। কারণ তারও প্রসব বেদনা শুরু হয়।

কিছুক্ষণের মধ্যেই দ্বিতীয় যমজ ভাইয়ের স্ত্রীরও একটি সন্তান জন্মগ্রহণ করে। উভয় ভাই একত্রে বাবা হওয়ায় যেন আনন্দ ধরছে না তাদের।


   Page 1 of 21
     আন্তর্জাতিক
ডুবোচরে আটকে আছে ১৫টি মালবাহী জাহাজ
.............................................................................................
নিম্নকক্ষে নিয়ন্ত্রণ হারালেন ট্রাম্প
.............................................................................................
‘পুতিন-ট্রাম্প যাই বলুক যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে রাশিয়ার হাত ছিল’
.............................................................................................
ভারতে বিমানবাহিনীর যুদ্ধবিমান বিধ্বস্ত, পাইলট নিহত
.............................................................................................
চার ঘন্টায় ১৫ হাজার বজ্রপাত!
.............................................................................................
ঝুঁকিতে রয়েছে বিশ্বের অর্ধেকেরও বেশি শিশু!
.............................................................................................
ভেনেজুয়েলার ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করবে ইইউ
.............................................................................................
ফিফা প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠকে সামনে এলেন প্রিন্স সালমান
.............................................................................................
উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং–উনের সঙ্গে বৈঠক বাতিল করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণ-পক্ষপাত বিষয়ক সচেতনতা বাড়াতে ৮হাজার ক্যাফে বন্ধ!
.............................................................................................
ট্রাম্পের সঙ্গে তুলনায় ‘ক্ষুব্ধ’ হন নিউজিল্যান্ড প্রধানমন্ত্রী!
.............................................................................................
ভুয়া ডিগ্রির কারণে ২৫০ বিচারককে বহিষ্কার করল কঙ্গো
.............................................................................................
অল্পের জন্য রক্ষা!
.............................................................................................
বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারে ফিরল প্রথম রোহিঙ্গা পরিবার
.............................................................................................
২৪ দেশের অংশগ্রহণে সৌদিতে যৌথ সামরিক মহড়া শেষ হচ্ছে সোমবার
.............................................................................................
যমজ ভাই, বাবা হলেন একই দিনে
.............................................................................................
ফের গাজা সীমান্তে ইসরাইলি বাহিনীর গুলিতে ফিলিস্তিনি নিহত
.............................................................................................
ভেনিজুয়েলায় কারাগারে দাঙ্গা-অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৬৮
.............................................................................................
দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালাল তুরস্ক
.............................................................................................
অবৈধ বসবাসের অভিযোগে ভারতে ৮ বাংলাদেশি আটক
.............................................................................................
থাইল্যান্ডে পর্যটকবাহী বাস দুর্ঘটনায় নিহত ১৭
.............................................................................................
টেক্সাসে একের পর এক বিস্ফোরণে নিহত ২
.............................................................................................
পদত্যাগ করলেন মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট থিন কিয়াও
.............................................................................................
মালিতে জাতিগত সহিংসতায় নিহত ৮
.............................................................................................
আবারো রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন
.............................................................................................
অস্ট্রেলিয়ায় দাবানলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি
.............................................................................................
গুজরাটে ব্রিজ থেকে ট্রাক পড়ে নিহত ২০
.............................................................................................
পাকিস্তান সিনেটে প্রথম হিন্দু নারী
.............................................................................................
জাফর ইকবালের উপর হামলাকারীরা ধর্মান্ধ : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
হোয়াইট হাউসের বাইরে গুলি
.............................................................................................
পাকিস্তানে দুই হামলায় নিরাপত্তা বাহিনীর ৬ সদস্য নিহত
.............................................................................................
ক্ষমতা হারাচ্ছেন ট্রাম্প জামাতা
.............................................................................................
সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্রের উপকরণ উত্তর কোরিয়ার
.............................................................................................
সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে মামলা করার নির্দেশ মমতার
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রের নিষিদ্ধ জঙ্গি গোষ্ঠীর তালিকায় বাংলাদেশc
.............................................................................................
সেনাপ্রধানসহ সৌদির শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তারা বরখাস্ত
.............................................................................................
কোরআন সংরক্ষণে ২ মাইল দীর্ঘ সুড়ঙ্গ!
.............................................................................................
ঢাকায় আসছেন এডিবির প্রেসিডেন্ট
.............................................................................................
ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে সিনাবাং আগ্নেয়গিরি
.............................................................................................
প্রযুক্তির কল্যাণে বেঁচে গেল জীবন
.............................................................................................
বাহরাইনে রাজনৈতিক অধিকারের সংগ্রাম অব্যাহত থাকবে : মারিয়াম
.............................................................................................
রোহিঙ্গা পরিদর্শনে ঢাকায় আসছেন ৩ নোবেল বিজয়ী, জোলিকেও আমন্ত্রণ
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রে ৩২ কোটি মানুষের হাতে ২৯ কোটি অস্ত্র
.............................................................................................
কানাডার প্রধানমন্ত্রী ভারতে এসে উপেক্ষিত কেন?
.............................................................................................
সিরিয়ায় সেনা হামলায় ২০ শিশুসহ নিহত ৯৪
.............................................................................................
রাশিয়ায় গির্জায় গোলাগুলি : ৫ নারী নিহত
.............................................................................................
মিয়ানমার জেনারেলের ওপর কানাডার নিষেধাজ্ঞা
.............................................................................................
ভূমিকম্প বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শনে গিয়ে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত, নিহত ১৪
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিম নারী মেয়র প্রার্থীকে হত্যার হুমকি
.............................................................................................
মেক্সিকোতে শক্তিশালী ভূমিকম্প
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক : জাকির এইচ. তালুকদার ,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : এস এইচ শিবলী ,
    [সম্পাদক মন্ডলী ]
সম্পাদক কর্তৃক ২ আরকে মিশন রোড থেকে প্রকাশিত।
ফোন: ০১৫৫৮০১১২৭৫, ই-মেইল:dailybortomandin@gmail.com
   All Right Reserved By www.dtvbangla.com Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]