| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
   * রেমিট্যান্স পাঠানোয় ঘোপলা প্রবাসীদের ব্যাংকে   * ফরিদপুরে পৃথক তিনটি সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ১০, আহত ২৫   * রাজবাড়ী থেকে মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার   * রাজবাড়ীতে নতুন ৮ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি   * গোয়ালন্দে মাইক্রোবাসের ধাক্কায় বাস চালকের মৃত্যু   * ফরিদপুর জেলার নগরকান্দায় আদালতের আদেশ অমান্য করে নির্মান হচ্ছে গ্রামীনফোন টাওয়ার   * ভারত থেকে মানহীন বাস-ট্রাক আমদানি করছে বিআরটিসি   * ‘জয় শ্রী রাম’ বলেও জীবন বাঁচাতে পারল না মুসলিম ছেলেটা   * ভালোবাসা হৃদয় না বিজ্ঞানের খেলা!   * ব্যাংক বুথে ডিজিটাল জালিয়াতি: ৬ বিদেশি রিমান্ডে  

   জাতীয়
  ‘আমাদেরও অনেকেই মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মিশে গেছে’ এক পুলিশ সুপারের রোমহর্ষক অভিজ্ঞতা
  25, May, 2018, 10:40:1:PM

ডিটিভি বাংলা নিউজঃ
পুলিশের একটি অংশ ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদকে আসক্ত। তাদের সামাল দেওয়া বড় কঠিন। কারণ তাদের অধিকাংশ মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মিশে গেছে। একই সঙ্গে তারা মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নিয়মিত মাসোহারাও পাচ্ছে। তাই মাদক নির্মূলের পাশাপাশি জড়িত পুলিশ সদস্যদের নিয়ন্ত্রণে রাখাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।’ ভারতের সীমান্তবর্তী এলাকার একটি জেলার পুলিশ সুপার ইত্তেফাকের সঙ্গে আলাপকালে মাঠ পর্যায়ের মাদক সম্পর্কে এমন ভয়াবহ অভিজ্ঞতার তথ্য তুলে ধরে বলেন, যারা নিয়ন্ত্রণ করবে, সেই নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থার সদস্যরা যদি খায়, পাচারে জড়িত থাকে, তাহলে মাদক পাচার রোধ কিভাবে সম্ভব? তবে আমরা কঠিন ও সঠিক থাকলে মাদক ব্যবসায়ীরা টিকতে পারবে না। অনুসন্ধানে জানা গেছে, শুধু সীমান্তবর্তী ওই জেলা নয়, রাজধানী থেকে শুরু করে দেশের সব জেলারই অভিন্ন চিত্র।
সীমান্তবর্তী এ জেলার চারটি উপজেলায় ১৬ লক্ষাধিক মানুষের বসবাস। এ এলাকায় ২১৫ জন তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী রয়েছে। এছাড়া এ জেলায় ১১শ’ মাদক বিক্রেতা সক্রিয় রয়েছে। জেলার সব উপজেলায় পাড়া-মহল্লা, গ্রাম পর্যায়ে প্রকাশ্যে মাদক বিক্রয় হচ্ছে। মুদির দোকান, ওষুধের দোকান এমনকি ফেরি করে মাদক বিক্রি হচ্ছে। ছোট শিশু থেকে শুরু করে সবাই মাদক বহন করছে। অধিকাংশ থানার ওসিসহ পুলিশের কর্মকর্তারা নিয়মিত মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নিয়মিত মাসোহারা পেয়ে থাকেন। প্রতিদিন ৫০ হাজার থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঘুষ মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে থানা পুলিশের কাছে যায়। মাদকবিরোধী অভিযানে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে গুলি বিনিময়কালে এ জেলায় ইতোমধ্যে ২ জন নিহত হয়েছে। গ্রেফতার হয়েছে ৬০ জন।
