বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
   * ঈদে ৭ দিন বন্ধ থাকবে বুড়িমারী স্থলবন্দর   * দেশে কমেছে কোটিপতির সংখ্যা   * গাবতলীতে যাত্রী বেশি হলেই ‘বাড়তি ভাড়া আদায়’   * স্থানীয় শিল্পের সুরক্ষায় গ্যাস-বিদ্যুৎ সরবরাহ বাড়ানোর দাবি   * শরিকদের কোন কোন মন্ত্রণালয় দিলো বিজেপি   * একমাত্র পশুহাট পরিচালনা করবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা নিজেই   * হজ পালনে সৌদির পথে পররাষ্ট্রমন্ত্রী   * তীব্র গরমে নাজেহাল পশ্চিমবঙ্গবাসী   * হাসপাতালে ভর্তি কিশোরীকে ধর্ষণচেষ্টা, যুবক গ্রেফতার   * ব্যাংক-জ্বালানি খাতের মতো রোগাক্রান্ত ফুসফুস মেরামতে বার্তা নেই  

   দেশজুড়ে -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ঈদে ৭ দিন বন্ধ থাকবে বুড়িমারী স্থলবন্দর

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দরে সাপ্তাহিক ছুটিসহ সাত দিনের ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এসময় দুই দেশের আমদানি রপ্তানির কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। তবে ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে দুই দেশের যাত্রী পারাপার চালু থাকবে।

বুধবার (১২ জুন) সকালে বুড়িমারী স্থলবন্দর কাস্টমস ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরওয়ার্ডিং এজেন্ট (সি অ্যান্ড এফ) অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ছায়েদুজ্জামান সায়েদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে সোমবার (৪ জুন) ত্রি-দেশীয় বুড়িমারী স্থল বন্দরের বোর্ডে ছুটির নোটিশ জারি করে কাস্টমস্ ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরওয়ার্ডিং এজেন্ট (সিঅ্যান্ডএফ) অ্যাসোসিয়েশন।

বুড়িমারী স্থলবন্দর সূত্রে জানা গেছে,পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে ছুটির বিষয়ে ভারতের চ্যাংরাবান্ধা ও বাংলাদেশের বুড়িমারী স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশন, আমদানি-রপ্তানিকারক অ্যাসোসিয়েশন, ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন, এক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশন ও ভুটান এক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশনসহ সংশ্লিষ্ট সব সংগঠনকে চিঠি প্রদান করা হয়েছে।

আগামী শনিবার (১৫ জুন) থেকে বৃহস্পতিবার (২০ জুন) পর্যন্ত টানা ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। সাপ্তাহিক ছুটি শুক্রবার থাকায় আগামী ২২ জুন শনিবার বুড়িমারী স্থলবন্দরে যথারীতি বন্দরের কার্যক্রম স্বাভাবিক হবে।

বুড়িমারী স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশ কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) আহসান হাবিব পলাশ বলেন, আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও বন্দর দিয়ে দুই দেশের পাসপোর্টধারী যাত্রীদের যাতায়াত স্বাভাবিক থাকবে।

এ ব্যাপারে বুড়িমারী শুল্ক স্টেশনের (কাস্টমস) সহকারী কমিশনার নাজমুল হাসান বলেন, দুই দেশের ব্যবসায়ীদের সিদ্ধান্তে এ স্থল শুল্ক স্টেশন ৭ দিন বন্ধের বিষয়ে চিঠি পেয়েছি।

ঈদে ৭ দিন বন্ধ থাকবে বুড়িমারী স্থলবন্দর
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দরে সাপ্তাহিক ছুটিসহ সাত দিনের ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এসময় দুই দেশের আমদানি রপ্তানির কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। তবে ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে দুই দেশের যাত্রী পারাপার চালু থাকবে।

বুধবার (১২ জুন) সকালে বুড়িমারী স্থলবন্দর কাস্টমস ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরওয়ার্ডিং এজেন্ট (সি অ্যান্ড এফ) অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ছায়েদুজ্জামান সায়েদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে সোমবার (৪ জুন) ত্রি-দেশীয় বুড়িমারী স্থল বন্দরের বোর্ডে ছুটির নোটিশ জারি করে কাস্টমস্ ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরওয়ার্ডিং এজেন্ট (সিঅ্যান্ডএফ) অ্যাসোসিয়েশন।

বুড়িমারী স্থলবন্দর সূত্রে জানা গেছে,পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে ছুটির বিষয়ে ভারতের চ্যাংরাবান্ধা ও বাংলাদেশের বুড়িমারী স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশন, আমদানি-রপ্তানিকারক অ্যাসোসিয়েশন, ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন, এক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশন ও ভুটান এক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশনসহ সংশ্লিষ্ট সব সংগঠনকে চিঠি প্রদান করা হয়েছে।

আগামী শনিবার (১৫ জুন) থেকে বৃহস্পতিবার (২০ জুন) পর্যন্ত টানা ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। সাপ্তাহিক ছুটি শুক্রবার থাকায় আগামী ২২ জুন শনিবার বুড়িমারী স্থলবন্দরে যথারীতি বন্দরের কার্যক্রম স্বাভাবিক হবে।

বুড়িমারী স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশ কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) আহসান হাবিব পলাশ বলেন, আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও বন্দর দিয়ে দুই দেশের পাসপোর্টধারী যাত্রীদের যাতায়াত স্বাভাবিক থাকবে।

এ ব্যাপারে বুড়িমারী শুল্ক স্টেশনের (কাস্টমস) সহকারী কমিশনার নাজমুল হাসান বলেন, দুই দেশের ব্যবসায়ীদের সিদ্ধান্তে এ স্থল শুল্ক স্টেশন ৭ দিন বন্ধের বিষয়ে চিঠি পেয়েছি।

একমাত্র পশুহাট পরিচালনা করবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা নিজেই
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার একমাত্র কোরবানির পশুর হাটের দরপত্র ডেকে কাঙ্ক্ষিত ইজারামূল্য পাওয়া যায়নি। ফলে পৌরসভা নিজেই পরিচালনা করবে জেলা শহরের ভাদুঘর বাস টার্মিনালের এই পশুর হাট। আগামী ১৩ জুন থেকে ঈদের আগের দিন পর্যন্ত বসবে এই পশুর হাট।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার অধীনস্থ একমাত্র কোরবানির পশুর হাটটি ভাদুঘর বাস টার্মিনালে অবস্থিত। প্রতিবছর ঈদের চারদিন আগে এই পশুর হাট বসে। গত বছর হাটটি ঈদের আগে চারদিনের জন্য ৭০ লাখ টাকা দরে ইজারা প্রদান করে পৌরসভা। এবছর ইজারা প্রদান করতে গত ২৮ মে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে দরপত্র আহ্বান করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা। এতে ৪ দিনে সম্ভাব্য ইজারামূল্য ধরা হয় এক কোটি টাকা।

দরপত্র জমার শেষ সময় ছিল সোমবার ১০ জুন দুপুর ১২টা। খোলার সময় রাখা হয় একইদিন দুপুর একটায়। এই সময়ের মধ্যে দরপত্রের সিডিউল বিক্রি হয় মাত্র দুটি এবং জমাও পড়ে এই দুটি সিডিউলই। সোমবার দরপত্র বাক্স খোলার পর দেখা যায় ওই দুটি দরপত্রে ইজারামূল্য উল্লেখ করা হয় একটিতে ৫০ লাখ এবং অপরটিতে ৬৫ লাখ টাকার বেশি। যা ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার সম্ভাব্য ইজারামূল্যের ৩৫ লাখ টাকা কম। চাহিদা অনুযায়ী ইজারামূল্য না পাওয়ায় একইদিন সভা করে পৌরসভা সিদ্ধান্ত নেয় নিজেরাই এই পশুহাট পরিচালনা করবে।

