| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
   * সুযোগ আছে বিএসসি অ্যারোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে   * উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গী ....ড. এফ এইচ আনসারী   * সবার মতামত নিয়েই গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষায় ব্যবস্থা :প্রধানমন্ত্রী   * ডুবোচরে আটকে আছে ১৫টি মালবাহী জাহাজ   * নিম্নকক্ষে নিয়ন্ত্রণ হারালেন ট্রাম্প   * শেখ হাসিনার অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব ---ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা   * আমার সংসার টিকে আছে এইতো বেশি   * গোপালগঞ্জে মোবাইলে প্রেমের ফাঁদ চক্রের ৫ সদস্য গ্রেফতার   * সাটুরিয়ায় দলিল হাতে ঘুরছে ভূমিহীন ২০ পরিবার   * এ্যরোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পেশায় আসতে চাইলে  

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
সবার মতামত নিয়েই গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষায় ব্যবস্থা :প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সবার মতামত নিয়েই গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া হবে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে গণভবনে ইসলামী দলগুলোর সঙ্গে আলোচনায় সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন। ধর্মীয় শিক্ষা ব্যবস্থাসহ সার্বিক উন্নয়নে সরকারের টানা দুই মেয়াদের কর্মকাণ্ডের মূল্যায়ন দিয়েই আলোচনা শুরু করে তিনি বলেন, টানা দুই মেয়াদে ধর্মীয় শিক্ষা ব্যবস্থাসহ দেশের সার্বিক উন্নয়নে কাজ করেছে সরকার।
আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকারের সঙ্গে চলমান আলোচনার অংশ হিসেবে বেলা পৌনে ৩টার দিকে গণভবনে শুরু হয় ইসলামী ১২টি দল ও জোটের ৫২ নেতার সঙ্গে সংলাপ। প্রায় দুই ঘণ্টার বৈঠকে প্রত্যেক দলের নেতারা নিজ নিজ কথা এবং কিছু দাবি উপস্থাপন করেছেন। সংলাপে ক্ষমতাসীনদের ২৩ সদস্যের প্রতিনিধি দলে নেতৃত্বে দেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সংলাপ অংশ নেওয়া দলগুলো হলো— ইসলামী ঐক্যজোট (আইওজে), বাংলাদেশ মুসলিম লীগ, বাংলাদেশ জালালি পার্টি, আশিক্কীনে আউলিয়া ঐক্য পরিষদ বাংলাদেশ, জাকের পার্টি, বাংলাদেশ জাতীয় ইসলামী জোট-বি.এন.আই.এ, বাংলাদেশ সম্মিলিত ইসলামী জোট, ইসলামিক ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স (আইডিএ)।
সংলাপে ইসলামী ঐক্যজোটের একাংশের নেতারা শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রাখতে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। সংলাপ শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, গত ১০ বছরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন ইসলামী দলগুলোর নেতারা। আগামীতে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় ফিরে আসবেন, এ ব্যাপারে তাদের সার্বিক সহযোগিতা থাকবে, একথা তারা অকপটে বলে গেছেন।
মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও স্বাধীনতার আদর্শ সমুন্নত রাখার ব্যাপারে উভয়পক্ষই সংলাপে একমত হয়েছে বলে জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। সংবিধানসম্মত উপায়ে নির্বাচনে যেতে ইসলামী দলগুলোর কোনো দ্বিমত নেই জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, ইসলামী দলগুলো সংবিধানসম্মতভাবে নির্বাচন সমর্থন করে এবং এ ব্যাপারে তারা অংশী হিসেবে থাকবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারও ক্ষমতায় ফিরে আসবেন বলে তারা আশাবাদী।
নির্বাচন সংক্রান্ত নানা বিষয়ে মতবিরোধের মধ্যে কামাল হোসেনের উদ্যোগে বিএনপিকে নিয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ডাকে সাড়া দিয়ে প্রথমে তাদের আলোচনায় ডাকেন শেখ হাসিনা। এরপর অন্য দলগুলোকেও সংলাপে আমন্ত্রণ জানান তিনি। গত বৃহস্পতিবার শুরু হয়ে বুধবার পর্যন্ত সংলাপ করবেন শেখ হাসিনা। এরপর বৃহস্পতিবার সংলাপের ফলাফল জানাবেন সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে।
সংলাপ শেষে ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী সাংবাদিকদের বলেন, ‘সব দলের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে নির্বাচন ব্যবস্থা করার জন্য আমরা প্রস্তাব দিয়েছি। সুষ্ঠু নির্বাচন করতে সবার অংশগ্রহণ প্রয়োজন।’
ইসলামিক ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের কো-চেয়ারম্যান এম এ আউয়াল বলেন, আমরা বলেছি এ সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকুক। একই সঙ্গে এই সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে আমাদের আপত্তি নেই-সেটিও জানিয়েছি।
বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের চেয়ারম্যান মাওলানা আতাউল্লাহ বলেন, ‘আমরা এককভাবে নির্বাচনে অংশ নেব। কোনো জোটে যাব না। অবাধ-নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে আমরা প্রস্তাব করেছি। প্রধানমন্ত্রী আমাদের কথা শুনেছেন।’ আর জাকের পার্টি দাবি করে, তারা মহাজোটে আছে।
ইসলামী ১২টি দল ও জোটের ৫২ নেতারা হলেন ইসলামি ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ নেজামীসহ ১২ জন, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের চেয়ারম্যান বদরুদ্দোজা সুজাসহ তিন জন, বাংলাদেশ জালালি পার্টির চেয়ারম্যান আহমদ চৌধুরী জালালিসহ তিন জন, বাংলাদেশ সম্মিলিত ইসলামী জোটের সভাপতি মাওলানা জিয়াউল হাসানসহ চার জন, বাংলাদেশ জাতীয় ইসলামী জোটের চেয়ারম্যান গোলাম মোর্শেদ হাওলাদারসহ চার জন, জাকের পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফা আমীর ফয়সলসহ তিন জন, আশিক্কীনে আউলিয়া ঐক্যপরিষদ বাংলাদেশের সভাপতি সাইয়েদ আলম নূরীসহ তিন জন, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের চেয়ারম্যান মাওলানা আতাউল্লাহসহ চার জন, আঞ্জুমানে রাহমানিয়া মাইনিয়া মাইজভাণ্ডারীর প্রেসিডেন্ট সৈয়দ সাইফুদ্দিন আহমেদ, ইসলামিক ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের কো-চেয়ারম্যান এম এ আউয়াল প্রমুখ।