ওই পুলিশ সুপার বলেন, সন্ধ্যার পর সীমান্তবর্তী এ জেলার সর্বত্র বসে মাদকের হাট। গ্রামে হাঁটতে গিয়ে গায়ে গায়ে লাগছে মাদকাসক্ত ও বিক্রেতারা। এভাবে মাদক ছড়িয়ে পড়ার পেছনে আমরাই দায়ী। পুলিশ সিরিয়াস হলে মাদক ব্যবসায়ীদের টিকে থাকা সম্ভব নয়। ওই পুলিশ সুপার কর্মস্থলে যোগদানের পর ৪ থানার ওসিসহ অন্যান্য কর্মকর্তা, কনস্টেবলদের (মুসলমান) কোরআন শরীফে হাত দিয়ে শপথ করিয়েছেন, তারা যেন মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ঘুষ গ্রহণ না করেন। একইভাবে অস্ত্র হাতে তাদের শপথ করিয়েছেন। এই শপথের পর ৫০ ভাগ সফল হয়েছে। বাকি ৫০ ভাগ আগের অবস্থায় রয়েছে। তবে তিনি এমন ব্যবস্থা নিচ্ছেন যে, বাকি ৫০ ভাগ ঘুষ ছাড়তে বাধ্য। কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন, রেঞ্জের ডিআইজি ও জেলার এসপি যদি তাদের কাছ (থানা পুলিশ ও মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে) থেকে ঘুষ গ্রহণ না করেন কোন অবস্থাতেই শহর থেকে গ্রামাঞ্চলে মাদক বিক্রি কিংবা ব্যবসা করা সম্ভব হবে না এবং এ ব্যবসা টিকে থাকতে পারবে না। তার এই শপথের পর পুলিশের চেয়ে বেশি সাধারণ মানুষ কিংবা বিভিন্ন পেশার মানুষ স্বতঃস্ফুর্তভাবে মাদক নির্মুল অভিযানে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। এতে মাদক নির্মুলের অভিযানে ফলাফলের সফলতা অনেক বেশি পাচ্ছেন। এছাড়া সেবনে জড়িতদের পুনর্বাসনেরও ব্যবস্থা করছেন এই পুলিশ সুপার। সম্প্রতি একজনকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি ওই জেলা সদর এলাকার বাসিন্দা এবং রাজধানীর নামকরা ক্লাবের ফুটবলার ছিলেন। তার বাবা মারা যাওয়ার পর তিনি গ্রামে চলে যান। তিনি ছিলেন বাবার একমাত্র পুত্র। মা ও অপর দুই বোনের দেখাশুনার জন্য ফুটবল ছেড়ে গ্রামে চলে যান। কিন্তু সেখানে গিয়ে গ্রামের বন্ধু-বান্ধবদের পাল্লায় পড়ে ইয়াবায় আসক্ত হন। ইয়াবার টাকার জন্য একমাত্র পুত্র সন্তান মাকে প্রায়ই মারধর করতেন। পরে মা পুলিশ সুপারের কাছে ফুটবলার এই পুত্রের করুণ কাহিনী তুলে ধরেন। পুলিশ সুপার পরে তাকে গ্রেফতার করার নির্দেশ দেন। পুলিশ সুপার নিজেই ফুটবলারকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। ইয়াবা গ্রহণ থেকে শেষ পর্যন্ত পুরো কাহিনী তিনি তুলে ধরেন। এক পর্যায়ে হ্যান্ডকাপ পরা অবস্থায় পুলিশ সুপারের পায়ে জড়িয়ে বলেন, স্যার আমি বাঁচতে চাই। আমাকে শেষবারের মতো একটু সুযোগ দিন। এসপি নিজ উদ্যোগে তাকে চিকিত্সা থেকে আরম্ভ করে পুনর্বাসনের দায়িত্ব নেন। এক সপ্তাহের মধ্যে লোকটি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসেন। তিনি পুলিশ সুপারকে বলেন, আমি সুস্থ। আমার মাকে যে নির্যাতন করলাম ইয়াবার জন্য, এখন কিভাবে মায়ের কাছে ক্ষমা চাইবো। এমন কুপুত্রকে ক্রয়ফায়ার দেন, আমি আর বাঁচতে চাই না। মা একমাত্র পুত্র সন্তানকে ক্ষমা করে বাড়িতে নিয়ে যান এবং এখন স্বাভাবিকভাবে সংসার পরিচালনা করছেন। এখন তিনি শুধু বলেন, ইয়াবার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ছাড়া কোন বিকল্প নেই। তরুণ সমাজকে রক্ষা করার জন্য সকল অভিভাবকদের একযোগে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান। ইত্তেফাকের সঙ্গে আলাপকালে এই তরুণ একই অভিমত ব্যক্ত করেন।
জানা গেছে, দেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় যেসব আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য কাজ করেন তার প্রায় সবগুলোতে একটি শ্রেণি তৈরি হয়েছে, যারা সরাসরি ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদক পাচারে জড়িত। তাদের কেউ ছুটিতে গেলেও নিজের পকেটে করে ইয়াবা নিয়ে যায়। কেউ কেউ ছুটিতে বড় বড় ইয়াবার চালান নিয়েও যাচ্ছে। এখন মাদক সীমান্তবর্তী এছাড়া ছাড়িয়ে সারাদেশের অলিগলি ও গ্রাম