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল কুদ্দুস বলেন, চেষ্টা করেছি সম্ভাব্য মূল্য অনুযায়ী ইজারাদার পেতে, কিন্তু তা পাওয়া যায়নি। সরকারি মূল্যের কমেতো বাজার ইজারা দেওয়া যাবে না। এখন আমাদের হাতে সময় নেই। নতুন করে দরপত্র ডাক দিতে ন্যূনতম ১৫ দিন সময় রেখে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে হয়, কিন্তু এই সময় এখন নেই। তাই আর দরপত্র ডাক দেওয়া হয়নি। এখন আইন অনুযায়ী নিজেদেরই বাজার পরিচালনা করতে হবে। তবে তা অনেক কষ্টকর।

হাসপাতালে ভর্তি কিশোরীকে ধর্ষণচেষ্টা, যুবক গ্রেফতার
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

পাবনার ফরিদপুর উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি ১২ বছরের এক কিশোরীকে ধর্ষণচেষ্টার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত মোফাজ্জল হোসেন মোফাকে (৪৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতার মোফাজ্জল ফরিদপুর উপজেলার গোপালনগর গ্রামের আজাহার আলীর ছেলে।

ফরিদপুর থানায় দায়ের করা অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, রোববার (৯ জুন) দিবাগত রাত তিনটার দিকে মোফাজ্জল হোসেন নামের ওই যুবক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ২নং মহিলা ওয়ার্ডে প্রবেশ করেন। এরপর ওই ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ওই কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় তার চিৎকার শুনে বেডে থাকা তার মা এবং অন্যান্য রোগীর স্বজনরা ওই ব্যক্তিকে আটক করেন।

এ ব্যাপারে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. বিজুক খাতুন হাসপাতালের ইউএইচএ ডা. মনজুর রহমানকে জানান। ইউএইচএ সোমবার সকালে ফরিদপুর থানায় বিষয়টি লিখিতভাবে জানান। পরে পুলিশ এসে মোফাজ্জল হোসেনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

ফরিদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে শিশু ও নারী নির্যাতন আইনে মামলা হয়েছে। তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে পাবনা জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

চাঁদা আদায়কালে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার ৮
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

ফেনীর সোনাগাজীতে বিভিন্ন ট্রাক, মিনি ট্রাক ও সিএনজি অটোরিকশা থেকে অবৈধভাবে চাঁদা আদায়কালে আটজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। রোববার (৯ জুন) তাদেরকে আদালতে সোপর্দ করা হলে বিচারক তাদেরকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এর আগে শনিবার (৮ জুন) রাতে ডাক বাংলো, কলেজ রোড ও জিরো পয়েন্ট এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতাররা হলেন, উপজেলার উত্তর চর চান্দিয়া গ্রমের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে মো. জসিম উদ্দিন (৩০), মঙ্গলকান্দি ইউনিয়নের মির্জাপুর গ্রামের আব্দুস শুক্কুরের ছেলে মো. এমরান হোসেন (৩৬), পৌর এলাকার চর গনেশ গ্রামের মৃত ফজলুল হক চৌধুরীর ছেলে একেএম মাইনুল হক চৌধুরী মাঈনুদ্দীন (৩৭) , এ কে এম মোফাজ্জল হক চৌধুরী (৪৮), পৌর এলাকার পূর্ব চর গনেশ গ্রামের মো.হাবিবুল্লাহর ছেলে মো. শহিদুল ইসলাম (৩৪), পৌর এলাকার তুলাতুলী গ্রামের মৃত সিদ্দিক আহম্মদের ছেলে মো. নুর করিম (২৭), সোনাগাজী সদর ইউনিয়নের পূর্ব সুজাপুর গ্রামের মৃত আব্দুস সালামের ছেলে সিরাজুল ইসলাম (৪২) ও মতিগঞ্জ ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর গ্রামের করিমুল হকের ছেলে রবিঊল হক (২৯)।

র‌্যাব জানায়, জিজ্ঞাসাবাদ ও দেহ তল্লাশি করে বিভিন্ন গাড়ি হতে আদায়কৃত নগদ ৪৯ হাজার ৮০৫ টাকা ও বিভিন্ন নামে-বেনামে ভুয়া রশিদ জব্দ করা হয়।

র‌্যাব-৭ ফেনী ক্যাম্পের অধিনায়ক স্কোয়াড্রন লিডার মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, র‌্যাবের উপপরিদর্শক (এসআই) সৌরভ হোসেন বাদী হয়ে পৃথক দুটি মামলা করেছেন। রোববার আসামিদের থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

২৮ মামলার আসামি যুবদল নেতাকে কুপিয়ে হত্যা
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

বগুড়ার কাহালুতে নিজ বাড়ির সামনে যুবদল নেতা ও ২৮ মামলার আসামি ব্রাজিল ইসলামকে (৩২) কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার (৮ জুন) রাত ১১টার দিকে উপজেলার পোড়দহ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর থেকে ওই গ্রামে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে৷

নিহত ব্রাজিল ওই গ্রামের শাজাহান আলীর ছেলে। তিনি বগুড়া পৌর যুবদলের ১৫ ওয়ার্ড কিমিটির সভাপতি ছিলেন।

তার মরদেহ সুরহতালের জন্য কাহালু থানায় নিয়েছে পুলিশ। রোববার সকালে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ পাঠানো হয়৷

ঘটনার পর থেকে জড়িতদের গ্রেফতারে অভিযান শুরু করে পুলিশ। পরিবারের দাবি, পূর্ব শত্রুতার জেরে পরিকল্পিতভাবে স্থানীয় ইউপি সদস্য আক্তারুলসহ সোহেল, করিম ও মঞ্জু এই নৃশংস হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।

নিহতের স্ত্রী পপি আক্তার জানান, শনিবার রাতে স্থানীয় বাজারে আড্ডা দিয়ে মোটরমোটরসাইকেল যোগে ব্রাজিল বাড়ি ফিরছিলেন। বাড়িতে প্রবেশের মাত্র দুই মিনিট আগে দুর্বৃত্তরা তার পথরোধ করে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে৷ প্রাণ বাঁচাতে তিনি সেখান থেকে দৌঁড়ে প্রতিবেশীদের বাড়িতে আশ্রয় নেওয়ার চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে দুর্বৃত্তরা ব্রাজিলের মৃত্যু নিশ্চিত করে এক প্রতিবেশীর বাড়ির আঙিনায় ফেলে রেখে চলে যান।

পপি আক্তার বলেন, পরিকল্পিতভাবে ব্রাজিলকে ইউপি সদস্যসহ তার কয়েকজন সহযোগী হত্যা করেছে। ঘটনার পর তাদের সেখান থেকে পালাতেও দেখেছি৷ ওদের সবার ফাঁসি চাই।

পুলিশ জানিয়েছে, অস্ত্র, বিস্ফোরক, মাদক, সন্ত্রাসবিরোধী, বিশেষ ক্ষমতা আইন, চাঁদাবাজি ও এসিড নিক্ষেপসহ ২৮টি মামলার আসামি ছিলেন নিহত ব্রাজিল।