সবার মতামত নিয়েই গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষায় ব্যবস্থা :প্রধানমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সবার মতামত নিয়েই গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া হবে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে গণভবনে ইসলামী দলগুলোর সঙ্গে আলোচনায় সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন। ধর্মীয় শিক্ষা ব্যবস্থাসহ সার্বিক উন্নয়নে সরকারের টানা দুই মেয়াদের কর্মকাণ্ডের মূল্যায়ন দিয়েই আলোচনা শুরু করে তিনি বলেন, টানা দুই মেয়াদে ধর্মীয় শিক্ষা ব্যবস্থাসহ দেশের সার্বিক উন্নয়নে কাজ করেছে সরকার।
আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকারের সঙ্গে চলমান আলোচনার অংশ হিসেবে বেলা পৌনে ৩টার দিকে গণভবনে শুরু হয় ইসলামী ১২টি দল ও জোটের ৫২ নেতার সঙ্গে সংলাপ। প্রায় দুই ঘণ্টার বৈঠকে প্রত্যেক দলের নেতারা নিজ নিজ কথা এবং কিছু দাবি উপস্থাপন করেছেন। সংলাপে ক্ষমতাসীনদের ২৩ সদস্যের প্রতিনিধি দলে নেতৃত্বে দেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সংলাপ অংশ নেওয়া দলগুলো হলো— ইসলামী ঐক্যজোট (আইওজে), বাংলাদেশ মুসলিম লীগ, বাংলাদেশ জালালি পার্টি, আশিক্কীনে আউলিয়া ঐক্য পরিষদ বাংলাদেশ, জাকের পার্টি, বাংলাদেশ জাতীয় ইসলামী জোট-বি.এন.আই.এ, বাংলাদেশ সম্মিলিত ইসলামী জোট, ইসলামিক ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স (আইডিএ)।
সংলাপে ইসলামী ঐক্যজোটের একাংশের নেতারা শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রাখতে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। সংলাপ শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, গত ১০ বছরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন ইসলামী দলগুলোর নেতারা। আগামীতে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় ফিরে আসবেন, এ ব্যাপারে তাদের সার্বিক সহযোগিতা থাকবে, একথা তারা অকপটে বলে গেছেন।
মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও স্বাধীনতার আদর্শ সমুন্নত রাখার ব্যাপারে উভয়পক্ষই সংলাপে একমত হয়েছে বলে জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। সংবিধানসম্মত উপায়ে নির্বাচনে যেতে ইসলামী দলগুলোর কোনো দ্বিমত নেই জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, ইসলামী দলগুলো সংবিধানসম্মতভাবে নির্বাচন সমর্থন করে এবং এ ব্যাপারে তারা অংশী হিসেবে থাকবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারও ক্ষমতায় ফিরে আসবেন বলে তারা আশাবাদী।
নির্বাচন সংক্রান্ত নানা বিষয়ে মতবিরোধের মধ্যে কামাল হোসেনের উদ্যোগে বিএনপিকে নিয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ডাকে সাড়া দিয়ে প্রথমে তাদের আলোচনায় ডাকেন শেখ হাসিনা। এরপর অন্য দলগুলোকেও সংলাপে আমন্ত্রণ জানান তিনি। গত বৃহস্পতিবার শুরু হয়ে বুধবার পর্যন্ত সংলাপ করবেন শেখ হাসিনা। এরপর বৃহস্পতিবার সংলাপের ফলাফল জানাবেন সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে।
সংলাপ শেষে ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী সাংবাদিকদের বলেন, ‘সব দলের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে নির্বাচন ব্যবস্থা করার জন্য আমরা প্রস্তাব দিয়েছি। সুষ্ঠু নির্বাচন করতে সবার অংশগ্রহণ প্রয়োজন।’
ইসলামিক ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের কো-চেয়ারম্যান এম এ আউয়াল বলেন, আমরা বলেছি এ সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকুক। একই সঙ্গে এই সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে আমাদের আপত্তি নেই-সেটিও জানিয়েছি।
বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের চেয়ারম্যান মাওলানা আতাউল্লাহ বলেন, ‘আমরা এককভাবে নির্বাচনে অংশ নেব। কোনো জোটে যাব না। অবাধ-নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে আমরা প্রস্তাব করেছি। প্রধানমন্ত্রী আমাদের কথা শুনেছেন।’ আর জাকের পার্টি দাবি করে, তারা মহাজোটে আছে।
ইসলামী ১২টি দল ও জোটের ৫২ নেতারা হলেন ইসলামি ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ নেজামীসহ ১২ জন, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের চেয়ারম্যান বদরুদ্দোজা সুজাসহ তিন জন, বাংলাদেশ জালালি পার্টির চেয়ারম্যান আহমদ চৌধুরী জালালিসহ তিন জন, বাংলাদেশ সম্মিলিত ইসলামী জোটের সভাপতি মাওলানা জিয়াউল হাসানসহ চার জন, বাংলাদেশ জাতীয় ইসলামী জোটের চেয়ারম্যান গোলাম মোর্শেদ হাওলাদারসহ চার জন, জাকের পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফা আমীর ফয়সলসহ তিন জন, আশিক্কীনে আউলিয়া ঐক্যপরিষদ বাংলাদেশের সভাপতি সাইয়েদ আলম নূরীসহ তিন জন, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের চেয়ারম্যান মাওলানা আতাউল্লাহসহ চার জন, আঞ্জুমানে রাহমানিয়া মাইনিয়া মাইজভাণ্ডারীর প্রেসিডেন্ট সৈয়দ সাইফুদ্দিন আহমেদ, ইসলামিক ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের কো-চেয়ারম্যান এম এ আউয়াল প্রমুখ।

শেখ হাসিনার অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব ---ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা
                                  

স্টাফ রিপোর্টার:
বাংলাদেশ জাতীয় জোট (বিএনএ) ও বাংলাদেশ তৃণমূল বিএনপি’র চেয়ারম্যান, সাবেক মন্ত্রী ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা বলেছেন , ঐক্যফ্রন্টের দাবীর কোন যুক্তি নেই । শেখ হাসিনার অধীনেই সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব। গত মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ জাগো বাঙ্গালী (বিজেবি)’র উদ্যোগে “বর্তমান জাতীয় সংলাপ ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ”- শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, দেশ এগিয়ে চলেছে । বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর শাসনামলে দেশে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। অন্যকোন দল ক্ষমতায় আসলে এই উন্নয়ন বাধাঁগ্রস্থ হবে। আগমী দুই বছর পরে আমাদের দেশের জনগন স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর পূর্তি উদযাপন করবে। একটি সুন্দর, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন বর্তমান সরকারের অধীনে সম্বব। সভায় সভাপতিত্ব করেন , বিএনএ জোটের মহাসচিব , বিজেবির চেয়ারম্যান , মুক্তিযোদ্ধা দিবসের প্রস্তাবক , সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর ডা: হাবিবুর রহমান । তিনি বলেন, পদ্মা সেতু , পায়রা বন্দর, ও ঢাকায় মেট্রোরেল চলাচলসহ তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে যে উন্নয়ন হয়েছে তা ধরে রাখতে শেখ হাসিনার সরকারের বিকল্প নেই। তিনি আশা করেন, এ সরকারের অধীনেই সবকটি রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মানবাধিকার পার্টির সভাপতি হ্যাপি হাবিব, বাংলাদেশ গণআজাদী লীগের সভাপতি আতাউল্লাহ খান। অনুষ্ঠানটির সার্বিক তত্বাবধানে ছিলেন বিজেবির মহাসচিব এস. এইচ শিবলী। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন কবি মায়ারাজ।

আমার সংসার টিকে আছে এইতো বেশি
                                  

 