পর্যায় পর্যন্ত পৌঁছে গেছে। কোনো কোনো রেঞ্জের কর্মকর্তা কিংবা পুলিশ সুপার থেকে শুরু করে থানার একশ্রেণির কর্মকর্তার পৃষ্ঠপোষকতায় ইয়াবা পাচার হচ্ছে। ৫ লাখ থেকে ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত মাসে ওই পুলিশ কর্মকর্তাদের ইয়াবা ব্যবসায়ীরা উেকাচ দিয়ে থাকে। পুলিশের ভিতরে এমনভাবে ইয়াবা পাচারের সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে, এটা ভাঙতে না পারলে ইয়াবার পাচার রোধ কোনোভাবেই সম্ভব না।



       
   শেয়ার করুন
Share Button
   আপনার মতামত দিন
     জাতীয়
ফাইভ-জি চালুতে বিশ্বের প্রথম দিকেই থাকবে বাংলাদেশ: জয়
.............................................................................................
সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে চিকিত্সা পাবেন মুক্তিযোদ্ধারা
.............................................................................................
এইচএসসিতে কমলো পাসের হার ও জিপিএ-৫
.............................................................................................
‌পরীক্ষার সময় কমিয়ে আনলে শিক্ষার্থীদের মনোযোগ বাড়বে
.............................................................................................
ইলেক্ট্রোনিক পদ্ধতিতে ভাতা বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
সরকারের লক্ষ্য নতুন প্রজন্মকে মানবসম্পদে পরিণত করা: শিক্ষামন্ত্রী
.............................................................................................
আমরা চাই দেশে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকুক : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
মন্ত্রিসভায় জাতীয় কৃষিনীতির খসড়া অনুমোদন
.............................................................................................
জনবসতিপূর্ণ অঞ্চলে ঢালাও শিল্পাঞ্চল করা যাবে না
.............................................................................................
রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে কক্সবাজারে গুতেরেস ও কিম
.............................................................................................
ঢাকায় বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্ট
.............................................................................................
সংসদে ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট পাস
.............................................................................................
বিশ্বে ব্যয়বহুল শহরের তালিকায় ঢাকা ৬৬ তম
.............................................................................................
শহীদ জননী জাহানারা ইমামের ২৪তম মৃত্যুবার্ষিকী মঙ্গলবার
.............................................................................................
আঞ্চলিক যোগাযোগ জোরদারে প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্বারোপ
.............................................................................................
বাংলাদেশ থেকে লোক নেওয়া স্থগিত করেছে মালয়েশিয়া
.............................................................................................