কাহালু থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিম রেজা বলেন, জড়িতদের শনাক্ত ও গ্রেফতারে অভিযান শুরু হয়েছে৷ পুলিশের একাধিক টিম মাঠে কাজ করছে৷

পুলিশ পরিচয়ে অপকর্ম, ৩ যুবক গ্রেফতার
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

জামালপুর সদর উপজেলায় পুলিশ পরিচয় দেওয়া তিন যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, তারা পুলিশ পরিচয়ে বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করতেন।

শনিবার (৮ জুন) দুপুরে গ্রেফতারদের কোর্টে সোপর্দ করা হয়েছে। বিকেলে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ মহব্বত কবীর এই তথ্য নিশ্চিত করেন।

এর আগে, শুক্রবার (৭ জুন) রাতে শহরের সেতুলি হোটেলে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়।

গ্রেফতাররা হলেন গাইবান্ধা জেলার সাঘাটার জাহাঙ্গীর হোসেন চৌধুরীর ছেলে জাকির হোসেন ওরফে ইমন চৌধুরী (৩০), একই জেলার সুন্দরগঞ্জের শহিদুল ইসলামের পুত্র সোহেল রানা (২১) এবং হবিগঞ্জ জেলার লাখাই এলাকার মাখন মিয়ার পুত্র সারফিন আহমেদ তানভীর (২৫)।

ওসি মহব্বত কবীর বলেন, আসামিরা দেশের বিভিন্ন জায়গায় দীর্ঘদিন ধরে পুলিশ পরিচয়ে অপরাধমূলক কাজ সংঘটিত করে আসছিলেন। শুক্রবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শহরের সেতুলি হোটেলে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে পুলিশের পোশাক, পুলিশের লগো লাগানো চাবি রিং, মোবাইলসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম জব্দ করা হয়। এ ব্যাপারে সদর থানায় মামলার পর তাদেরকে কোর্টে সোপর্দ করা হয়েছে।

বিসিসির পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম নিয়ে অসন্তোষ
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) কর্মকর্তা ও মাঠ পর্যায়ের কর্মীদের সমন্বয়হীনতার কারণে ভোগান্তিতে পড়েছেন নগরবাসী। তাদের উদাসীনতায় পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।

ভুক্তভোগীরা জানান, সড়কের বিভিন্ন নির্ধারিত স্থানে (ডাম্পিং স্পট) দীর্ঘ সময় ময়লা পড়ে থাকায় সেটি থেকে দুর্গন্ধ ছড়ানোয় ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে নগরবাসীর। অবস্থা এমন যে ওই সব সড়কের আশপাশ থেকে চলাচল করা দায় হয়ে পড়েছে।

এ অবস্থায় নগরীর ৩০টি ওয়ার্ডে পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম তদারকির জন্য (৬ জুন) বৃহস্পতিবার ৮ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। কমিটি প্রথমদিন পরিদর্শন করে নগরীর পরিচ্ছন্নতার কাজে অনিয়ম পেয়েছে বলে জানা গেছে।

মনিটরিং কমিটির সদস্য বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) প্রশাসনিক শাখার প্রধান সহকারী মো. লকিতুল্লাহ সিকদার বলেন, পরিচ্ছন্নতা বিভাগের পরিদর্শক, সুপারভাইজার কী করেন তা দেখভাল করার জন্য মেয়র এ কমিটি করেছেন। বৃহস্পতিবার রাত ৯টা থেকে ১টা পর্যন্ত মাঠে নেমে বেশ কিছু অনিয়ম চোখে পড়েছে। দেখা গেছে, হাতেম আলী কলেজ চৌমাথা থেকে ২২-২৩ নম্বর ওয়ার্ডে ময়লা পড়ে রয়েছে। বিএম কলেজের সামনে যে ময়লা রাখে তা নিয়ে অভিযোগ রয়েছে এলাকাবাসীর। কলেজের অধ্যক্ষের বাসভবনের সামনে এভাবে ময়লার ডাম্পিং হতে পারে না। তিনি বলেন, আমাদের যে পরিমাণ জনবল তাতে নগর এতটা পরিচ্ছন্নতায় ঘাটতি থাকতে পারে না। মনিটরিং কমিটি আগামী রোববার এ নিয়ে সভা ডেকেছে।

বিসিসির পরিচ্ছন্নতা কর্মকর্তা মো. ইউসুফ আলী বলেন, ৩০টি ওয়ার্ডে কর্মীরা কী কাজ করে সেটি তদারকি করার জন্য কমিটি গঠন করা হয়েছে। আসলে পেরেশানিতে না রাখলে কাজের গতিও আসে না। নগরীর পরিচ্ছন্নতা কাজ কীভাবে করা হচ্ছে, তা কতটা নগরবাসীর উপকারে এসেছে জানতে চেয়েছেন মেয়র। এরপর ওই মনিটরিং কমিটি করা হয়।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, নগরীর নবগ্রাম রোডের আলমগীর ছাত্রাবাসের বিপরীতের সড়কে, টিটিসি, শিক্ষা বোর্ড, বিএম কলেজ, অক্সফোর্ড মিশন স্কুলের সামনে ময়লার স্তূপ হয়ে থাকে রাত পর্যন্ত। এদিকে নগরীর চৌমাথা এলাকায় অধিকাংশ ড্রেনের স্ল্যাব চুরি হওয়ায় ওইসব ফুটপাত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। হাতেম আলী কলেজের সামনে দীর্ঘদিন ধরে একটি ভবনের নির্মাণসামগ্রী রাস্তা দখল করে ফেলে রাখায় পথচারীদের চলাফেরায় চরম বিঘ্ন ঘটছে।

আলমগীর ছাত্রাবাসের বিপরীতে থাকা ময়লার ভাগাড়ের পাশেই রয়েছে মসজিদ। মুসল্লিদের অভিযোগ, এ ময়লার কারণে মসজিদে আসতে যেতে তাদের ভোগান্তির শিকার হতে হয়। গন্ধ সহ্য করতে হয়।

সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন বরিশাল নগরীর সমন্বয়ক কাজী এনায়েত হোসেন বলেন, সন্ধ্যার পর রাস্তার বিভিন্ন ডাম্পিং স্পট দিয়ে গন্ধে মানুষ হাঁটতে পারেন না। অলিগলিতে পরিচ্ছন্নতা নাই বললেই চলে। দুর্বল পরিচ্ছন্ন বিভাগ দিয়ে এ নগর পরিপাটি রাখা কঠিন হবে।

নগরীর ২৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর এনামুল হক বাহার বলেন, আমার এলাকা জনবহুল। ১৬ হাজার ভোটার আছে। অথচ পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম চালাতে একটি ডাস্টবিনও নাই। কমপক্ষে ১০টি ডাস্টবিন দরকার। পরিচ্ছন্নতাকর্মীও খুবই কম। ফলে ওয়ার্ডবাসীকে যথাযথ পরিচ্ছন্ন সেবা দেওয়া যাচ্ছে না।

এ ব্যাপারে বিসিসির জনসংযোগ কর্মকর্তা আহসান উদ্দিন রুমেল বলেন, সড়কে নির্মাণসামগ্রী রাখার বিষয়ে কয়েকবার মাইকিং করে জনসচেতনতা সৃষ্টি করা হয়েছে। এরপরও প্রতিবন্ধকতা করা হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দ্বিতীয় স্বামীর কাছে না ফেরায় অন্তঃসত্ত্বা নারীকে ছুরিকাঘাত
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