নিজস্ব সংবাদদাতা:
আসন্ন জাতীয় নির্বাচন কে সামনে রেখে এক মতবিনিময় সভায় তার নিজের অফিসে এভাবেই মনের কষ্ট প্রকাশ করলেন ভাংগা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব শরীফুজ্জামান শরীফ। তিনি এলাকার মানুষের বিভিন্ন সমস্যার কথা শুনছিলেন। একজন কর্মি অভিযোগ করে বলেন, আপনাকে সব সময় ফোনে পাওয়া যায়না । প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রাজনীতি করতে গিয়ে কোনদিন পরিবারের লোকজনকে সময় দিতে পারিনি, আমার স্ত্রী, সন্তানরা আমাকে ছাড় দেয় বলে এখনো আমার সংসার টিকে আছে। যত রাতই হোক আপনাদের বিপদে ছুটে গিয়েছি। জীবনের অনেকগুলো বছর আপনাদের সেবায় কাটিয়ে দিলাম। এখন এ ধরনের কথায় খুব কষ্ট পাই। পরিশেষে সবাইকে একজোট হয়ে নৌকার পক্ষে ও কাজী জাফরউল্লাহ কে বিজয়ী করার লক্ষ্যে কাজ করার জন্য আহব্বান জানান।

যারা হামলা চালাচ্ছে তারাই বিচার চাইছে: মোশাররফ
                                  

কুষ্টিয়ায় আদালত চত্বরে মাহমুদুর রহমানের ওপর ‘হামলাকারীই’ সংবাদ সম্মেলন করে হামলার ঘটনার বিচার চাইছেন দাবি করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থা স্বাধীন থাকলে এই মামলাটি গ্রহণযোগ্যই হতো না। অথচ সেই মিথ্যা মামলার বাদী আদালতে উপস্থিত থেকে দলবলসহ লাঠিসোটা নিয়ে মাহমুদুর রহমানের ওপর ঘৃণ্য ও নিন্দনীয় হামলা চালিয়েছে। যারা হামলা চালাচ্ছে তারাই বিচার দাবি করছে। হামলাকারীরাই বিচারপ্রার্থী হয়ে উঠেছে।

তিনি বলেন, যার নেতৃত্বে হামলা হয়েছে তিনিই কুষ্টিয়ায় সাংবাদিক সম্মেলন করে হামলার নিন্দা জানিয়ে বিচার দাবি করেছেন। তিনিও নাকি বিচার চান। জনগণ জানতে চায়- তিনি আসলে কার বিচার চান? হামলাকারীদের উদ্দেশে ড. মোশাররফ বলেন, আপনারা যারা এ সব করছেন, যাদের হুকুমে করছেন তারা কিন্তু বাতাস বদল হয়ে গেলে এ দেশে থাকবে না। তারা বিদেশে চলে যাবে। এই পুলিশই তখন ছবি দেখে দেখে আপনাদের খুঁজে খুঁজে বের করবে।

বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (একাংশ) আয়োজিত অবস্থান কর্মসূচিতে তিনি এ সব কথা বলেন।

ড. মোশাররফ বলেন, মাহমুদুর রহমানের আক্রমণ শুধু তার একার ওপর আক্রমণ নয়। তিনি আমার দেশ পত্রিকার সম্পাদক, এটা সব সংবাদপত্রের সম্পাদকের ওপর আক্রমণ। এ আক্রমণ মানবিক অধিকারের বিরুদ্ধে। সংবাদপত্রের ওপর সরকার যেভাবে নিয়ন্ত্রণ করছে সেই নিয়ন্ত্রণ বাড়ানোর জন্যই এ আক্রমণ। এদেশের প্রত্যেকটি মানুষ স্যোশাল মিডিয়া ও টেলিভিশনের মাধ্যমে এ ঘটনা দেখেছে। সবাই দেখতে পেলেও পুলিশ দেখছে না, হামলাকারীদের এখনো খুঁজে পাচ্ছে না। এ দেশে ব্যাংকের রিজার্ভ লুট হয়, কারা সেই রিজার্ভ লুট করে তা চিহ্নিত করা যায় না। কি কারণে? কারণ, লুট তো তাদের লোকেরাই করে। ভোল্ট থেকে স্বর্ণ চুরি হয়, অর্থমন্ত্রী বলছেন ‘এটা কিছু না’। কেন বলেছেন? কারণ, অর্থমন্ত্রীও জানেন, সরকারের কর্তাব্যক্তিরা এগুলো করেছে। শেয়ার মার্কেটে যারা লুট করেছে তাদের তারা দেখতে পান না। মাহমুদুর রহমানের ওপর যারা হামলা করেছে তাদেরও খুঁজে পাবেন না। কারণ হামলাকারীরা আওয়ামী লীগের দুর্বৃত্ত।

ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, সরকার গোয়েবলসের মতো মিডিয়া নিয়ন্ত্রণ করছে। বাংলাদেশে যারা ফ্যাসিবাদের দোসর তাদের রেহাই হবে না। তিনি বলেন, এই সরকারের কবল থেকে জনগণ মুক্তি চায়। সরকার জনগণকে ভয় পায়। আর বেগম খালেদা জিয়াকেও সরকার ভয় পায়। এ জন্যই তাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাগারে আটকে রেখেছে। কিন্তু দেশের মানুষ বার বার প্রতারিত হতে চায় না। সময় আসছে জনগণই বর্তমান সরকারের পতন ঘটাবে।

অবস্থান কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন বিএফইউজের (একাংশের) সভাপতি রুহুল আমীন গাজী। বক্তব্য দেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের মহাসচিব ডা. এজেড এম জাহিদ হোসেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদ, জামায়াতের নায়েবে আমির মিয়া গোলাম পরওয়ার, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের নেতা প্রকৌশলী রিয়াজুল ইসলাম রিজু, দিগন্ত টিভির ডেপুটি নির্বাহী পরিচালক মজিবুর রহমান মঞ্জু, সাংবাদিক নেতা এম আবদুল্লাহ, কাদের গনি চৌধুরী, শহিদুল ইসলাম, সৈয়দ আবদাল আহমদ, শাহিন হাসনাত প্রমুখ।

আগামী দুই মাসের মধ্যে আমরা মাঠে নামবো: মওদুদ
                                  

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, বর্তমান সরকার কৌশলে সংবাদ মাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণে রেখেছে। যদি তাদের বিরুদ্ধে কেউ লিখে তারা ব্যবস্থা নেয়। কারণ এটা একটি জনবিচ্ছিন্ন সরকার। আমি আশা করি, আগামী দুই মাসের মধ্যে দেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট পরিবর্তন ঘটবে। আমরা মাঠে নামবো। মাহমুদুর রহমানের রক্ত বৃথা যেতে দেবে না এ দেশের মানুষ। একদিন এর বিচার হবেই। আন্দোলনের মাধ্যমে আমরা বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবো।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মাহমুদুর রহমানের ওপর হামলার প্রতিবাদ ও হামলার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ, বিএসপিপি আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

মওদুদ বলেন, মাহমুদুর রহমানের ওপর যে আক্রমণ হয়েছে, তাতে সারা জাতি স্তম্ভিত, ক্ষুব্ধ। এটা জাতির জন্য কলঙ্কজনক অধ্যায়। তাকে যে রাজনৈতিক কারণে হত্যার উদ্দেশ্যে আদালতে আক্রমণ করা হয়েছে তার প্রতিবাদ জানাই। অবিলম্বে হামলাকারীদের গ্রেফতার দাবি জানাই।