তিন দিনব্যাপী ডিসি সম্মেলন শুরু ২৪ জুলাই
.............................................................................................
নদীবন্দরসমূহকে এক নম্বর সতর্কতা সংকেত
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরেছেন
.............................................................................................
লঘুচাপ নিম্নচাপে পরিণত, আজও বৃষ্টি হবে
.............................................................................................
কানাডার গভর্নর জেনারেল আয়োজিত নৈশভোজে প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিমানবাহিনীর বিদায়ী এবং নবনিযুক্ত প্রধানের সাক্ষাৎ
.............................................................................................
সাগর-রুনি হত্যা: তদন্ত প্রতিবেদন মেলেনি আজো
.............................................................................................
১৪ বছরে গ্রেফতার ৭২ হাজার
.............................................................................................
সব নাগরিক পাবেন সমান পেনশন
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর সম্পর্কে সংবাদ সম্মেলন বিকালে
.............................................................................................
ঈদে বাসযাত্রার আগাম টিকেট বিক্রি আজ থেকে শুরু
.............................................................................................
অভিযানের আগাম তথ্য পুলিশের সোর্সের মাধ্যমে পেয়ে যাচ্ছে মাদক ব্যবসায়ীরা
.............................................................................................
‘আমাদেরও অনেকেই মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মিশে গেছে’ এক পুলিশ সুপারের রোমহর্ষক অভিজ্ঞতা
.............................................................................................
মাদকের গডফাদাররা আত্মগোপনে
.............................................................................................
ঢাকা-দিল্লি সহযোগিতা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক অবস্থান সুদৃঢ় করতে হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর
.............................................................................................
সিটি নির্বাচনে এমপিদের প্রচারণার সুযোগ দিল ইসি
.............................................................................................
আলোচনার মাধ্যমে ৬টি ধারা সংশোধনের আশ্বাস আইনমন্ত্রীর
.............................................................................................
দেশের বাইরে যে বাড়িতে প্রথম ওড়ে বাংলাদেশের পতাকা
.............................................................................................
ডিজিটাল ব্যবস্থায় লন্ডনে ১৩টি ফাইলে স্বাক্ষর প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
আজ সৌদি আরব সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
বাদশার আমন্ত্রণে সৌদি যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
ঢাকায় আসছেন ভারতের পররাষ্ট্র সচিব
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার সাজা বাড়াতে দুদকের আবেদন বেআইনি: রিজভী
.............................................................................................
রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীকে ট্রাম্পের শুভেচ্ছা
.............................................................................................
একটি প্রদেশকে রাষ্ট্রে পরিণত করেছেন বঙ্গবন্ধু: প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
বিশ্বের দ্বিতীয় সেরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
.............................................................................................
ত্রিভুবনে ২৩ বাংলাদেশির লাশবাহী গাড়ী
.............................................................................................
নেপালে বিমান দুর্ঘটনায় নিহতদের জানাজায় থাকবেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
পাকিস্তানের কিছু প্রেতাত্মা এখনো এদেশের মাটিতেই রয়ে গেছে: প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
বাংলাদেশ-সিঙ্গাপুরের দু’টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর
.............................................................................................
মেঘালয়ে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত স্থান পরিদর্শনে গিয়ে আপ্লুত রাষ্ট্রপতি
.............................................................................................
দাওয়াহ ইলাল্লাহ’ জঙ্গি ফোরামের নেপথ্যে কারা
.............................................................................................
জাফর ইকবালকে দেখতে যাবেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক : জাকির এইচ. তালুকদার ।     [সম্পাদক মন্ডলী ]
সম্পাদক কর্তৃক ২ আরকে মিশন রোড থেকে প্রকাশিত।
ফোন: ০১৭১৩৫৯২৬৯৬ , ই-মেইল: dtvbanglahr@gmail.com
   All Right Reserved By www.dtvbangla.com Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]