শরীয়তপুরের ডামুড্যায় সাবেক স্বামীর কাছে ফিরতে না চাওয়ায় ফাতেমা মুন্নি (৩০) নামের এক অন্তঃসত্ত্বা নারীকে ছুরিকাঘাতে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (৫ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের কুতুবপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত ফাতেমা মুন্নি উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের তিলই এলাকার বিল্লাল হোসেনের স্ত্রী।

অভিযুক্তের নাম শরিফুল শেখ। তিনি গোপালগঞ্জ জেলার মোকসেদপুর উপজেলার চর পদ্মবিল এলাকার তৈয়ব শেখের ছেলে।

ভুক্তভোগী নারী, প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ভেদরগঞ্জ উপজেলার মহিষার ইউনিয়নের সাজনপুর এলাকার মৃত দেলোয়ার হোসেন ছৈয়ালের মেয়ে ফাতেমা মুন্নির সঙ্গে অন্তত ৬ বছর আগে বিয়ে হয় ডামুড্যা উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের তিলই এলাকার বিল্লাল হোসেনের। তাদের সংসারে ৫ বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

ফাতেমা মুন্নি ১ বছর আগে মোবাইল ফোনে পরিচয়ের মাধ্যমে পুনরায় বিয়ে করেন গোপালগঞ্জ জেলার মোকসেদপুর উপজেলার চর পদ্মবিল এলাকার তৈয়ব শেখের ছেলে শরিফুল শেখকে। তবে কয়েক মাস সংসার করার পরে ফাতেমা মুন্নি জানতে পারেন শরিফুলের আরেকটি স্ত্রী রয়েছে। পরে শরিফুলকে ডিভোর্স দিয়ে প্রথম স্বামী বিল্লাল হোসেনের কাছে ফিরে আসেন তিনি।

এদিকে এই ঘটনার পর থেকেই ক্ষিপ্ত হন শরিফুল। তিনি ফাতেমা মুন্নিকে তার সংসারে ফিরে যাওয়ার জন্য একাধিকবার ফোন দিয়ে বিরক্ত করতে থাকেন। বুধবার সন্ধ্যায় শরিফুল ফাতেমা মুন্নিকে আর বিরক্ত করবে না বলে শেষ বারের মতো দেখা করার কথা বলে ডামুড্যায় আসেন। একপর্যায়ে তারা দেখা করেন এবং রিকশায় ফাতেমাকে বাড়ি পৌঁছে দেয়ার কথা বলেন। তারা রিকশা নিয়ে কুতুবপুর এলাকায় আসলে হঠাৎ শরিফুল তার পকেট থেকে একটি ছুরি বের করে পেটের মধ্যে ঢুকিয়ে দেন। এসময় ফাতেমা নিজেকে বাঁচাতে চেষ্টা করলে তার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ছুরি দিয়ে জখম করে পালিয়ে যান শরিফুল। এ সময় পথচারীরা তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠান কর্তব্যরত চিকিৎসক।

ভুক্তভোগী ফাতেমা মুন্নি বলেন, শরিফুলকে ডিভোর্স দিয়ে স্বামী-সন্তান নিয়ে ভালোই চলছিলাম। কিন্তু শরিফুল বার বার ফোন দিয়ে আমাকে বিরক্ত করতে থাকে। আজ শেষবারের মতো দেখা করার কথা বলে আমার কাছে অনুরোধ করে। আমি বিশ্বাস করে ওর সঙ্গে দেখা করি। রিকশায় ঘুরতে ঘুরতে একটি নির্জন এলাকায় নিয়ে শরিফুল আমার পেটে ছুরি ঢুকিয়ে দেয়।

এ ব্যাপার সদর হাসপাতালের চিকিৎসা কর্মকর্তা অমিত সেনগুপ্ত বলেন, ওই নারীটিকে গুরুতর আহত অবস্থায় নিয়ে আসা হয়েছিল। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে পেটের নিচের অংশের আঘাতটি খুবই গুরুতর, প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে তার খাদ্যনালী আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে। তাছাড়া নারীটি বলছিলেন তিনি পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। এই অবস্থায় তার দ্রুত অপারেশন প্রয়োজন। যদি সঠিক সময়ে চিকিৎসা না হয়, তার জীবন সংশয় হতে পারে।

ডামুড্যা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমারত হোসেন বলেন, এক নারীকে কেউ আঘাত করেছে এবং তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে এমন একটি খবর পেয়েছি। এবে এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

পানিবন্দি সিলেটের দুই উপজেলায় চলছে ভোটগ্রহণ
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

দুই পৌরসভা ও ১৭টি ইউনিয়ন বন্যায় প্লাবিত। এর মধ্যেই সিলেটের জকিগঞ্জ ও কানাইঘাট উপজেলায় চলছে ভোটগ্রহণ। ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের চতুর্থ ও শেষ ধাপে সিলেটের সীমান্তবর্তী এই দুই উপজেলায় বুধবার (৫ জুন) সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ চলছে।

অসংখ্য গ্রাম প্লাবিত থাকায় বুধবার সকাল থেকে ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি কম দেখা গেছে। ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে কয়েকদিনের বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলে সৃষ্ট বন্যায় এই দুই উপজেলার প্রায় আড়াই লাখ মানুষ এখনও বন্যা কবলিত। বন্যায় দুই উপজেলার তিন শতাধিক গ্রাম প্লাবিত রয়েছে।

মঙ্গলবার রাত ১০টায় সিলেট জেলা প্রশাসনের তথ্য অনুযায়ী, বন্যায় সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার পৌরসভা ও ৯টি ইউনিয়ন প্লাবিত রয়েছে। এ উপজেলার ১১৩টি গ্রাম এখন পর্যন্ত প্লাবিত রয়েছে। এসব এলাকায় বন্যা কবলিত মানুষের সংখ্যা ১ লাখ ৫৬ হাজার ১৪৭ জন। উপজেলার ৫৫ আশ্রয়কেন্দ্রে ৪০৮ জন মানুষ অবস্থান করছেন।

অন্যদিকে কানাইঘাট উপজেলাতেও পৌরসভা ও ৮টি ইউনিয়ন প্লাবিত রয়েছে। বন্যায় এই উপজেলায় ১৯০টি গ্রাম এখনও প্লাবিত। এসব এলাকায় বন্যা কবলিত মানুষের সংখ্যা ৮০ হাজার ৬১০ জন। বুধবার পর্যন্ত ৩২টি আশ্রয়কেন্দ্রে ৪১ জন অবস্থান করছেন।

জেলা প্রশাসন আরও জানায়, জকিগঞ্জ-কানাইঘাটসহ বিভিন্ন উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হওয়ায় গত ১২ ঘণ্টায় ২ হাজার ১১ জন লোক আশ্রয়কেন্দ্র ছেড়ে নিজ বাড়িতে গেছেন।

নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, কানাইঘাট উপজেলায় ২ লাখ ৮ হাজার ৯৯৯ জন ভোটার রয়েছেন। এরমধ্যে ১ লাখ ১২ হাজার ১১৫ জন পুরুষ ও ১ লাখ ৬ হাজার ৭৮৪ জন নারী। এছাড়া জকিগঞ্জে ১ লাখ ৯১ হাজার ৫১৩ জন ভোটারের মধ্যে ৯৯ হাজার ২২৫ জন পুরুষ ও ৯২ হাজার ২৮৮ জন নারী।