অবিলম্বে স্বরাষ্ট্র ও আইনমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করে তিনি বলেন, মাহমুদুর রহমান আইনে বিশ্বাস করেন বলেই কুষ্টিয়ায় একটি ভিত্তিহীন মামলায় জামিন নিতে গিয়েছিলেন। কিন্তু তার ওপর যেভাবে পরিকল্পিত আক্রমণ হয়েছে তা ন্যাক্কারজনক। পুলিশের সামনে আক্রমণ হয়েছে। কিন্তু সরকার কোনো ব্যবস্থা নিতে সক্ষম হয়নি। সুতরাং আইন ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগ করা উচিত। তাদের মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকার কোনো নৈতিক অধিকার নাই।

বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ডা. ফরহাদ হালীম ডোনার, বিএনপির গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যক্ষ সেলিম ভূইয়া, সাংবাদিক নেতা রুহুল আমিন গাজী,কাদের গনি চৌধুরী, শহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

খালেদাকে নিয়ে ভয়ঙ্কর মাস্টারপ্ল্যানের দিকে কারা কর্তৃপক্ষ: রিজভী
                                  

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবীর রিজভী বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়া শারীরিকভাবে কতটুকু গুরুতর অসুস্থ সে খবর জানতেও দিচ্ছে না কারা কর্তৃপক্ষ। গত পরশু দিন পরিবারের সদস্যরা তাঁর সঙ্গে দেখা করতে গেলে কারা কর্তৃপক্ষ বাধা দেয়। অসুস্থতার খবর জানতে পারার পরও তাঁর পরিবারের সদস্যদের কারা ভবনের দ্বিতীয় তলায় গিয়ে দেখা করার অনুমতি দেয়া হয়নি। কারা কর্তৃপক্ষ তার চিকিত্সা নিয়ে শুধু উদাসীনই নয়, সরকারের নির্দেশে কোনো ভয়ঙ্কর মাস্টারপ্ল্যানের দিকে এগুচ্ছে কী না তা নিয়ে জনমনে এক বড় প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

সোমবার বেলা ১১টার দিকে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন। রিজভী বলেন, শুধু তাই নয় খালেদা জিয়ার সুচিকিত্সার বিষয়টি শুধু এড়িয়েই যাচ্ছে না বরং জাতীয় সংসদে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করে প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য রেখেছেন। বলেছেন, ‘‘বেগম জিয়ার অসুস্থতা না কি বাহানা! ৭৩ বছর বয়স্ক একজন অসুস্থ নারীর প্রতি নারী প্রধানমন্ত্রীর এ ধরনের ব্যঙ্গোক্তি সত্যি দুঃখজনক। আমি দলের পক্ষ থেকে সরকারের এই নিষ্ঠুর আচরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে ইউনাইটেড হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করে সুচিকিত্সার যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণসহ নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি করছি।

রিজভী চিকিত্সকদের বরাত দিয়ে বলেন, ‘বেগম জিয়া ট্রানজিয়েন্ট স্কিমিং অ্যাটাকে (টিআইএ) ভুগছেন। প্রায়ই তার জ্বর হচ্ছে। আর পায়ের ব্যথায় হাঁটতে পর্যন্ত পারছেন না।

তিন সিটি নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ওবায়দুল কাদের বলেছেন, খুলনা ও গাজীপুরের মতো তিন সিটিতেও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। মূলত একথার মাধ্যমে ভোট কারচুপির সুষ্পষ্ট আভাস দিলেন তিনি। তিন সিটিতেই নৌকা মার্কার পক্ষে নির্বাচনী অনাচার আর ক্ষমতাসীনদের অবৈধ দাপট চলছে। বাস্তবতা হলো তিন সিটিতেই সুষ্ঠু নির্বাচনী পরিবেশ বিদ্যমান নেই, নিরাপদে ভোট দিতে পারবে কিনা সেটি নিয়ে ভোটারদের মধ্যে এখনও শঙ্কা কাটেনি।

এসব নিয়ে নির্বাচন কমিশনের কাছে বারবার অভিযোগ করা হলেও তা আমলে নেয়া হচ্ছে না। নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ জানানো মানে অরণ্যে রোদন বলেও মন্তব্য করেন রিজভী। রিজভী বলেন, ‘শাসকের বিরোধীতা করার অর্থ রাষ্ট্রের বিরোধীতা করা নয়। আর এই বিরোধীতার জন্য নিরপরাধ ব্যক্তিদেরকে পুলিশ ও দলীয় ক্যাডারদের দিয়ে রক্তাক্ত করা ঘোরতর অন্যায় ও পাপ। রবিবার শহীদ মিনারে ছাত্রলীগের তাণ্ডব পুলিশের উপস্থিতিতেই ঘটেছে। তুমুল ছাত্র আন্দোলনের মুখে কোটা আন্দোলনের দাবি মেনে নেয়ার ঘোষণা দিয়ে সেদিন সরকার যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করতে চেয়েছিলেন সেটিতে ব্যর্থ হয়ে এখন তিনি আন্দোলনকারীদের দমাতে ছাত্রলীগকে লেলিয়ে দিয়েছে।

কর্মসূচি:
রিজভী জানান, খালেদা জিয়ার সুচিকিত্সা ও নিঃশর্ত মুক্তি এবং সকল রাজবন্দির মুক্তির দাবিতে আগামী শুক্রবার বেলা তিনটায় নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয় অথবা প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপি সমাবেশ করবে। এছাড়া একই দাবিতে ওইদিন দেশব্যাপী সকল জেলা, মহানগর ও উপজেলা সদরে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে বলেও জানান তিনি। বিএনপি, এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সমাবেশ সফল করার জন্য অনুরোধ জানান রিজভী।

দিল্লি বিমানবন্দর থেকে ফিরিয়ে দেয়া হলো খালেদার ব্রিটিশ আইনজীবীকে
                                  

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ব্রিটিশ আইনজীবী লর্ড কার্লাইলকে দিল্লি বিমানবন্দর থেকে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। বুধবার স্থানীয় সময় রাত ১০টার দিকে তিনি লন্ডন থেকে দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে এসে পৌঁছান। কিন্তু ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ তাকে ভারতে প্রবেশের অনুমতি না নিয়ে লন্ডনের ফিরতি ফ্লাইটে উঠিয়ে দেয়।

ভারতে লর্ড কার্লাইলের অভ্যর্থনা টিমের পক্ষ থেকে লুবনা আসিফ এসব তথ্য সাংবাদকদেরকে নিশ্চিত করেছেন। লুবনা আসিফ বলেন, ভারতে লর্ড কার্লাইলের আজ বৃহস্পতিবারের নির্ধারিত সংবাদ সম্মেলন বাতিল করা হচ্ছে। তিনি আরও জানান, লর্ড কার্লাইলের ভারতীয় ভিসা ছিল, কিন্তু ভারতীয় ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ তাকে জানিয়েছে- তার সেই ভিসা প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। ফলে সফর বাতিল করে তাকে ফিরে যেতে হয়।

এর আগে তারা জানিয়েছিলেন, দিল্লির লা মেরিডিয়ান হোটেলে বৃহস্পতিবার বেলা দেড়টার সময় লর্ড কার্লাইল সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত থাকবেন।

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিএনপির অনশন চলছে
                                  

কারাবন্দী বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও মুক্তির দাবিতে রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে বিএনপির প্রতীক অনশন কর্মসূচি চলছে।