দুই উপজেলায় ২৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে জকিগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন। অন্যদিকে কানাইঘাট উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৭ জন, ভাইস চেয়ারম্যন পদে ৪ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রের ইমরুল হাসান বলেন, নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা মোতাবেক ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। বন্যা পরিস্থিতি বিবেচনা করে জকিগঞ্জের ৫টি ও কানাইঘাটের ৪টি কেন্দ্র পরিবর্তন করা হয়েছে।

সুনামগঞ্জে বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে ভোগান্তিতে দুই লাখ মানুষ
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

টানা বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে দ্রুত বাড়ছে সুনামগঞ্জের নদ-নদীর পানি। সেইসঙ্গে ডুবে যাচ্ছে নিম্নাঞ্চলের রাস্তাঘাট। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন ২ লাখেরও বেশি মানুষ।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সপ্তাহখানেক ধরে সুনামগঞ্জের নদ-নদীর পানি কখনো কমছে আবার কখনো বাড়ছে। এতে চরম দুশ্চিন্তায় পড়েছেন সুনামগঞ্জের ২০ লাখেরও বেশি মানুষ। তবে সেই দুশ্চিন্তা যেন গতকালের বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢল আরও বাড়িয়ে দিলো।

সোমবার (৩ জুন) সকাল থেকে সুনামগঞ্জে মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছে। সেইসঙ্গে ভারতের চেরাপুঞ্জিতে বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকায় নামছে পাহাড়ি ঢল। ফলে দ্রুত গতিতে বাড়ছে জেলার সুরমা, কুশিয়ারা, বৌলাই, রক্তি ও যাদুকাটা নদীর পানি। এতে বন্যার আতঙ্ক আর উৎকণ্ঠায় সময় পার করছেন ভাটির জেলার বাসিন্দারা।

এদিকে পাহাড়ি ঢলের পানিতে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর, ছাতক ও দোয়ারা বাজারসহ বেশ কয়েকটি উপজেলার নিম্নাঞ্চলের রাস্তাঘাট তলিয়ে গেছে। বিশেষ করে সুনামগঞ্জের দোয়ারা বাজারের শরীফপুর গ্রামের প্রধান সড়ক ঢলের পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় দোয়ারাবাজার উপজেলার সঙ্গে সরাসরি সড়ক পথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে সুরমা, লক্ষ্মীপুর, বাংলাবাজারসহ তিন ইউনিয়নের।

এছাড়াও বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার দূর্গাপুর সড়ক ডুবে যাওয়ায় সুনামগঞ্জ জেলা শহরের সঙ্গে তাহিরপুর উপজেলার সরাসরি সড়ক পথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। এতে ছোট নৌকায় করে বাড়তি ভাড়া দিয়ে গন্তব্যস্থলে যাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। সেইসঙ্গে পানির কারণে রাস্তার পাশে আটকে পড়েছে ছোট-বড় প্রায় ৫০টি যানবাহন। এমনকি ঢলের পানিতে নিম্নাঞ্চলের রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওয়ায় প্রায় ২ লক্ষাধিক মানুষ ভোগান্তিতে পড়েছেন।

ভোগান্তিতে পড়া মানুষরা জানান, পাহাড়ি ঢলের পানিতে রাস্তাঘাট তলিয়ে গেছে, এখন গন্তব্যস্থলে যেতে আমাদের বাড়তি ভাড়া যেমন গুণতে হচ্ছে তেমন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য মতে, সুনামগঞ্জে গত ২৪ ঘণ্টায় ৭৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। সেইসঙ্গে সুনামগঞ্জের নদ-নদীর পানি ৪ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার ২৬ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মামুন হাওলাদার বলেন, বৃষ্টিপাত ও উজানের ঢল অব্যাহত থাকলে সুনামগঞ্জের সকল নদ-নদীর পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করবে। এতে এই জেলায় স্বল্প মেয়াদী একটা বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে।

‘ভোটবিহীন সরকার তৈরিতে বেনজীর-আজিজদের লাগে’
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী বলেছেন, ‘শেখ হাসিনা একটা ফ্যাসিস সরকার তৈরি করেছে। ভোটবিহীন এ কাজে তার বেনজীরকে লাগে, লাগে আজিজদের। জনগণের ভোট তার (শেখ হাসিনা) লাগে না। সে আবার জিয়াউর রহমানের পরিবারকে নিয়ে কটূক্তি করে। তাতে বিএনপি বা জিয়া পরিবারের কিছু যায় আসে না।’

সোমবার (৩ জুন) সন্ধ্যায় জেলা পরিষদ মিলনয়াতনে (বিডি হল) বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে যশোর জেলা বিএনপি আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী আরও বলেন, বিএনপি ন্যায্য দাবি আদায়ে আন্দোলনের ডাক দিলে কলা-কচু ক্ষেত, বাঁশ বাগান থেকে খুঁজে আন্দোলন নস্যাৎ করতে নেতাকর্মীদের ধরে নিয়ে আসে পুলিশ। আর হাজার হাজার কোটি টাকা লুটে নিয়ে বেনজীর বিদেশে পালিয়ে যাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, ওবায়দুল কাদের, পুলিশ কিছুই জানে না? এটাও জনগণকে বিশ্বাস করতে হবে?

তিনি প্রশ্ন তোলেন, কোটি কোটি টাকা পাচার করে, দুনীর্তি করে বিদেশে পালিয়ে যাচ্ছে, সেটা এই সরকার জানে না? সরকার আসলে সবই জানে।’

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক বেনজীরের প্রসঙ্গ তুলে তিনি আরও বলেন, ‘ক্ষমতায় থাকতে বেনজীরকে দিয়ে অনেক ক্ষমতার অপব্যবহার করেছে এই সরকার। এই বেনজীরকে দিয়ে এই সরকার বিরোধী দলকে দমন, রাতের ভোট করে, মানবাধিকার লঙ্ঘনের মতো কাজ করেছে। হঠাৎ করে বেনজীরের দুর্নীতি আমলনামা ফুটে উঠলো কেন? এর কারণ সরকার আর বেনজীরের মধ্যে ভাগভাটোয়ারা নিয়ে গণ্ডগোল হয়েছে।’

দেশে উন্নয়নের নামে গল্প শোনানো হয় মন্তব্য করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব বলেন, দেশে এতই উন্নয়নের গল্প হয়, আসলে উন্নয়ন এই দেশের খেটে খাওয়া মানুষের হয়নি। দেশে মোটা চালের দাম বাড়লেও চিকন চালের দাম বাড়ে না। এর কারণ চিকন চাল ধনীদের খাবার। মোটা চাল গরিবের খাবার। এই সরকার ধনীদের উন্নতি করছে। উন্নতি করছেন আমলাদের, দুনীর্তিবাজদের। উন্নয়ন করেছেন জেনারেল আজিজদের, উন্নয়ন করছেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের, এমপি-মন্ত্রী আওয়ামী লীগের ঠিকাদার ব্যবসায়ীদের। এই সরকার খেটে খাওয়া গরিব মানুষের কোনো উন্নয়ন করেনি।