আজ সোমবার সকাল ৯ টায় থেকে এই প্রতীকী অনশন কর্মসূচি শুরু হয়েছে। চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত।

কর্মসূচি উপলক্ষে সোমবার সকাল থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা মহানগর নাট্যমঞ্চে জড়ো থাকেন। ইতিমধ্যে সহস্রাধিকেরও বেশি নেতাকর্মী মহানগর নাট্যমঞ্চে উপস্থিত হয়েছেন।

২০২০ ও ২০২১ সাল ‘মুজিব বর্ষ’ পালনের ঘোষণা দিলেন প্রধানমন্ত্রী
                                  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উদযাপনে ২০২০ ও ২০২১ সালকে ‘মুজিব বর্ষ’ হিসেবে পালনের ঘোষণা দিয়েছেন।
শুক্রবার ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ দলের নবনির্মিত অত্যাধুনিক ১০ তলা বিশিষ্ট নিজস্ব কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের যৌথসভায় সূচনা বক্তৃতায় তিনি এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।
শেখ হাসিনা বলেন, ২০২০ সালে পূর্ণ হবে স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মের শত বছর। ২০২১ সাল হবে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী বছর। তাই ২০২০-২১ সালকে আমরা মুজিব বর্ষ হিসেবে পালন করবো।
শেখ হাসিনা আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের স্বাধীনতা দিয়ে গেছেন। তার দীর্ঘ সংগ্রামের ফলেই অর্জিত হয়েছে এই মহান স্বাধীনতা। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, জীবন দিয়ে হলেও আপনাদের ঋণ আমি শোধ করে যাব। সপরিবারে জীবন দিয়ে তিনি আমাদের ঋণী করে গেছেন। সেই ঋণ কিছুটা হলেও শোধ করতে হবে। এ জন্য বছরব্যাপী নানা কর্মসূচির মাধ্যমে জাঁকজমকভাবে বঙ্গবন্ধু জন্ম শতবার্ষিকী পালন করা হবে। বিভিন্ন ধরনের প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। বিভাগ, জেলা ও ওয়ার্ড পর্যায় পর্যন্ত জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করা হবে।
দলের দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঞ্চালনায় যৌথসভায় বক্তব্য রাখেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মুকুল বোস, রাশিদুল আলম, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুর রহমান, আখতারুজ্জামান, হারুন অর রশিদ প্রমুখ।

ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশীদের সঙ্গে আজ কথা বলবেন শেখ হাসিনা
                                  

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির শীর্ষ দুই পদের প্রার্থীদের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রণয়ন করেছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পদ প্রত্যাশী ৩২৩ জনের পারিবারিক পরিচয়সহ জীবনবৃত্তান্ত এবং সাংগঠনিক ও গোয়েন্দা সংস্থার ৫ স্তরের রিপোর্ট যাচাই বাছাইয়ের পর তিনি এ তালিকা প্রণয়ন করেছেন।

আজ বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় গণভবনে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদপ্রত্যাশী ৩২৩ জনের সঙ্গে কথা বলে ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করবেন শেখ হাসিনা। সংশ্লিষ্ট সূত্র ইত্তেফাককে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

জানা গেছে, শুধু কেন্দ্রে নয়, সারাদেশের ছাত্রলীগে নতুন নেতৃত্ব আনবেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। কেন্দ্রের পাশাপাশি সারাদেশের সব জেলা কমিটির বিষয়েও খোঁজ নিয়েছেন তিনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাকা মহানগরের দুই অংশ ছাড়াও কেন্দ্রীয় কমিটির আংশিক কমিটি করে দিতে পারেন তিনি নিজেই। এছাড়া ঢাকা ও এর আশপাশের গুরুত্বপূর্ণ ইউনিটেও যোগ্য ও দক্ষ ছাত্রনেতাদের নাম দিয়ে দিতে পারেন নতুন নির্বাচিত সভাপতি-সম্পাদকের কাছে। তারা পরবর্তীতে এসব ইউনিটে কমিটি গঠন করবেন। মেয়াদপূর্তি না হলেও সাংগঠনিক গুরুত্ব বিবেচনায় অনেক জেলায় আসতে পারে নতুন কমিটি।

প্রসঙ্গত, গত ১১ ও ১২ মে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের ২৯তম জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ১১ মে বিকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মেলন উদ্বোধন করেন। পরদিন কাউন্সিল অধিবেশনে কাউন্সিলরদের সর্বসম্মতিক্রমে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের ক্ষমতা ছাত্রলীগের অভিভাবক শেখ হাসিনার ওপর অর্পন করা হয়। এবার ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে কম জল ঘোলা হয়নি। ছাত্রলীগের সম্মেলনের আগেই সংগঠনে বাহিরাগতদের অনুপ্রবেশ নিয়ে আলোচনা হয়। ছাত্রলীগের বিভিন্ন কমিটিতে ছাত্রশিবির, ছাত্রদল, পাক বাহিনীর সহায়তায় গঠিত শান্তি কমিটির কর্মকর্তাদের সন্তান-স্বজনদের নেতৃত্বে বসানোর অভিযোগ ওঠে। ছাত্রলীগের বিগত কমিটির সময়ে দুর্নীতি, চাঁদাবাজিসহ নানা অভিযোগে সমালোচিত হয় দেশের প্রাচীনতম ঐতিহ্যবাহী এই ছাত্র সংগঠনটি। গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টেও বলা হয়েছিল, ছাত্রলীগের মধ্যে তারেক রহমানের এজেন্ট ঢুকেছে। এই সব সমালোচনা এবং অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী ছাত্রলীগের সম্মেলনের আগেই জানিয়ে দিয়েছিলেন যে, এবার কমিটি নির্বাচনের মাধ্যমে হবে না, সমঝোতার মাধ্যমে হবে। এর প্রধান কারণ ছিল, ছাত্রলীগের কমিটি গঠনে নির্বাচনের সিন্ডিকেট। এই সিন্ডিকেট ভাঙতেই প্রধানমন্ত্রী কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে সমাঝোতায় বসার নির্দেশ দেন। কিন্তু সমঝোতা না হওয়ায় নেতৃত্ব নির্বাচন করতে কাউন্সিলরা শেখ হাসিনাকে দায়িত্ব দেন।

প্রতি বছরই ছাত্রলীগের সম্মেলনের আগে প্রাক্তন ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা কমিটি করার ক্ষেত্রে মূল ভূমিকা রাখেন। যে কমিটি হয়, সেটি হয় তাদের পকেট কমিটি। প্রাক্তন ছাত্রনেতাদের হাতিয়ার হয় ছাত্রলীগ। তাদের কারণেই ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে টেন্ডারবাজী, চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠে।
সম্মেলন শেষ হবার পর ছাত্রলীগের নেতৃত্ব লাভে ইচ্ছুকদের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী বিশেষ টিম থেকে তথ্য সংগ্রহ, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার তথ্য এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দসহ ৬টি উত্স থেকে তথ্য সংগ্রহ করেছেন। এক্ষেত্রে ছাত্রলীগ নিয়ে গা শিউরে ওঠা তথ্য-উপাত্ত উঠে এসেছে। ছাত্রলীগকে পরিকল্পিতভাবে জঙ্গি সংগঠনে পরিণত করার টার্গেট ছিল অনুপ্রবেশকারীদের। ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে কেন্দ্রীয় কমিটির বিভিন্ন পদের পাশাপাশি সারাদেশের বিভিন্ন জেলা ইউনিটে শিবির, ছাত্রদল, একাত্তরের পাক বাহিনীর সহায়তায় গঠিত শান্তি কমিটির সন্তান-স্বজনসহ স্বাধীনতাবিরোধী মতাদর্শের ছাত্রদের ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশ করানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী অওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে ঘরোয়া বৈঠকে আলোচনাকালে বলেছেন, ‘ছাত্রলীগকে পরিকল্পিতভাবে ধ্বংসের ষড়যন্ত্র চলছে। কিন্তু আমি বেঁচে থাকতে সেটা হতে দেবো না।’ এবার ছাত্রলীগে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক শীর্ষ এ দুই পদের জন্য ৩২৩ জন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। এর আগে কখনও এত বেশি সংখ্যক ছাত্রনেতা মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেননি, এটি রেকর্ড। এর মধ্যে সভাপতি পদে ১১১ জন এবং সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য ২১২ জন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন।

এদিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সম্প্রতি ধানমন্ডি দলীয় সভানেত্রীর কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘সংগঠনের কমিটি যাতে ভালো হয় এ জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই মনোনয়নপ্রত্যাশীদের বিভিন্ন খোঁজখবর সংগ্রহ করছেন।’ দেরি হলেও ছাত্রলীগের ভালো কমিটি আসবে। সবাই প্রশংসা করার মতো কমিটি আসবে।’
ডিটিভি বাংলা নিউজ

স্বজনরা দেখা করেছেন খালেদা জিয়ার সঙ্গে
                                  

কারাবন্দি বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। গতকাল শনিবার বিকাল ৪টা ২২ মিনিটে সাক্ষাতের জন্য তারা পুরান ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডে অবস্থিত পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রবেশ করেন। পরে সাক্ষাত্ শেষে ৫টা ৪০ মিনিটে কারাগার থেকে বের হন।

সাক্ষাত্ করতে যাওয়া পরিবার সদস্যরা হলেন, বেগম খালেদা জিয়ার বোন সেলিনা ইসলাম, ভাইয়ের স্ত্রী নাসরিন সাঈদ, তারেক রহমানের স্ত্রীর বড় বোন শাহিনা খান জামান, ভাগ্নে ডা. মামুন ও নিকটাত্মীয় মাসুদ। তবে তারা কারাগার থেকে বের হয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি।

কারাগারের একটি সূত্র জানিয়েছে, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা আগের মতো। কোনো উন্নতি নেই।

আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা শনিবার
                                  

আওয়ামী লীগের এক বিশেষ বর্ধিত সভা আগামী ৩০ জুন শনিবার সকাল ১১টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, দেশের তৃনমূল পর্যায়ের নেতা ও নির্বাচিত দলীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

দলের কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী সংসদ, উপদেষ্টা পরিষদ এবং রাজশাহী, বরিশাল, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের সকল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত দলীয় চেয়ারম্যান, জেলা পরিষদের নির্বাচিত দলীয় সদস্য ও মহানগর ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং দলীয় নির্বার্চিত কাউন্সিলররা সভায় উপস্থিত থাকবেন।

জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকগণকে নিজ নিজ জেলা ও মহানগরের অধীন ইউনিয়ন ওয়ার্ডের চেয়ারম্যান, কাউন্সিলর এবং জেলা পরিষদের সদস্যদের নামের তালিকা রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে পাঠানো এবং সংশ্লিষ্ট সকলকে সঙ্গে নিয়ে যথাসময়ে সভায় উপস্থিত থাকার জন্য বিজ্ঞপ্তিতে আহ্বান জানানো হয়।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সংশ্লিষ্ট সকলকে যথাসময়ে সভায় উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন।

বিপুল ভোটে মেয়র হলেন জাহাঙ্গীর
                                  

ডিটিভি বাংলা নিউজঃ
বিপুল ভোটে গাজীপুর সিটির মেয়র নির্বাচিত হলেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. জাহাঙ্গীর আলম। জাতীয় নির্বাচনের ৬ মাস আগে অনুষ্ঠিত এই সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীককে বেছে নিলেন নগরবাসী। নির্দলীয়ভাবে অনুষ্ঠিত গতবারের নির্বাচনে হারলেও এবার দলীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বড় ভোটের ব্যবধানে বিএনপির প্রার্থীকে পরাজিত করেছে।

৪২৫টি কেন্দ্রের মধ্যে গতকাল রাত পৌন ২টা পর্যন্ত অসমর্থিতসূত্রে সর্বশেষপ্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী ৩৪৫টি কেন্দ্রের ফলাফলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. জাহাঙ্গীর আলম নৌকা প্রতীকে ৩ লাখ ৫৬ হাজার ৩৯৪ ভোট পেয়েছেন। ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে বিএনপির প্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার পেয়েছেন ১ লাখ ৭০ হাজার ৮৫৫ভোট। ব্যালট পেপার ছিনতাই ও অনিয়মের কারণে ৯টি কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত রেখেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এখনো পর্যন্ত চূড়ান্ত ফলাফল না পাওয়া গেলেও নৌকা প্রতীক ধানের শীষের চেয়ে প্রায় দুই লাখের মতো ভোটে এগিয়ে আছে। অবশিষ্ট কেন্দ্রগুলোর ফলে ধানের শীষ প্রতীকের পক্ষে বিজয়ী হওয়া এক প্রকার অসম্ভব বলে নিশ্চিত করেছে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়। ফলে জাহাঙ্গীরে জয় শতভাগ নিশ্চিত। রিটার্নিং অফিসার ঘোষিত ১৫৬ কেন্দ্রে নৌকা পেয়েছে ১ লাখ ৪১ হাজার ৫৪ ভোট। ধানের শীষ পেয়েছে ৭৩ হাজার ২২৯ ভোট।

মঙ্গলবার রাতে বঙ্গতাজ অডিটোরিয়ামে অবস্থিত অস্থায়ী কার্যালয় থেকে রিটার্নিং অফিসার রকিবউদ্দিন মন্ডল প্রতিটি কেন্দ্রের ফলাফল ঘোষণার পরপরই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা আনন্দ উল্লাসে ফেটে পড়েন। আর বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মাঝে নেমে আসে হতাশা। ফলাফলের বিষয়ে এত তাত্ক্ষনিক প্রক্রিয়ায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম ইত্তেফাককে বলেন, আমি গাজীপুরবাসীর কাছে চিরকৃতজ্ঞ। আমি যে অঙ্গীকার করেছিলাম তা জীবন দিয়ে হলেও বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো। সিটি করপোরেশন সবার। আমি সবাইকে নিয়ে কাজ করবো।

অন্যদিকে, বিএনপির প্রার্থী হাসানউদ্দিন সরকার নির্বাচন কমিশন ঘোষিত ফলাফল প্রত্যাখান করেছেন। গতকাল সন্ধ্যায় নিজবাসভবনে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, এই ফল জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে। আমি জনগণের সঙ্গে আছি।