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অধ্যাপক নার্গিস বেগমের সভাপতিত্বে এ সময় বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক (খুলনা বিভাগ) অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. মো. রফিকুল ইসলাম, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক (খুলনা বিভাগ) জয়ন্ত কুমার কুন্ডু, সহ ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক অমলেন্দু দাস অপু, সহ স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক জাহানারা সিদ্দিকী, সাবেক দপ্তর সম্পাদক মফিকুল হাসান তৃপ্তি, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু ও আবুল হোসেন আজাদ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চলনা করেন জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকন।

স্বামীর বাড়িতে না যাওয়ায় কিশোরীকে শিকলে বেঁধে নির্যাতন
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

বরিশালে স্বামীর বাড়িতে না যাওয়ায় হাবিবা আক্তার (১৩) নামে এক কিশোরীকে শিকলে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে নিজ পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে। শনিবার (১ জুন) রাতে কিশোরীর মা ও পরিবারের অন্য সদস্যরা তাকে শিকলে বেঁধে নিজ ঘরে আটক রাখেন।

হাবিবা জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলার বাগধা ইউনিয়নের দক্ষিণ চাঁদত্রিশিরা গ্রামের জামাল হাওলাদার ও মারুফা বেগম দম্পতির মেয়ে।

রোববার (২ জুন) দুপুরে খবর পেয়ে আগৈলঝাড়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। সেসময় মেয়েটির পরিবারের সঙ্গে কথা বলে সার্বিক পরিস্থিতির খোঁজ খবর নেন আগৈলঝাড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জহিরুল ইসলাম।

তিনি জানান, মেয়েটিকে তার পরিবারের সদস্যরা জোর করে অন্য একজায়গায় বিয়ে দেন। কিন্তু মেয়েটির অন্য এক ছেলেকে পছন্দ থাকায় সে সেখানে যেতে চায়। এ কারণে মেয়েটিকে তার পরিবারের সদস্যরা বেঁধে রেখেছে বলে খবর পাই। কিন্তু ঘটনাস্থলে গিয়ে মেয়েটিকে শিকলে বেঁধে রাখার কোনো বিষয় চোখে পড়েনি।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দুই মাস আগে স্কুলছাত্রী হাবিবার পরিবারের সদস্যরা জোর করে সাজিদ মোল্লার সঙ্গে বিয়ে দেন। সাজিদ একই উপজেলার রাজিহার ইউনিয়নের রাংতা গ্রামের শাহজাহান মোল্লার ছেলে। বিয়ের পর স্বামী ও তার পরিবারের নির্যাতন সইতে না পেরে শনিবার সকালে পালিয়ে ওই স্কুলছাত্রী বাবার বাড়িতে চলে আসে। তখন মা মারুফা বেগম, বাবা জামাল হাওলাদার ও দুলাভাই আলামিন আকনসহ কয়েকজন মিলে হাবিবাকে শিকল ও রশি দিয়ে ঘরের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে মারধর করেন।

এ ঘটনা টের পেয়ে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেন। এরপর শনিবার রাতে আগৈলঝাড়া থানা পুলিশ ওই স্কুলছাত্রীকে উদ্ধারে বাসায় যান। পুলিশ আসার খবরে হাবিবার পরিবারের সদস্যরা ঘরে তালা দিয়ে পালিয়ে যান।

হাবিবার মা মারুফা বেগম বলেন, আমরা দরিদ্র হওয়ায় হাবিবার লেখাপড়ার খরচ বহন করতে পারছিলাম না। তাই তাকে বিয়ে দিয়ে দিই। স্বামীর বাড়িতে ফিরে না যাওয়ার কারণে শিকলে বেঁধে রাখা হয়েছিল।

এ ব্যাপারে আগৈলঝাড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জহিরুল ইসলাম জানান, স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে ওই স্কুলছাত্রীকে উদ্ধারে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছিল। কিন্তু বিষয়টি পরিবারের সদস্যরা টের পেয়ে ঘরের দরজায় তালা লাগিয়ে পালিয়ে গেছে।

বাড়ির সীমানা নিয়ে বিরোধে বড় ভাইয়ের হাতে ছোটভাই খুন
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

মাদারীপুরের রাজৈরে বাড়ির সীমানার জায়গা নিয়ে বিরোধের জেরে বড় ভাইয়ের আঘাতে ছোট ভাই খুন হয়েছেন।

রোববার (২ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রাজৈর উপজেলার বদরপাশা ইউনিয়নের শংকরদী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত লাবলু বয়াতী (৪৫) একই গ্রামের মৃত ইসরাফিল বয়াতীর ছেলে। এ ঘটনায় পুলিশ অভিযুক্ত বড় ভাই বাবুল বয়াতীর স্ত্রী পারুল বেগমকে গ্রেফতার করেছেন।

পুলিশ, পারিবারিক ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বাড়ির সীমানার জায়গা নিয়ে আপন দুই ভাই বাবুল বয়াতী ও লাভলু বয়াতীর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। ছোট ভাই লাভলু বয়াতী রোববার মাগরিবের নামাজ পড়ে বাড়িতে আসেন। তখন বড় ভাই বাবুল বয়াতীর সঙ্গে ছোট ভাই লাভলু বয়াতীর কথা কাটাকাটির এক পর্যায় দুই ভাইয়ের মধ্যে ধস্তাধস্তি ও মারামারি হয়। এ সময় ছোট ভাই লাভলু মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে লাভলুকে রাজৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের স্ত্রী নাছিমা বেগম বলেন, ভাসুর বাবুল বয়াতী আমার স্বামীকে মারপিট করে মেরে ফেলেছেন। এই হত্যার বিচার চাই।

রাজৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান হাওলাদার বলেন, এই ঘটনায় বড় ভাই বাবুল বয়াতীর স্ত্রী পারুল বেগমকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জীবনের শেষ সম্বল দিয়েও ঘর পাননি ৮২ বছরের কুটি খাতুন
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

ফরিদপুরের নগরকান্দায় সরকারি ঘর দেওয়ার কথা বলে কুটি খাতুন নামে এক বৃদ্ধা ভিক্ষুকের কাছ থেকে টাকা নিলেও ঘর দেননি ইউপি চেয়ারম্যান মো. কামরুজ্জামান সাহেব ফকির।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগীর অভিযোগ, মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বামী হারান নগরকান্দা উপজেলার চরযশোরদি ইউনিয়নের বড় শ্রীবরদী গ্রামের ৮২ বছর বয়সী কুটি খাতুন। স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে জীবনযুদ্ধ করে যাচ্ছেন তিনি। পেটের তাগিদে মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবন-যাপন করছেন। বসবাস করছেন প্রতিবেশীর ঝুপড়ি একটি ঘরে। শেষ বয়সে একটি সরকারি ঘরে মাথা গোঁজার স্বপ্ন দেখেন তিনি। আর সেই স্বপ্ন পূরণের জন্য ২ বছর আগে ভিক্ষা করে জমানো ১৫ হাজার টাকা তুলে দেন স্থানীয় এক ইউপি চেয়ারম্যানের হাতে। তবে এখনো মেলেনি তার সরকারি ঘর। এমনকি ফেরত পাননি টাকাও। তাছাড়া এখন পর্যন্ত কোনো ভাতার তালিকায়ও তার নাম ওঠেনি। অসহায় কুটি খাতুন বড় শ্রীবরদী গ্রামের মৃত ইউসুফ মাতুব্বরের স্ত্রী।

প্রতিবেশীরা জানান, মুক্তিযুদ্ধের বছর মারা যান কুটি খাতুনের স্বামী ইউসুফ মাতুব্বর। তার দুটি ছেলে থাকলেও তারা কেউ মায়ের খোঁজখবর নেন না। স্বামীর সম্পত্তি বলতে একটু ভিটা ছাড়া মাথা গোঁজার মতো ঘর নেই। প্রতিবেশীর একটি ঝুপড়ি ঘরে থেকে ভিক্ষা করে পেট চালান তিনি। বর্তমানে অনাহারে অর্ধাহারে কাটছে তার জীবন।

ভুক্তভোগী কুটি খাতুন অভিযোগ করে জাগো নিউজকে বলেন, সরকারি ঘর দেওয়ার কথা বলে গত প্রায় ২ বছর আগে চরযোশরদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সাহেব ফকির আমার কাছ থেকে ১৫ হাজার টাকা নেয়। কিন্তু টাকা নিলেও ঘর দেয়নি। আমি ঘরের জন্য অনেকবার ঘুরেছি, কোনো লাভ হয়নি। এখন দুই হাত তুলে আল্লাহর কাছে বিচার চেয়েছি।

ওই ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার) নাসির খান বলেন, ওই বৃদ্ধা বারবার আমার কাছেও এসেছেন। ঘর ও টাকা ফেরত দেওয়ার বিষয়টি জানিয়েছেন। আমি চেয়ারম্যানকে বিষয়টি অবগত করলেও এ ব্যাপারে তিনি কোনো গুরুত্ব দেননি।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত চরযোশরদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. কামরুজ্জামান সাহেব ফকির বলেন, কুটি খাতুন নামে আমি কাউকে চিনিই না। তবে শুনেছি, সরকারি ঘরের জন্য পাচী নামে এক মহিলা তার এক আত্মীয়কে ১৩ হাজার টাকা দিয়েছিল। আমি জানার পর সেই টাকা পাচীকে ফেরত দিয়েছে। এখন আমার নামে শুধু শুধু মিথ্যা অভিযোগ তুলছে।

এ বিষয়ে নগরকান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কাফী বিন কবির জাগো নিউজকে বলেন, এ বিষয়ে কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। তবে এ বিষয়ে তদন্ত করে টাকা নেওয়ার প্রমাণ মিললে অভিযুক্ত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তাছাড়া অসহায় এই মহিলাকে অতি দ্রত সরকারি ভাতার আওতায় আনা হবে।

বিলের জন্য আটকে রাখলো হাসপাতাল, প্রাণ গেলো শিশুর
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

মানিকগঞ্জ মুন্নু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার অভাবে দেড় বছরের এক শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। স্বজনদের অভিযোগ, মাত্র ৩ হাজার টাকা পরিশোধ না করায় কর্তৃপক্ষ রোগীকে আটকে রাখে। এ কারণে বিনা চিকিৎসায় তার মৃত্যু হয়েছে।

এ ঘটনায় হাসপাতাল চত্বরে বিক্ষোভ করেছেন স্বজনরা। রোববার (২ জুন) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত শিশুটির স্বজনরা জানান, শনিবার (১জুন) দিবাগত রাত ২টার দিকে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে শিবালয় উপজেলার বকচর গ্রামের সোহেল গাজীর দেড় বছরের শিশু সন্তান রেদোয়ানকে মুন্নু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। রাতে শিশুর অবস্থা আরও খারাপ হলে রোববার সকাল ৮টায় উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রেফার্ড করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

মারা যাওয়া শিশুর চাচা আবু হোসেন অভিযোগ করে জানান, ঢাকার রেফার্ড করলেও ৩ হাজার টাকা বিলের জন্য রোগী ও স্বজনদের আটকে রাখে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। আটকে থাকা অবস্থায় কোনোরকম চিকিৎসা না পেয়ে দুপুর ১২টার দিকে রেদোয়ান মারা যায়।

ঘটনা জানার পর ঘটনাস্থলে পুলিশ আসে। এসময় নিহতের স্বজনরা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের এ ধরনের অমানবিক কর্মকাণ্ডে ক্ষোভ প্রকাশ করে হাসপাতালের অভ্যন্তরে বিক্ষোভ করেন বলেও জানান তিনি।

এ বিষয়ে মুন্নু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। কারো দোষ প্রমাণিত হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঘিওর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুকুমার বিশ্বাস জানান, মারা যাওয়া শিশুর স্বজনরা অভিযোগ দিলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সম্পর্ক ছিন্ন করায় কিশোরীকে তুলে নিয়ে দলবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ
                                  

ডিটিভি অনলাইন ডেস্ক:

শরীয়তপুরের ডামুড্যায় প্রেমের সম্পর্ক ছিন্ন করায় এক কিশোরীকে তুলে নিয়ে দলবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে সাবেক প্রেমিক ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে। ঘটনার একদিন পর ওই কিশোরীকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ ও স্থানীয়রা।

ভুক্তভোগী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওই কিশোরীর সঙ্গে আড়াই বছরের প্রেমের সম্পর্ক ছিল উপজেলার ছোট সিধলকুড়া এলাকার খোদা বক্স প্যাদার ছেলে ও গোসাইরহাট সরকারি শামসুর রহমান কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সিয়াম প্যাদার (১৯)। সম্প্রতি তাদের প্রেমের সম্পর্কের টানাপোড়েন হলে অন্তত ২০ দিন আগে সম্পর্ক ছিন্ন করে ওই কিশোরী। এরপর থেকেই তার ওপর ক্ষিপ্ত হন প্রেমিক সিয়াম।

বৃহস্পতিবার ওই কিশোরী কলেজ থেকে বাড়ি ফিরছিল। সে ডামুড্যার ফরাজির টেক পৌঁছালে সিয়াম ও তার চার সহযোগী ওই কিশোরীর গতিরোধ করে এবং কিছু না বোঝার আগেই তার হাত-মুখ বেঁধে পরিত্যক্ত একটি ঘরে নিয়ে আটকে রেখে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন।

এদিকে ওই কিশোরী বাড়ি না ফেরায় পরিবারের লোকজন বিভিন্ন স্থানে খোঁজ চালাতে থাকে, একপর্যায়ে খোঁজ না পেলে থানা পুলিশকে বিষয়টি জানায়। শুক্রবার রাতে সিধলকুড়া এলাকার একটি কাঠের ব্রিজে ওই কিশোরীর চোখ ও হাত-পা বাঁধা অবস্থায় দেখতে পায় স্থানীয়রা। তারা পুলিশকে জানালে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও শনিবার উন্নত চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে পাঠায়।

ভুক্তভোগীর বাবা বলেন, মেয়ে নিখোঁজ হলে থানা পুলিশকে বিষয়টি জানাই। রাতে বাড়ি ফেরার পথে জানতে পারি মেয়ে হা-পা ও চোখ বাঁধা অবস্থায় সিধলকুড়া ব্রিজে পড়ে আছে। পরে পুলিশসহ মেয়েকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাই। যারা আমার মেয়ের সঙ্গে এমন করেছে তাদের সকলের উপযুক্ত বিচার চাই। যাতে অন্য কোনো বাবার সন্তানের সঙ্গে এমন ঘটনা না ঘটে।

এ বিষয়ে সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) মিতু আক্তার বলেন, ধর্ষণের ঘটনা উল্লেখ করে এক কিশোরীকে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসা হয়েছিল। এটি ধর্ষণ কি না সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়ার জন্য আলামত সংগ্রহ ও ডাক্তারি পরীক্ষা চলছে। ফলাফল আসলে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