যদিও গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনে কিছু কেন্দ্র দখল, জাল ভোট প্রদান, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও বিএনপির পোলিং এজেন্টদের বের করে দেয়ার ঘটনা ঘটে। সন্ধ্যায় ভোটগ্রহণ শেষে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ সাংবাদিকদের বলেন, ৯টি কেন্দ্রে অনিয়ম-জালভোট ছাড়া বাকি ৪১৬টি কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণ ও উত্সবমুখর পরিবেশে নির্বাচন হয়েছে।

২০০৯ সালে গাজীপুর সদর উপজেলার ভাইস-চেয়ারম্যান পদে দুই লাখ ৯৭ হাজার ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়ে জাহাঙ্গীর আলম তাক লাগান সবাইকে। তিনি আবারও আলোচনায় আসেন ২০১৩ সালের মেয়র নির্বাচনের আগে। দল আজমত উল্লাহ খানকে মনোনয়ন দিলেও নাছোড় জাহাঙ্গীর মেয়র পদে দাঁড়ান। নানা নাটকীয়তার পর কান্নাজড়িত কণ্ঠে মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন। মনোনয়ন প্রত্যাহার করলেও ৩১১৯ ভোট পেয়েছিলেন জাহাঙ্গীর আলম। পরবর্তীতে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হন তিনি।

২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত নির্দলীয় নির্বাচনে বিএনপি জোট সমর্থিত অধ্যাপক আবদুল মান্নান টেলিভিশন প্রতীকে লড়াই করে ৩ লাখ ৬৫ হাজার ভোট পেয়ে প্রথম মেয়র নির্বাচিত হন। প্রতিদ্বন্দ্বি ১৪ দল সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আজমত উল্লাহ খান ২ লাখ ৫৮ হাজার ভোট পান। ১ লাখ ৭ হাজার ভোটের ব্যবধানে বিএনপির প্রার্থীর বিজয়ী হয়েছিলেন। যদিও সেই নির্বাচনে বেশির ভাগ ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর নির্বাচিত হন।

নির্বাচনে সাত মেয়র প্রার্থীর পাশাপাশি ৫৭টি সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ২৫৬ জন ও ১৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে নারী কাউন্সিলর পদে ৮৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। মেয়র পদে অন্য প্রার্থীরা হলেন-ইসলামী ঐক্যজোটের ফজলুর রহমান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. নাসির উদ্দিন, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মো. জালাল উদ্দিন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির কাজী মো. রুহুল আমিন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ফরিদ আহমদ।

গাজীপুর সিটি করপোরেশ নির্বাচনে এবারের ভোটার সংখ্যা ১১ লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৬জন। এর মধ্যে পুরুষ ৫ লাখ ৬৯ হাজার ৯৩৫ জন ও নারী ভোটার ৫ লাখ ৬৭ হাজার ৮০১ জন। এ সিটিতে এবার নতুন ভোটার এক লাখ ১১ হাজার। এছাড়া শ্রমিক ভোটার দুই লাখের বেশি। ৪২৫টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৩৩৭টি ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। ৬টি ভোটকেন্দ্রে ইভিএমে ভোট অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচনে প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারি প্রিজাইডিং এবং পোলিং অফিসার (ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন ৮ হাজার ৭০৮জন। নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রায় ১২ হাজার সদস্য দায়িত্ব পালন করেন।

উচ্চ আদালতে যাবেন হাসান সরকার

হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে বিএনপির নেতাকর্মীদের আটক করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির গাজীপুরের মেয়রপ্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার। তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের আগের দিন বিএনপির নেতাকর্মীদের আটক না করতে হাইকোর্ট ও নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে আমাদের নেতাকর্মীদের আটকসহ হয়রানি করা হয়েছে, এর প্রমাণ আমার কাছে আছে। এ নিয়ে আমি আইন বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে পরামর্শ করে উচ্চ আদালতে যাবো। কেন তারা হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে গ্রেফতার করেছে, এর একটা জবাব দিতে হবে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় টঙ্গীর নিজ বাড়িতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলোচনার সময় এসব কথা বলেন তিনি।

ইভিএমের ৬ কেন্দ্রে জয়ী নৌকা

গাজীপুরে ইভিএমের ছয় কেন্দ্রের ফলাফলে নৌকার প্রার্থী মো. জাহাঙ্গীর আলম তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির হাসান উদ্দিন সরকারের চেয়ে দ্বিগুণের বেশি ভোট পেয়েছেন। এই ছয় কেন্দ্রে মোট ১৪ হাজার ৪২৫ ভোটের মধ্যে জাহাঙ্গীরের নৌকা পেয়েছে মোট ৪ হাজার ৮১০ ভোট। অন্যদিকে হাসান সরকারের ধানের শীষ পেয়েছে মোট ২ হাজার ৩৩৮ ভোট। এই ৬ কেন্দ্রে ভোট পড়েছে প্রায় ৫৪ শতাংশ।

ভোট নিয়ে উদ্বেগ-আশঙ্কা গভীরতর হচ্ছে: রিজভী
                                  

ডিটিভি বাংলা নিউজঃ
গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, জনগণের মধ্যে ভোট নিয়ে উদ্বেগ ও আশঙ্কা গভীরতর হচ্ছে। গাজীপুরে সুষ্ঠু নির্বাচনের প্রধান অন্তরায় পুলিশ ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। গাজীপুরে বাছাই করে করে দলবাজ পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে।
আজ সোমবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন। রিজভী বলেন, আগামীকাল গাজীপুর সিটি করপোরেশনে যে ভোট হতে যাচ্ছে, সেখানে জনগণ অবাধে পছন্দ অনুযায়ী প্রার্থীকে ভোট দিতে পারবেন; এমন কোনো পরিবেশ এখনো দৃশ্যমান নয়।
বিএনপি চেয়ারপারসন কারাবন্দী খালেদা জিয়ার বিষয়ে রিজভী বলেন, ‘দ্বিধাহীন কণ্ঠে বলতে চাই, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি ও সুচিকিত্সার ব্যবস্থা করা হোক। নাহলে সরকারের অন্যায়ের কড়ায়-গন্ডায় হিসাব জনগণ আদায় করে নেবে।’

গাজীপুরে মধ্যরাত থেকে বন্ধ হচ্ছে ভোট প্রচারণা
                                  

আজ রবিবার দিবাগত মধ্যরাত থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ হচ্ছে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের সব ধরনের প্রচারকাজ। এ ছাড়া শনিবার মধ্যরাত থেকে বহিরাগতদের গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন এলাকায় অবস্থান নিষিদ্ধ করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।
ফলে গাজীপুরের ভোটার নন এমন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতারা আজ থেকে সেখানে অবস্থান করতে পারবেন না। এদিকে নির্বাচনী এলাকার নিরাপত্তায় আজ থেকে মাঠে নেমেছে অতিরিক্তসংখ্যক পুলিশ, র‍্যাব ও বিজিবি। আর এখন চলছে শেষ মুহূর্তের প্রচারণা।
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিব উদ্দিন মণ্ডল এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।
আজ আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম ও বিএনপির প্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার নেতাকর্মীদের নিয়ে সিটি কর্পোরেশন এলাকায় শেষবারের মতো প্রচারকাজে যোগ দেবেন।
গত ৩১ মার্চ গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ১৫ মে এ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সীমানা নির্ধারণ নিয়ে জটিলতা কেন্দ্র করে হাইকোর্ট গত ৬ মে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন তিন মাসের জন্য স্থগিত করে আদেশ দেন। এতে স্থগিত হয়ে যায় নির্বাচনী সব ধরনের কার্যক্রম। পরে হাইকোর্টের ওই আদেশের বিরুদ্ধে সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগে আপিল করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই মেয়রপ্রার্থী এবং নির্বাচন কমিশন। শুনানি শেষে ওই স্থগিতাদেশ স্থগিত করে নির্বাচন অনুষ্ঠান করার আদেশ দেন উচ্চ আদালত।
উচ্চ আদালতের আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে ২৬ জুন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করে দ্বিতীয় দফায় ঘোষণা দেয় নির্বাচন কমিশন।
এবার গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৫৭টি সাধারণ ও ১৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা ১১ লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার পাঁচ লাখ ৬৯ হাজার ৯৩৫ এবং নারী ভোটার পাঁচ লাখ ৬৭ হাজার ৮০১।