অন্যদিকে ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্ত সিয়াম। তার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

ডামুড্যা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমারত হোসেন বলেন, হাত-পা বাঁধা অবস্থায় এক কিশোরীকে উদ্ধারের পর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।


   Page 1 of 25
     দেশজুড়ে
ঈদে ৭ দিন বন্ধ থাকবে বুড়িমারী স্থলবন্দর
.............................................................................................
একমাত্র পশুহাট পরিচালনা করবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা নিজেই
.............................................................................................
হাসপাতালে ভর্তি কিশোরীকে ধর্ষণচেষ্টা, যুবক গ্রেফতার
.............................................................................................
চাঁদা আদায়কালে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার ৮
.............................................................................................
২৮ মামলার আসামি যুবদল নেতাকে কুপিয়ে হত্যা
.............................................................................................
পুলিশ পরিচয়ে অপকর্ম, ৩ যুবক গ্রেফতার
.............................................................................................
বিসিসির পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম নিয়ে অসন্তোষ
.............................................................................................
দ্বিতীয় স্বামীর কাছে না ফেরায় অন্তঃসত্ত্বা নারীকে ছুরিকাঘাত
.............................................................................................
পানিবন্দি সিলেটের দুই উপজেলায় চলছে ভোটগ্রহণ
.............................................................................................
সুনামগঞ্জে বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে ভোগান্তিতে দুই লাখ মানুষ
.............................................................................................
‘ভোটবিহীন সরকার তৈরিতে বেনজীর-আজিজদের লাগে’
.............................................................................................
স্বামীর বাড়িতে না যাওয়ায় কিশোরীকে শিকলে বেঁধে নির্যাতন
.............................................................................................
বাড়ির সীমানা নিয়ে বিরোধে বড় ভাইয়ের হাতে ছোটভাই খুন
.............................................................................................
জীবনের শেষ সম্বল দিয়েও ঘর পাননি ৮২ বছরের কুটি খাতুন
.............................................................................................
বিলের জন্য আটকে রাখলো হাসপাতাল, প্রাণ গেলো শিশুর
.............................................................................................
সম্পর্ক ছিন্ন করায় কিশোরীকে তুলে নিয়ে দলবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ
.............................................................................................
বগুড়ায় অনুমোদনহীন জ্বালানি তেলের দোকানে ভয়াবহ আগুন
.............................................................................................
মৃত্যুর ১৫ বছর পর কবর থেকে তোলা হলো অক্ষত মরদেহ
.............................................................................................
ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারককে অবরুদ্ধ, দুই ছাত্রলীগ নেতার কারাদণ্ড
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরে ফায়ার সেফটির সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আহত ৫
.............................................................................................
রিমালে ক্ষতিগ্রস্তদের দেখতে আজ কলাপাড়া যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
বগুড়ায় আবারো ব্যাংকের ভল্ট লুটের চেষ্টা
.............................................................................................
ব্যবসায়ীর বাড়িতে পাবলিক টয়লেট
.............................................................................................
কুয়াকাটার সব হোটেল-মোটেলকে আশ্রয়কেন্দ্র ঘোষণা
.............................................................................................
ঠাকুরগাঁওয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই ভাইয়ের মর্মান্তিক মৃত্যু
.............................................................................................
মন্দিরে নির্বাচনী সভা, খাবার বিতরণসহ মেয়রের অনুদান
.............................................................................................
গাজীপুরে আগুনে ৩ কলোনির শতাধিক বসতঘর-দোকান ভস্মীভূত
.............................................................................................
এবার উপজেলা নির্বাচনের মাঠে নায়ক সাইমন
.............................................................................................
প্রতিবাদই কাল হলো এইচএসসি পরীক্ষার্থী হুসাইনের
.............................................................................................
ছাদ ঢালাইয়ের কাজের সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু
.............................................................................................
এক মাস ৮ দিন পর উৎপাদনে ফিরেছে চাঁদপুর বিদ্যুৎ কেন্দ্র
.............................................................................................
বোনকে মারধর, বাঁচাতে গিয়ে ছুরিকাঘাতে ভাই খুন
.............................................................................................
পুকুরে ডুবে নির্মাণশ্রমিক, ডোবায় পড়ে শিশুর মৃত্যু
.............................................................................................
সিরাজগঞ্জে চার মাদরাসায় পাস করেনি কেউ
.............................................................................................
ক্যাম্পে রোহিঙ্গা হেড মাঝিকে তুলে নিয়ে গুলি করে হত্যা
.............................................................................................
কুমিল্লা বোর্ডে বেড়েছে পাসের হার ও জিপিএ-৫
.............................................................................................
তিনদিন বন্ধ থাকতে পারে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে যান চলাচল
.............................................................................................
কেন্দ্রের সামনে টাকা বিতরণ, সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার আটক
.............................................................................................
একদিন আগে নাঙ্গলকোট উপজেলা পরিষদ নির্বাচন স্থগিত
.............................................................................................
দুর্নীতির দায়ে পুরস্কার বাতিল প্রধান শিক্ষকের
.............................................................................................
মাঠে কাজ করছিলেন স্বামী, খাবার দিতে গিয়ে বজ্রপাতে গৃহবধূ নিহত
.............................................................................................
ব্যবসার টাকা নিয়ে ঝগড়ায় ছোটভাইকে কুপিয়ে হত্যা
.............................................................................................
সুন্দরবনের আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে: ফায়ার সর্ভিস
.............................................................................................
সুনামগঞ্জে অব্যাহত বৃষ্টিতে বাড়ছে নদ-নদীর পানি
.............................................................................................
সিলেটে সাত সকালে কালবৈশাখীর তাণ্ডব
.............................................................................................
সুন্দরবনের আগুন নিয়ন্ত্রণে, ধোঁয়া দেখলেই পানি স্প্রে
.............................................................................................
২৪ ঘণ্টায়ও নেভেনি সুন্দরবনের আগুন, সময় লাগবে ২-৩ দিন
.............................................................................................
যশোরে চেয়ারম্যান প্রার্থীর বাড়ির সামনে বোমা বিস্ফোরণ
.............................................................................................
উখিয়ার ক্যাম্পে রোহিঙ্গা যুবককে গলা কেটে হত্যা
.............................................................................................
ঝড়ের সময় ঘরে গাছচাপা পড়ে মা-ছেলে নিহত
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
চেয়ারম্যান: এস.এইচ. শিবলী ।
সম্পাদক, প্রকাশক: জাকির এইচ. তালুকদার ।
হেড অফিস: ২ আরকে মিশন রোড, ঢাকা ১২০৩ ।
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: বাড়ি নং ২, রোড নং ৩, সাদেক হোসেন খোকা রোড, মতিঝিল বা/এ, ঢাকা ১০০০ ।
ফোন: 01558011275, 02-৪৭১২২৮২৯, ই-মেইল: dtvbanglahr@gmail.com
   All Right Reserved By www.dtvbangla.com Developed By: Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop    
Dynamic SOlution IT Dynamic POS | Super Shop | Dealer Ship | Show Room Software | Trading Software | Inventory Management Software Computer | Mobile | Electronics Item Software Accounts,HR & Payroll Software Hospital | Clinic Management Software Dynamic Scale BD Digital Truck Scale | Platform Scale | Weighing Bridge Scale Digital Load Cell Digital Indicator Digital Score Board Junction Box | Chequer Plate | Girder Digital Scale | Digital Floor Scale