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
                                  

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৬৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন।
দিবসটি উপলক্ষে আজ শনিবার সকালে তিনি ধানমন্ডি ৩২ নম্বর বাড়িতে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তক অর্পণ করেন। এ সময় তিনি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন।
পরে, আওয়ামী লীগ সভাপতি হিসেবে শেখ হাসিনা দলের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে আরেকটি পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
এ সময় শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য এডভোকেট সাহারা খাতুন, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের উপস্থিত ছিলেন।
১৯৪৯ সালের এ দিনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠিত হয়। পরে এটি দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দলে পরিণত হয় এবং দলটির নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধ এবং পরবর্তীতে সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংঘটিত হয়।


   Page 1 of 28
     রাজনীতি
সবার মতামত নিয়েই গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষায় ব্যবস্থা :প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
শেখ হাসিনার অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব ---ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা
.............................................................................................
আমার সংসার টিকে আছে এইতো বেশি
.............................................................................................
যারা হামলা চালাচ্ছে তারাই বিচার চাইছে: মোশাররফ
.............................................................................................
আগামী দুই মাসের মধ্যে আমরা মাঠে নামবো: মওদুদ
.............................................................................................
খালেদাকে নিয়ে ভয়ঙ্কর মাস্টারপ্ল্যানের দিকে কারা কর্তৃপক্ষ: রিজভী
.............................................................................................
দিল্লি বিমানবন্দর থেকে ফিরিয়ে দেয়া হলো খালেদার ব্রিটিশ আইনজীবীকে
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিএনপির অনশন চলছে
.............................................................................................
২০২০ ও ২০২১ সাল ‘মুজিব বর্ষ’ পালনের ঘোষণা দিলেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশীদের সঙ্গে আজ কথা বলবেন শেখ হাসিনা
.............................................................................................
স্বজনরা দেখা করেছেন খালেদা জিয়ার সঙ্গে
.............................................................................................
আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা শনিবার
.............................................................................................
বিপুল ভোটে মেয়র হলেন জাহাঙ্গীর
.............................................................................................
ভোট নিয়ে উদ্বেগ-আশঙ্কা গভীরতর হচ্ছে: রিজভী
.............................................................................................
গাজীপুরে মধ্যরাত থেকে বন্ধ হচ্ছে ভোট প্রচারণা
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার কারামুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে কুড়িগ্রামে বিএনপির বিক্ষোভ
.............................................................................................
তিন সিটি নির্বাচনে যাবে বিএনপি
.............................................................................................
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির থানা-ওয়ার্ডের কমিটি ঘোষণা
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যার সঙ্গে সোনার বাংলা গড়তে কাজ করবো: আইনমন্ত্রী
.............................................................................................
মাদকবিরোধী অভিযানে হত্যাযজ্ঞ চলছে: মওদুদ
.............................................................................................
বিএনপিতে থাকা মাদক সম্রাটদের খুঁজে বের করা হবে: কাদের
.............................................................................................
আন্দোলনই শেষ ভরসা বিএনপির
.............................................................................................
আমার নাম বিকৃত করে ‘অমুক কাকা’ বলা সমীচীন হয়নি : বি. চৌধুরী
.............................................................................................
কারাগারে খালেদার সঙ্গে অমানবিকতার তুলনা নেই: ফখরুল
.............................................................................................
কেসিসির স্থগিত ৩ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ চলছে
.............................................................................................
১০ বছর ধরে শুনছি তিস্তার সমাধান হয়ে যাবে কিন্তু হয়নি: ফখরুল
.............................................................................................
ক্ষমতা হস্তান্তরে নির্বাচন ছাড়া বিকল্প নাই : আনোয়ার হোসেন মঞ্জু
.............................................................................................
বিরোধী দল নির্মূল করতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে ব্যবহার করছে সরকার: মির্জা ফখরুল
.............................................................................................
সরকারের চরিত্র তুলে ধরতে পারছে না দেশের গণমাধ্যম: খসরু
.............................................................................................
তারেক রহমানকে ফিরিয়ে আনা হবে : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর কথায় আস্থা রাখুন : কাদের
.............................................................................................
শিক্ষার্থীদের ধাওয়া খেয়ে জলকামান ফেলে পালাল পুলিশ
.............................................................................................
ছাত্রলীগ যেন কোন ভুল না করে: জাফর ইকবাল
.............................................................................................
সরকারের নামে একাউন্ট খোলা হচ্ছে: ড. মোশাররফ
.............................................................................................
খালেদা জিয়াসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ১৩ মে
.............................................................................................
`UNHCR’কে যুক্ত করতে রাজি মিয়ানমার
.............................................................................................
খালেদা ও তারেক ছাড়া নির্বাচন নয় : দুলু
.............................................................................................
‘দেশের অগ্রগতির বিষয়ে কাউকে কোন ছাড় দেয়া যাবে না’
.............................................................................................
নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে ক্ষমতায় আসবে জাতীয় পার্টি : এরশাদ
.............................................................................................
সরকার নতুন ফর্মুলা নিয়ে মাঠে নেমেছে : অামীর খসরু
.............................................................................................
আওয়ামী লীগের কর্মসূচিতে অংশগ্রহণে বাধ্য করা হচ্ছে : রিজভী
.............................................................................................
নির্বাচন পর্যন্ত মাঠ দখলে রাখবে ক্ষমতাসীনরা
.............................................................................................
সন্ত্রাসীর গুলিতে আহত পুলিশ কর্মকর্তা মৃত্যু
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার মামলায় পরামর্শ নিতে ব্রিটিশ আইনজীবী নিয়োগ
.............................................................................................
‘সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে কাজ করায় বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল দেশ’
.............................................................................................
আবারও বিক্ষোভ কর্মসূচির ঘোষণা বিএনপির
.............................................................................................
বিকালে দলের নির্বাহী কমিটির জরুরি সভা ডেকেছেন এরশাদ
.............................................................................................
নির্বাচনে যেতে বিএনপির ৪ শর্ত
.............................................................................................
১৯ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের ঘোষণা বিএনপির
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক : জাকির এইচ. তালুকদার ,
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : এস এইচ শিবলী ,
    [সম্পাদক মন্ডলী ]
সম্পাদক কর্তৃক ২ আরকে মিশন রোড থেকে প্রকাশিত।
ফোন: ০১৫৫৮০১১২৭৫, ই-মেইল:dailybortomandin@gmail.com
   All Right Reserved By www.dtvbangla.com Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]